রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

অসহযোগিতার অভিযোগ দুরভিসন্ধি

  কূটনৈতিক রিপোর্টার ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মিয়ানমারের অসহযোগিতার অভিযোগকে ভিত্তিহীন, দুরভিসন্ধিমূলক এবং সম্পূর্ণ অগ্রণযোগ্য বলে অভিহিত করেছে বাংলাদেশ। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রোববার এক বিবৃতিতে এ কথা বলেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, মিয়ানমার সরকার তিন হাজার ৪৫০ জন রোহিঙ্গাকে ফেরত নেয়ার জন্য তালিকা পাঠিয়েছিল। ওই তালিকা জাতিসংঘ উদ্বাস্তু সংস্থা ইউএনএইচসিআরের কাছে হস্তান্তর করা হলে তারা এখান থেকে ৩৩৯টি পরিবারের এক হাজার ২৭৬ জনের সাক্ষাৎকার নেয়। মিয়ানমার সরকার যেসব তথ্য দিয়েছে সবই দেয়া হয়।

কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে কোনো রোহিঙ্গাই ফেরত যেতে রাজি হয়নি। সে কারণে ২২ আগস্ট রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করা যায়নি।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, রোহিঙ্গা উদ্বেগ নিরসনের লক্ষ্যে মিয়ানমারকে রাজনৈতিক সদিচ্ছা নিয়ে দৃশ্যমান পদক্ষেপ নিতে হবে।

এটা করতে হবে দ্বিপক্ষীয় চুক্তি এবং কফি আনানের নেতৃত্বাধীন রাখাইন অ্যাডভাইজরি কমিশনের সুপারিশের আলোকে।

এতে আরও বলা হয়, প্রত্যাবাসনের দ্বিপক্ষীয় চুক্তির আলোকে বাস্তুচ্যুত মানুষদের ফিরে যাওয়ার উৎসাহ দেয়ার দায়িত্ব মিয়ানমারের। রোহিঙ্গাদের মধ্যে যে আস্থার অভাব দেখা দিয়েছে তা দূর করতে মাঠ পর্যায়ের সঠিক তথ্য সরবরাহসহ সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেয়াও মিয়ানমারের দায়িত্ব।

ফলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে না পারার কারণ হল মিয়ানমারের করণীয় পালনে ব্যর্থতা। বাংলাদেশ সরকার তার (রোহিঙ্গা) জাতিগত কিংবা ধর্মের পরিচয় যাই হোক না কেন তাকে মিয়ানমারে ফিরে যেতে বাধা না দেয়ার নীতিতে বিশ্বাসী।

ঘটনাপ্রবাহ : রোহিঙ্গা বর্বরতা

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত