পোষা প্রাণীকে সঙ্গে নিয়ে কবরে

  যুগান্তর ডেস্ক ২৮ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পশুপ্রেমীরা চাইলে মৃত্যুর পর তাদের পোষা প্রাণীকেও একই কবরে পাবেন। জার্মানির হামবুর্গ শহর কর্তৃপক্ষের করা এ ধরনের এক আইনে সমর্থন জানিয়েছেন রাজ্য আদালতও। শহর কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে কবরস্থানে আলাদা জায়গা রাখার পরিকল্পনাও করেছে।
ছবি: সংগৃহীত

পশুপ্রেমীরা চাইলে মৃত্যুর পর তাদের পোষা প্রাণীকেও একই কবরে পাবেন। জার্মানির হামবুর্গ শহর কর্তৃপক্ষের করা এ ধরনের এক আইনে সমর্থন জানিয়েছেন রাজ্য আদালতও। শহর কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে কবরস্থানে আলাদা জায়গা রাখার পরিকল্পনাও করেছে।

আইন অনুযায়ী, পোষা প্রাণীর আগে মৃত্যু হলে তার দেহভস্ম একটি কফিনে রেখে কবর দেয়া হবে, যেখানে মারা যাওয়ার পর প্রাণীটির মালিকও শায়িত হবেন।

আর মালিকের মৃত্যু আগে হলে প্রাণীটি মারা যাওয়ার পরে তাকেও একই জায়গায় কবর দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। এক্ষেত্রে দায়িত্ব নিতে হবে ওই ব্যক্তির পরিবারকে।

গ্রিন পার্টির মুখপাত্র উলরিকে স্পার বলেন, পোষা প্রাণীর সঙ্গে অনেকেরই নিবিড় ও আবেগের সম্পর্ক।

প্রাণীরা তাদের পরিবারেরই একজনের মতো। তাই এ অনুমতি যৌক্তিক। স্পার মনে করেন, যারা বিষয়টিকে সমর্থন করেন না তাদের সম্মানে হামবুর্গের কবরস্থানে আলাদা একটি জায়গা রাখা উচিত।

হামবুর্গ শহর কর্তৃপক্ষের একজন মুখপাত্র বলেছেন, শহরের উত্তরের একটি কবরস্থানের একপাশে এক হেক্টরের মতো জায়গা বরাদ্দ করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে শুধু কুকুর, বেড়ালের মতো ছোট প্রাণীদেরই কবর দেয়ার সুযোগ হবে। ঘোড়া বা অন্য কোনো বৃহৎ পোষা প্রাণীকে সঙ্গে পাবেন না মৃত ব্যক্তির। ডয়চে ভেলে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×