৭ মার্চ বিশাল শোডাউনের প্রস্তুতি আ’লীগের

  মাহবুব হাসান ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণের দিনটিতে রাজধানীতে বিশাল শোডাউন করতে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এদিন বঙ্গবন্ধুর ভাষণের স্থান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করবে দলটি। জনসভাকে ঘিরে ব্যাপক লোক-সমাগমের প্রস্তুতি চলছে। মূল দলসহ সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের দুই অংশ এবং সমমনা সংগঠনগুলোকেও এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ জনসভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি থাকবেন।

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক এ ভাষণ ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের স্বীকৃতি পাওয়ার পর এদিনটিতে এবার প্রথমবারের মতো আয়োজিত হতে যাচ্ছে এ জনসভা। স্বীকৃতিকে উদযাপন করা ও রাজপথে নিজেদের অবস্থান জানানোর জন্য এ দিনটিতে স্মরণকালের বড় জনসভা করতে চায় ক্ষমতাসীন দল। তাছাড়া এর মাধ্যমে নির্বাচনের আগে নেতাকর্মীদের মাঠে থাকার প্রস্তুতিও শুরু হয়ে যাবে। দিনটি পালনের নির্দেশ দিয়ে ওবায়দুল কাদেরের স্বাক্ষরিত চিঠি ইতিমধ্যে জেলা-উপজেলা নেতাদের পাঠানো হয়েছে। জনসভা সফল করার জন্য ১৮ ফেব্রুয়ারি যৌথসভায় দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, এদিন হবে স্মরণকালের বৃহত্তম জনসভা। সেই আলোকে প্রস্তুতি নেয়ার জন্য তিনি নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, আগামী ইলেকশনের আগে ঢাকা সিটিতে আমরা এত বড় জনসভা আর করতে পারব না। তাই এ জনসভাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। সভায় ইউনিয়ন-ওয়ার্ডের নেতারা আসবেন, তারা নেত্রীর বক্তব্য থেকে আগামী এক বছরের একটা গাইডলাইন পেয়ে যাবেন। সেটা মনে রেখেই সর্বস্তরের নেতাকর্মীকে নিয়ে আসতে হবে। এ বৈঠকে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের দুই অংশের শীর্ষ নেতা, সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, রাজধানীর সব দলীয় সংসদ সদস্য ও পাশের জেলাগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ৭ মার্চের ভাষণই তো স্বাধীনতার আসল ঘোষণা। কাজেই এর স্পিরিট আমরা তৃণমূলে ছড়িয়ে দিতে চাই। পাশাপাশি ৭ মার্চের জনসভা সফল করার জন্য ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোকে নির্দিষ্ট করে দায়িত্ব দেন ওবায়দুল কাদের। আর জেলা নেতারাও সভা সফল করতে সব ধরনের প্রস্তুতির অঙ্গীকার করেন।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ যুগান্তরকে বলেন, বঙ্গবন্ধুর সাত মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়ার পর এই প্রথম এ দিনটি আসছে। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা আনন্দ-উচ্ছ্বাসের সঙ্গে দিনটি পালন করবে। এদিন বিশাল জনসভা হবে। নেতাকর্মীসহ সব শ্রেণী-পেশার মানুষের অংশগ্রহণে এ জনসভা জনসমুদ্রে রূপ নেবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সূত্র জানায়, এ জনসভাকে কেন্দ্র করে ধানমণ্ডি টু সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দলের ২০তম জাতীয় সম্মেলনের আদলে আলোকসজ্জা করা হবে ১ মার্চই। ধানমণ্ডি-৩/এ তে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনের সড়কটি আলোকসজ্জায়, তোরণ ও ফেস্টুনে সুসজ্জিত থাকবে। একই আদলে ধানমণ্ডি-৩২ নম্বরও আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হবে। এজন্য রোববার সকাল থেকে দলের সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে কাজ শুরু হয়েছে। সূত্র জানায়, জনসভাস্থল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে একুশে বইমেলা শেষ হলেই আলোকসজ্জা ও জনসভা মঞ্চের কাজ পুরোদমে শুরু হবে।

গত বছরের অক্টোবরে ইউনেস্কো ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণটিকে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। এরপর আওয়ামী লীগ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে স্বীকৃতি উদযাপন করে। নাগরিক কমিটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই আয়োজন করে নাগরিক সমাবেশের। এবার আসন্ন এদিনটিতে জনসভা স্বীকৃতি উদযাপনের প্ল্যাটফর্ম বলেই মনে করা হচ্ছে।

জনসভা সফল করতে শুক্রবার বিকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে মতবিনিময় সভা হয়। সোমবার গুলশানে কর্মিসভা করে মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর। এছাড়া সহযোগী সংগঠনগুলোও নিজেদের মতো করে প্রস্তুতি নিচ্ছে। স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি পংকজ দেবনাথ যুগান্তরকে বলেন, তারা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেছেন। ৭ মার্চের জনসভায় সদলবলে উপস্থিত হতে নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

কর্মিসভা-মতবিনিময় সভা, প্রস্তুতি সভা বা বর্ধিত সভা করছে রাজধানীর থানা-ওয়ার্ড আওয়ামী লীগও। ২৫ ফেব্রুয়ারি ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ৭ মার্চের জনসভা সফলের জন্য প্রস্তুতি ও মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। ডেমরার সারুলিয়ায় অনুষ্ঠিত এ সভায় আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, ডেমরা থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজলসহ স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সোমবার যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিবির বাগিচায় সদস্য নবায়ন ও ৭ মার্চের জনসভার প্রস্তুতি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ মোল্লা ও থানা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র আবুল কালাম অনুসহ স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকার পাশে নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর জেলার নেতাকর্মীরাও বর্ধিত সভা, প্রস্তুতি সভা এবং কর্মিসভার মাধ্যমে সেদিনের জনসভার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জেলা নেতারা জানান।

pran
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter