হ্যাটট্রিকের আশায় আ’লীগ লন্ডনমুখী বিএনপি নেতারা

মনোনয়ন দৌড়ে জাতীয় পার্টির মোকছেদুল আলম

  মো. নাজমুল হুদা নাসিম, বগুড়া ব্যুরো ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জেলার সারিয়াকান্দি ও সোনাতলা উপজেলা নিয়ে বগুড়া-১ আসনে নির্বাচনী প্রচার শুরু হয়ে গেছে। প্রার্থীরা নানা কৌশলে ভোটারদের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। যোগ দিচ্ছেন বিভিন্ন সভা-সমাবেশ ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে। ঈদ ও পূজা-পার্বণে যোগ দিয়ে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নিজেদের তুলে ধরছেন। মনোনয়নপ্রত্যাশীদের ছবিসংবলিত পোস্টার-ব্যানার ঝুলছে নির্বাচনী এলাকার মোড়ে মোড়ে। তৃণমূলের কাছে যাওয়ার পাশাপাশি কেন্দ্রের সঙ্গেও তারা যোগাযোগ বাড়িয়েছেন। আসনটি নিজেদের কব্জায় নিতে বিএনপির একাধিক প্রার্থী মাঠে সক্রিয়। এরা দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কৃপা লাভের চেষ্টার পাশাপাশি লন্ডনে অবস্থানরত দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছেও ধরনা দিচ্ছেন। পরপর দু’বার ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের দখলে থাকা এ আসনের বর্তমান এমপি আবদুল মান্নানের পাশাপাশি একাধিক নতুন মুখ মনোনয়ন দৌড়ে মাঠে রয়েছেন। বিএনপির অন্তত সাতজন মনোনয়নপ্রত্যাশীকে মাঠে সক্রিয় দেখা যাচ্ছে। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের আবদুল মান্নান জয়ের হ্যাটট্রিক করার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন। এলাকাটি বিএনপির দুর্গ মনে করা হতো একসময়। গত দুই টার্ম ধরে হাতছাড়া বগুড়া-১ আসনটি আগামী নির্বাচনের মধ্য দিয়ে পুনরুদ্ধার করতে চাইছে গত নয় বছর ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি। মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টিও এ আসনে নির্বাচন করতে তৎপর।

বিশেষ করে নব্বইয়ের রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের পর ৩ লাখ ৮ হাজার ৯০২ জন ভোটার নিয়ে বগুড়া-১ আসনে ১৯৯১ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হন বিএনপির প্রয়াত নেতা ডা. হাবিবুর রহমান। ১৯৯৬ সালের ভোটেও বিজয়ী হন হাবিবুর রহমান। ২০০১ সালে নির্বাচনে বিজয়ী হন বিএনপির কাজী রফিকুল ইসলাম। সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার দুই বছর দেশ শাসনের পর ২০০৮ সালের ভোটে বিএনপির প্রার্থী দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মোহাম্মদ শোকরানাকে হারিয়ে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগের আবদুল মান্নান। আগামী নির্বাচনেও তিনি দলের শক্তিশালী প্রার্থী।

বর্তমান এমপি ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল মান্নানের অনুসারীরা বলছেন, আগামী নির্বাচনে মান্নানই দলের মনোনয়ন পাবেন। সারিয়াকান্দিতে দলীয় কোন্দলের কারণে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে পৌর মেয়র সাবেক ছাত্রনেতা আলমগীর শাহী সুমনকে। এসব নিয়ে দলের মধ্যে বিরোধ এখনও কাটেনি। এরই জেরে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন দৌড়ে রয়েছেন সাবেক এ ছাত্রনেতা। আগামী নির্বাচনে শাহী সুমনের মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদী তার কর্মী-সমর্থকরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নেতাকর্মীরা জানান, নানা নির্যাতন ও হয়রানির শিকার পৌর মেয়র আলমগীর শাহী সুমন নৌকার প্রার্থী হতে মাঠে তৎপর। কথা হয় সাবেক ছাত্রনেতা শাহী সুমনের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, দলীয় মনোনয়ন পেলে বড় ব্যবধানে নৌকার জয় হবে। বিভক্ত আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করেছি। সবই জানে দলের হাইকমান্ড। আগামী নির্বাচনে দলের মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে সুমন বলেন, পৌরবাসীকে সেবা দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো কৃপণতা ছিল না, এমপি হিসেবে নির্বাচিত হলে আরও বেশি করে কাজ করার সুযোগ পাব।

