নেশাখোর বখাটের নৃশংসতা

বগুড়ায় পেট্রল ঢেলে মাকে পুড়িয়ে হত্যা

প্রকাশ : ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  বগুড়া ব্যুরো

ছবি: যুগান্তর

বগুড়ার ধুনটে নেশার টাকা না পেয়ে বৃদ্ধা মা খুকি বেগমকে (৬৫) পেট্রল ঢেলে পুড়িয়ে হত্যা করেছে বখাটে ছেলে সোহানুর রহমান খোকন মণ্ডল (৩২)। নৃশংস কায়দায় হত্যার আগে মায়ের হাত-পা রশি দিয়ে শক্ত করে বেঁধে ঘরের মেঝেতে শুইয়ে দেয়া হয়।

পরে গোটা শরীর কম্বল দিয়ে ঢেকে তাতে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। মায়ের চিৎকারের শব্দ যাতে বাইরে যেতে না পারে সেজন্য ঘরে সাউন্ডবক্স বাজাচ্ছিল বখে যাওয়া পাষণ্ড ছেলে।

রোববার বিকাল ৫টার দিকে উপজেলার চিকাশী ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামে এ পৈশাচিক ও হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটে। প্রতিবেশীরা বখাটে খোকন মণ্ডলকে ধরে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে দিয়েছেন। ধুনট থানার ওসি ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও প্রতিবেশী ফিরোজ মাহমুদ হিরা জানান, খোকন ধুনট উপজেলার গজারিয়া গ্রামের আবদুস সামাদ মণ্ডলের ছেলে। সে কোনো কাজ করত না। নেশার টাকা না পেলে বৃদ্ধ বাবা-মাকে নির্যাতন করা তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল। সন্তানের নেশার টাকা জোগাড় করতে কিছুদিন আগে জমি বিক্রি করে দেয়া হয়।

খোকন রোববারও তার মায়ের কাছে ৫ হাজার টাকা দাবি করে। কিন্তু টাকা না দেয়ায় সে মায়ের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে বিকাল ৫টার দিকে কৌশলে মায়ের হাত-পা বেঁধে ফেলেন। পরে তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেল থেকে পেট্রল এনে মায়ের শরীরে ছিটিয়ে দেয়া হয়। পরে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। আগুনে খুকির শরীর ঝলসে যায়।

প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে পাঠান। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে গাবতলী উপজেলার পোড়াদহ গোলাবাড়ি এলাকায় পৌঁছার পরই খুকি বেগম মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। ঘটনার পর পরই স্থানীয়রা খোকনকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। পরে তাকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

ওসি ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল জানান, বখাটে খোকন মণ্ডল নেশার টাকার জন্য বাবা-মায়ের ওপর নির্যাতন চালায়। এছাড়া কয়েকদিন আগে তার স্ত্রী বাপের বাড়ি চলে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এসব কারণে সে ক্ষিপ্ত হয়ে মায়ের শরীরে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল। হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মা মারা গেছেন।