টাকাসহ গ্রেফতার

আসামি করা হচ্ছে জেলার সোহেলের স্ত্রী ও শ্যালককে

  ভৈরব প্রতিনিধি ৩০ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আসামি করা হচ্ছে জেলার সোহেলের স্ত্রী ও শ্যালককে

বিপুল পরিমাণ টাকা ও ব্যাংক এফডিআরসহ চট্টগ্রাম কারাগারের জেলার সোহেল রানা বিশ্বাসকে গ্রেফতারের ঘটনায় করা মানি লন্ডারিং মামলায় আসামি করা হচ্ছে তার স্ত্রী ও শ্যালককে।

আসামি করা হতে পারে দেড় মাস আগে ঢাকার নিজ বাসা থেকে ৮০ লাখ টাকাসহ গ্রেফতার চট্টগ্রামে জেলের ডিআইজি পার্থ কুমার বণিককেও। এছাড়া জেলার সোহেল রানার স্ত্রী ও শ্যালকের টাকা তুলে নেয়ার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ফেঁসে যেতে পারেন দুই ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাও। তদন্তকারী কর্মকর্তা ময়মনসিংহ দুদকের সহকারী পরিচালক সাধন চন্দ্র সূত্রধর যুগান্তরকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

গত বছরের ২৬ অক্টোবর জেলারকে গ্রেফতারের দু’দিন পর তার স্ত্রী হোসনে আরা পপি ও শ্যালক রাকিবুল হাসান ময়মনসিংহ শাখার মার্কেন্টাইল ও প্রিমিয়ার ব্যাংক থেকে এফডিআরের এক কোটি টাকা তুলে নেয়।

অথচ এফডিআরের কাগজপত্র ছিল পুলিশের হাতে। পুলিশের ধারণা, সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগসাজশে এ টাকা তুলে নেন স্ত্রী ও শ্যালক। দু’জনকে এ বিষয়ে একাধিকবার জিজ্ঞাসাবাদ করলেও তারা এখন পর্যন্ত টাকার উৎস জানাতে পারেনি। এ কারণে দু’জনকে মামলার আসামি করা হচ্ছে বলে জানান সাধন চন্দ্র সূত্রধর।

এছাড়া টাকা তুলে নেয়ার ঘটনায় ওই দুই ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাও জড়িত থাকতে পারেন এবং সেক্ষেত্রে ব্যাংক কর্মকর্তাদেরও আসামি করা হতে পারে বলে জানান তিনি।

সাধন চন্দ্র সূত্রধর বৃহস্পতিবার যুগান্তরকে বলেন, জেলারের স্ত্রী হোসনে আরা পপি ও শ্যালক রাকিবুল হাসান এফডিআরের টাকার উৎস দেখাতে পারছে না। তারা দু’জন প্রতারণার মাধ্যমে ব্যাংক থেকে এক কোটি টাকা তুলে নেয়। এ কারণে দু’জনকে মামলার আসামি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

এছাড়া বিভিন্ন ব্যাংকে নামে-বেনামে ২৬টি ব্যাংক হিসাবে থাকা জেলারের প্রায় ৪ কোটি টাকা জব্দ করা হয়েছে বলে জানান তিনি। তদন্ত কর্মকর্তা আরও বলেন, মামলাটি আগে আরও দু’জন তদন্ত করেছে। দেড় মাস আগে আমাকে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়। চার্জশিট দিতে আরও কিছুদিন লাগবে বলে তিনি জানান।

এদিকে পার্থ কুমার বণিককে দেড় মাস আগে ঢাকার নিজ বাসা থেকে ৮০ লাখ টাকাসহ গ্রেফতার করে দুদক। এরপর মামলার তদন্তের মোড় ঘুরে যায়। এর আগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদন্তে চট্টগ্রাম কারাগারের ঘুষ-দুর্নীতিসহ কারাগারের ভেতরে মাদক ব্যবসায় ৪৮ জনের নাম সম্পৃক্ততা উঠে আসে।

জেলার সোহেল রানার মামলায়ও তাকে আসামি করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা। গত বছরের ২৬ অক্টোবর নগদ ৪৪ লাখ ৪৩ হাজার টাকা, আড়াই কোটি টাকার ব্যাংক এফডিআর, এক কোটি ৩০ লাখ টাকার ব্যাংক চেক, ৫টি খালি চেকবই ও ১২ বোতল ফেনসিডিলসহ জেলার সোহেল রানা বিশ্বাসকে গ্রেফতার করে ভৈরব রেল পুলিশ।

এ ঘটনায় ভৈরব রেলওয়ে থানায় পৃথক দুটি মামলা করে পুলিশ। তদন্ত শেষে মাদক মামলার চার্জশিট কিশোরগঞ্জ আদালতে দিয়েছে পুলিশ। আর মানি লন্ডারিং মামলার তদন্ত করছে ময়মনসিংহ দুর্নীতি দমন কমিশন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×