আগামী নির্বাচনী ভাবনা নিয়ে কথা হয় বর্তমান এমপি আবদুল মান্নানের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, তার নির্বাচনী এলাকা এখন দেশের উন্নয়নের রোল মডেল। আওয়ামী লীগ সরকারের দুই মেয়াদের শাসনামলে যে উন্নয়ন হয়েছে তা চোখে পড়ার মতো। এর আগে এলাকাবাসী এত উন্নয়ন দেখেনি। তিনি জানান, গত প্রায় আট বছরে এক হাজার ৫০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নদীভাঙন রোধে স্থায়ী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। চলতি মেয়াদে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, এলাকার রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, বেশ কয়েকটি সেতু নির্মাণ, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন করা হয়েছে। আগামী নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে এমপি নির্বাচিত হব। এ ছাড়া আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে আরও অন্তত তিনজনের নাম শোনা যাচ্ছে। তারা হলেন- টিঅ্যান্ডটির সাবেক চেয়ারম্যান প্রকৌশলী এসএম খবির উদ্দিন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ও ঠিকাদার আবদুুর রাজ্জাক এবং সারিয়াকান্দি উপজেলার সবেক সভাপতি অধ্যক্ষ মঞ্জিল আলী সরকার।

এদিকে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি আগামী নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বগুড়া-১ আসনটি পুনরুদ্ধারে সক্রিয়। এরই মধ্যে দলের একাধিক প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। এরা হলেন- ঢাকাস্থ বগুড়া জেলা জাতীয়তাবাদী ফোরামের সভাপতি ও জিয়া শিশুকিশোর কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির শিশুবিষয়ক সম্পাদক মোশাররফ হোসেন চৌধুরী, সাবেক এমপি কাজী রফিকুল ইসলাম, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মোহাম্মদ শোকরানা, সোনাতলা উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির। এ ছাড়া প্রার্থী তালিকায় আরও যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন- সারিয়াকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান হিরু মণ্ডল, ড্যাব বগুড়ার সভাপতি ডা. শাহ মো. শাহজাহান আলী ও ব্যবসায়ী ড. সামসুল আলম।

নির্বাচন নিয়ে আলাপে মোশাররফ হোসেন চৌধুরী যুগান্তরকে বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন পেলে ম্যাডামকে ধানের শীষের জয় এনে দেব। দলমত নির্বিশেষে সোনাতলা ও সারিয়াকান্দিবাসীকে নিয়ে এলাকার উন্নয়নে ঝাঁপিয়ে পড়ব। তিনি বলেন, শীত মৌসুমে দরিদ্রদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ছাড়াও দুঃসময়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সহযোগিতা করেছি। তিনি বলেন, মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচিত হলে এলাকাবাসীকে সার্বিক সহযোগিতা করব।

একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির বলেন, দলের দুঃসময়ে ছিলাম ও ভবিষ্যতেও থাকব। পৌনে ২০০ নেতাকর্মীর মামলা পরিচালনা করে যাচ্ছি। আমার বিশ্বাস আগামী নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পাব। আর নির্বাচিত হলে এলাকার নদীভাঙনসহ দুস্থ মানুষের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করব।

কাজী রফিকুল ইসলাম বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচনে এমপি হওয়ার পর এলাকার উন্নয়নে অনেক কাজ করেছি। নতুন নতুন সড়ক সেতু ও কালভার্ট নির্মাণ থেকে শুরু করে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করেছি। আগামী নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, নির্বাচিত হলে অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে এলাকার উন্নয়নে ঝাঁপিয়ে পড়ব।

আগামী নির্বাচনে লড়তে মাঠে রয়েছেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য ও উপজেলা কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ মোকছেদুল আলম। তিনি উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে সাংগঠনিক কার্যক্রম গতিশীল করে এলাকায় দলের অবস্থান দৃঢ় করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, সারিয়াকান্দি উপজেলা যমুনা ও বাঙালি নদীর ভাঙনে ক্ষতবিক্ষত। ভাঙনের শিকাররা মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন। ভাঙন রোধে দরকার স্থায়ী নদীশাসন। দলীয় মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে মোকছেদুল আলম বলেন, নির্বাচিত হলে এসব সমস্যার সমাধান ছাড়াও এলাকার উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত রাখব।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.