এইচএসসিতে থাকবে দুইয়ের অধিক প্রশ্নের সেট

প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে এসএসসি পরীক্ষা বাতিলের সম্ভাবনা কম

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে এসএসসির কোনো পরীক্ষা বাতিলের সম্ভাবনা ক্ষীণ। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের সচিবের সঙ্গে আলাদা আলাপে এ আভাস পাওয়া গেছে। অন্যদিকে আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস রোধে দুইয়ের অধিক সেট প্রশ্ন ছাপানো হচ্ছে। বর্তমানে পাবলিক পরীক্ষার জন্য দুই সেট করে প্রশ্নপত্র ছাপানো হয়।

এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ সংক্রান্ত তথ্য যাচাই-বাছাইয়ের লক্ষ্যে গঠিত কমিটি এবং প্রশ্নফাঁসমুক্ত এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে গঠিত কমিটির আলাদা দুটি সভা রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। তাতে এসএসসি পরীক্ষার ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা শেষে দুই-তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের সিদ্ধান্ত হয়। এইচএসসি পরীক্ষা সংক্রান্ত কমিটির বৈঠকে উল্লেখিত সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠক শেষে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস সংক্রান্ত কমিটির প্রধান কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, পরীক্ষা বাতিলের সুপারিশ করা হবে কিনা সেটা বলা যাবে না। আবার বাতিলের সুপারিশ করব- সেটাও বলব না। তবে আমরা শুধু একটু বলতে পারি- ২০ লাখ শিক্ষার্থীর স্বার্থের কথা চিন্তা করেই আমরা সুপারিশ করব।

পরীক্ষা বাতিল প্রশ্নে কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব এবং যাচাই কমিটির প্রধান ২০ লাখ ছাত্রছাত্রীকে উদ্দেশ করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘এরা তো আমাদেরই সন্তান। আমরা এমন কোনো সুপারিশ করব না, যেটা তাদের জন্য ক্ষতিকর হবে। আর সরকারও এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না, যেটা তাদের জন্য কষ্টের বা ক্ষতিকর কিছু।’

জানা গেছে, এ কমিটির প্রতিবেদন সুপারিশসহ শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এরপর মন্ত্রী এবং একই মন্ত্রণালয়ের অপর বিভাগের সচিবসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বসে প্রতিবেদন পর্যালোচনা শেষে সিদ্ধান্ত নেবেন। প্রশ্নফাঁসের দায়ে পরীক্ষা বাতিল করা হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন যুগান্তরকে বলেন, ‘সরকারের কাজ হচ্ছে জনগণের সর্বোচ্চ মঙ্গল ও সুবিধা নিশ্চিত করা। গৃহীত যে কোনো পরীক্ষা বাতিলের আগে প্রশ্নফাঁস কতটুকু হয়েছে, কতক্ষণ আগে হয়েছে, এর সুবিধা কতজন পেয়েছে, তাদের কারণে ২০ লাখ ছাত্রছাত্রীকে কষ্ট দেয়া ঠিক হবে কিনা- ইত্যাদি দিক বিবেচনায় নিতে হবে। সুতরাং, পরীক্ষা বাতিল হবে কী হবে না- তা এখনই বলা যাচ্ছে না। আমরা প্রতিবেদন পাওয়ার পর উল্লেখিত দিকগুলো বিবেচনায় নিয়ে সিদ্ধান্ত নেব। জনগণের কষ্ট হয় এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে না।

১ ফেব্রুয়ারি এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। ২৪ ফেব্রুয়ারি তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হয়েছে। এর মধ্যে ১০টি পরীক্ষার প্রশ্নই ফাঁসের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের এমন নানা অভিযোগের মধ্যে ৪ ফেব্রুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জরুরি সভায় ১১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির প্রথম সভা ১১ ফেব্রুয়ারি, দ্বিতীয় সভা ১৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়। তৃতীয় সভা হয় রোববার। সভা শেষে সচিব মো. আলমগীর আরও বলেন, ‘প্রশ্নফাঁস সংক্রান্ত গণমাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্ট পর্যালোচনা করেছি। দুই-তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।’

প্রসঙ্গত, এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি কমিটির সভা শেষে কমিটিপ্রধান জানিয়েছিলেন, এসএসসি পরীক্ষার একটি বিষয়ের সম্পূর্ণ এবং কয়েকটির আংশিক প্রশ্নফাঁসের প্রমাণ মিলেছে। ওই সব পরীক্ষা বাতিলের সুপারিশ করবেন তারা। ওই দিন তিনি আরও বলেন, যদি দেখা যায় যে কোনো প্রশ্ন হুবহু মিলে গেছে, যদি অবজেকটিভ টাইপের প্রশ্নফাঁস হয়ে থাকে তবে সম্পূর্ণ পরীক্ষা নতুন করে নেব না, শুধু অবজেকটিভের জন্য পরীক্ষা হবে।

রোববারের বৈঠক শেষে তিনি বলেন, কোনো বিষয়েরই পুরো প্রশ্নফাঁস হয়নি। একটি বিষয়ের পুরো প্রশ্নফাঁস বলতে আমরা বোঝাচ্ছি- এমসিকিউ পুরো প্রশ্ন। কোনো বিষয়ের রচনামূলক প্রশ্ন ফাঁস হয়নি। ফাঁসের যেসব অভিযোগ এসেছে, তার মধ্যে কিছু কিছু আংশিক মিল আছে। এ কারণে একক কোনো সুপারিশ নেই। ১২টা পরীক্ষার জন্য ১২ রকমের সিদ্ধান্ত হতে পারে।

এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে বৈঠক : এদিকে দুপুরে আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস রোধ ও নিরাপত্তা বিষয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিবের সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে প্রশ্ন ফাঁসরোধে এবার দুইয়ের অধিক সেট প্রশ্ন ছাপানোর সিদ্ধান্ত হয়। আগামী ২ এপ্রিল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে।

pran
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

mans-world

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.