কর্মস্থলে যাওয়ার যুদ্ধ: তিনগুণ যাত্রী নিয়ে চাঁদপুর ছেড়েছে লঞ্চ

  চাঁদপুর প্রতিনিধি ১৮ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

লঞ্চ

ঈদুল আজহার ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন মানুষ। আর যাত্রীচাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে নৌ-রুটের লঞ্চগুলো। ধারণক্ষমতার তিনগুণ যাত্রী নিয়ে রাজধানীর উদ্দেশে ঘাট ত্যাগ করছে। শনিবার এ চিত্র দেখা গেছে চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনালে।

অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন বিশেষ করে শিশু ও নারীরা। দুর্ঘটনার ঝুঁকি তো থাকছেই। শনিবার সকালে সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, ৮-৯শ’ যাত্রী ধারণক্ষমতার একেকটি লঞ্চ তিনগুণ অর্থাৎ ২ হাজার ৭শ’ থেকে ৩ হাজার যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে চাঁদপুর নৌ-টার্মিনাল ত্যাগ করছে। বিকেল ৫টা পর্যন্ত অভিন্ন দৃশ্য দেখা যায়। নাম প্রকাশ না করা শর্তে একাধিক লঞ্চ সুপারভাইজার জানান, দিনভর প্রতিটি লঞ্চ ধারণক্ষমতার তিনগুণ যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে চাঁদপুর ছেড়েছে।

দুপুরে দেখা যায়, নির্ধারিত সময়ের আগে লঞ্চগুলোর স্বাভাবিক নিয়মানুযায়ী যাত্রী হলেও তারা ঘাট ছাড়ছে না। সকাল থেকে এমভি সোনারতরী, এমভি রফ রফ, এমভি ঈগল, এমভি আবে জমজম, এমভি প্রিন্স অব রাসেল, মেঘনা রানী ও বোগদাদিয়া-৭ অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চাঁদপুর ছেড়েছে।

লঞ্চ মালিক প্রতিনিধি রুহুল আমিন জানান, চাঁদপুর-ঢাকা নৌরুটে ভ্রমণ আরামদায়ক হওয়ার কারণে যাত্রীসংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। বর্তমানে এই রুটে ২২টি বিলাসবহুল লঞ্চ চলাচল করছে। চাঁদপুরসহ পার্শ^বর্তী জেলা নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর ও শরীয়তপুরের আংশিক এলাকার মানুষ এখন এ রুটে যাতায়াত করেন। ঈদুল আজহার ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফেরার জন্য তারা এ রুটকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন। তাই যাত্রীদের বাড়তি চাপ দেখা যাচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর থেকে আসা যাত্রী মোহাম্মদ নিয়াজ জানান, লঞ্চগুলো অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে ছাড়ছে। প্রতি ঘণ্টায় লঞ্চ রয়েছে। সে কারণে আমরা ইচ্ছে করেই ভিড়ের মধ্যে লঞ্চে উঠিনি। চাঁদপুর বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক জানান, চাঁদপুর ঘাট থেকে যাতে কোনো লঞ্চ অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে না যায়, সে ব্যাপারে আমরা সতর্র্ক আছি। তবে যাত্রীর চাপ বেড়েছে শুক্রবার থেকে। এ ঘাটের যাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য নৌ-পুলিশ, কোস্টগার্ড, স্কাউট সদস্যসহ আমাদের লোকজন সার্বক্ষণিক কাজ করছেন।

কয়েকটি লঞ্চ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী লঞ্চে না ওঠার জন্য বললেও যাত্রীরা তা শোনেন না। বাধ্য হয়ে লঞ্চগুলো অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে নির্ধারিত সময়ের ২০-৩০ মিনিট আগেই ঘাট ত্যাগ করছে। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ঘাটের পরিবহন পরিদর্শক রেজাউল করিম সুমন ও মাহতাব উদ্দিন জানান, লঞ্চের সংখ্যা সীমিত, যাত্রীর চাপ বেশি। তাই অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে লঞ্চগুলো চাঁদপুর ঘাট ছাড়ছে। তবে ছাদে কোনো যাত্রী উঠতে দেইনি। কোনো দুর্ঘটনা যাতে না ঘটে, সে বিষয়ে তৎপর রয়েছি। আশা করি যাত্রীরা নিরাপদে তাদের কর্মস্থলে ফিরে যেতে পারবে। লঞ্চ মালিক প্রতিনিধি বিপ্লব সরকার জানান, যাত্রীদের না ওঠার জন্য বললেও তারা জোর করে উঠে যাচ্ছেন। ঈগল, ময়ূর, বোগদাদীয়া, ইমাম হাসানসহ কয়েকটি লঞ্চের চাঁদপুর ঘাটের দায়িত্বরত মালিক প্রতিনিধি আলী আজগর সরকার জানান, যাত্রীদের লঞ্চে না ওঠার জন্য বারণ করলেও থামিয়ে রাখা যায় না। জোর করে লঞ্চে উঠে পড়েন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×