আইনজীবীর সহকারী হত্যায় ১২ জনের মৃত্যুদণ্ড

  যুগান্তর রিপোর্ট ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মৃত্যুদণ্ড
মৃত্যুদণ্ড। ফাইল ছবি

ঢাকা জজ কোর্টের আইনজীবীর সহকারী মোবারক হোসেন ভূঁইয়া হত্যা মামলায় একই পরিবারের আটজনসহ ১২ আসামির মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৩-এর বিচারক মনির কামাল এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর থানার গোথালিয়া ভূইয়াবাড়ির মৃত হাজী সাইদুর রহমানের ছয় ছেলে মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া ওরফে মহুব, মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া ওরফে বাদল ভূঁইয়া, আফজল ভূঁইয়া, এমদাদুল হক ওরফে সিকরিত ভূঁইয়া, নয়ন ভূঁইয়া ও ভুলন ভূঁইয়া ওরফে ভুলু। আর একই পরিবারের এমদাদুল হকের স্ত্রী সুলতানা আক্তার ও মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়ার ছেলে দেলোয়ার হোসেন দিলিপকেও মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এ ছাড়া একই এলাকার নবুরিয়া গ্রামের শামসুদ্দিনের ছেলে রুহুল আমিন, আবুল কালাম আজাদ ওরফে রাজা মিয়ার ছেলে শিপন মিয়া, একই থানাধীন মইতপুরের কাজী জজ মিয়ার স্ত্রী নিলুফা আক্তার ও পরেশ সন্ন্যাসীর ছেলে বিধান সন্ন্যাসীর মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ডও দেয়া হয়েছে। আসামিদের মধ্যে বিধান সন্ন্যাস, দেলোয়ার হোসেন, নিলুফা আক্তার ও সুলতানা আক্তার পলাতক রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। বাকি আসামিদের সাজা পরোয়ানা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রায়ে অপর দুই পলাতক আসামি তাছলিমা আক্তার ও শামীন ওরফে ফয়সাল বিন রুহুলকে এক বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। আর জয়নাল আবেদীন ওরফে ফালুর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত তাকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

রায় ঘোষণার সময় নিহত মোবারক হোসেন ভূঁইয়ার ছোট ভাই ও মামলার বাদী মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া উপস্থিত ছিলেন। রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে তিনি বলেন, আশা করি, উচ্চ আদালতেও এ রায় বহাল থাকবে এবং দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামিদের ফাঁসি কার্যকর হবে। রায়ে রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর মাহবুবুর রহমানও সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

তবে রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন আসামিপক্ষের আইনজীবী খন্দকার মো. জামাল উদ্দিন ও সেলিনা আক্তার। তারা বলেন, আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ না হলেও আদালত তাদের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন। আমরা এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করব।

আদালত সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর থানার গোথালিয়া ভূঁইয়াবাড়ির মোবারক হোসেন ভূঁইয়া ঢাকার জজ কোর্টে আইনজীবীর সহকারী হিসেবে কাজ করতেন। আসামিদের সঙ্গে জমিজমা নিয়ে পারিবারিক বিরোধ ছিল। এর জেরে ২০১৫ সালের ২২ অক্টোবর গোথালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠের পাশে আসামিরা মোবারক হোসেনের পেটে বল্লম দিয়ে আঘাত করে পেটের নাড়িভুঁড়ি বের করে ফেলে।

এতে মোবারক হোসেনের মৃত্যু হয়। এ সময় মোবারকের ভাগনে রায়হান মিয়াও আহত হন। এ ঘটনায় পরদিন মোবারকের ভাই বাদী হয়ে মামলাটি করেন। তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ২ জানুয়ারি বাজিতপুর থানার ওসি ১৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে এ মামলার চার্জশিট দাখিল করেন।

ওই বছরের ১৭ ডিসেম্বর ট্রাইব্যুনাল আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন। মামলায় চার্জশিটভুক্ত ৩১ জনের মধ্যে ২৩ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ হয়েছে। এ ছাড়া আসামিপক্ষে ১১ জন সাফাই সাক্ষ্য দিয়েছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×