সংকটে ফরিদপুর আবহাওয়া কেন্দ্র

  জাহিদ রিপন, ফরিদপুর ব্যুরো ০৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফরিদপুর আবহাওয়া কেন্দ্র
ফরিদপুর আবহাওয়া কেন্দ্র।ফাইল ছবি

পুরান যন্ত্রপাতি ও লোকবল সংকট নিয়েই চলছে ফরিদপুরের আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রটি। এখানে একটি পেশাগত সহকারী, ৩টি সিনিয়র ওয়েদার অবজারভার তথা জ্যেষ্ঠ আবহাওয়া পর্যবেক্ষক এবং ২টি আবহাওয়া সহকারী পদসহ ৭টি পদ রয়েছে। এর মধ্যে সিনিয়র ওয়েদার পর্যবেক্ষক ও আবহাওয়া সহকারী পদে কেউ কর্মরত নেই। সেখানে একজন পেশাগত সহকারী ও দু’জন বেলুন মেকারসহ কর্মরত আছেন পাঁচজন।

কেন্দ্রের গার্ড ও পিয়নের পদটিও দীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে। এ কেন্দ্রে বেলুন উড়ানোর ব্যবস্থা না থাকলেও রয়েছেন দু’জন বেলুন মেকার। যারা আবহাওয়া পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন। স্বল্প সংখ্যক লোকবল নিয়েই চলছে কেন্দ্রটি। ২৪ ঘণ্টায় ৩ শিফটে ডিউটি করতে গিয়ে তারা হিমশিম খাচ্ছেন।

জানা যায়, আবহাওয়া কেন্দ্রটি ঘূর্ণিঝড়, বৃষ্টি, নিুচাপ সম্পর্কে সময়মতো তথ্য দিতে পারছে না। এ কারণে পদ্মা, আড়িয়াল খাঁ নদীর চরাঞ্চলের মানুষ ও নদীতে মাছ শিকারীদের বিপাকে পড়তে হচ্ছে। তবে এ কেন্দ্রের এক কর্মকর্তার দাবি- তারা ৩ ঘণ্টা অন্তর ঢাকায় তথ্য পাঠিয়ে থাকেন। আর দুর্যোগ হলে প্রতি ঘণ্টায় তাদের ঢাকায় রিপোর্ট পাঠাতে হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আবহাওয়ার আগাম পূর্বাভাস দেয়ার জন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে আবহাওয়া কেন্দ্রটি স্থাপন করা হয়েছে। এক সময় জেলা প্রশাসক ভবনে কেন্দ্রের কাজ চলত। ১৯৮১ সালে শহরের কমলাপুর এলাকার চাঁদমারিতে ১ একর ৫৪ শতাংশ জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠা করা হয় নিজস্ব কার্যালয়। কার্যালয় হলেও অদ্যাবধি এখানে প্রযুক্তিগত উন্নয়নের ছোঁয়া তেমন লাগেনি। ৩৮ বছরের পুরনো সরকারি কেন্দ্রটি এখনও চলছে সেই মান্ধাতা আমলের যন্ত্রপাতি দিয়ে। এখানে বায়ুর চাপ পরিমাপের জন্য ব্যারোমিটার, সূর্যের স্থায়িত্ব জানার জন্য সানশাইন রেকর্ডার, সূর্যের তীব্রতা মাপার জন্য পাইরোমিটার, শিশির পরিমাপের জন্য ডিউব্যালেন্স, সর্বোচ্চ ও সর্বনিু তাপমাত্রা পরিমাপের জন্য থার্মোমিটার, উইন্ডশিল্ড পরিমাপের জন্য কাপ অ্যানোমিমিটার, বাতাসের দিক নির্ণয়ের জন্য উইন্ড ব্যান্ড, বৃষ্টির পরিমাপ জানার জন্য সেলফ রেকর্ডিং রেইনগজসহ আনুষঙ্গিক আরও কিছু যন্ত্রপাতি রয়েছে। কিন্তু এ যন্ত্রপাতিগুলো পুরনো।

এদিকে আবহাওয়া কেন্দ্রে একটি অটোমেটিক ওয়েদার স্টেশন রয়েছে। জেলা শহর ছাড়াও কয়েকটি উপজেলাতেও এ অটোমেটিক ওয়েদার স্টেশন গড়ে তোলা হয়েছে। অটোমেটিক স্টেশনটি বাইরে খোলা জায়গায় রয়েছে। এখানে আধুনিক যন্ত্রপাতির সংকট রয়েছে। এর নিরাপত্তায় নেই কোনো প্রহরী।

সংশ্লিষ্টদের দাবি, আধুনিক যন্ত্রপাতি চেয়ে তারা বারবার ঊর্ধ্বতন মহলে ধরনা দিয়েছেন। লোকবল সংকটের কথা জানিয়েছেন। কিন্তু এখনও সমস্যার সমাধান হয়নি।

তারা বলেন, ‘ফরিদপুর একটি কৃষিভিত্তিক অঞ্চল হওয়ায় এখানে অটোমেটিক ওয়েদার স্টেশনেরও গুরুত্ব রয়েছে। এ কেন্দ্র থেকে মেঘের স্তরের (ক্লাউড লেয়ার) নিচের জলবায়ুর তথ্য জানা যায় না। এজন্য কয়েক হাজার মিটার উচ্চতায় বৃহদাকারের বেলুন উড়ানো হয়। যার মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্য সরাসরি কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের কাছে পৌঁছে যায়। দেশের বিভাগীয় আবহাওয়া দফতরগুলোতে এ বেলুন উড়ানো হলেও ফরিদপুরে এখনও এ বেলুন উড়েনি। কৃষিভিত্তিক ফরিদপুরে এ বেলুন উড়ানো খুবই জরুরি।’

ফরিদপুর আবহাওয়া দফতরের পেশাগত সহকারী সুরুজুল আমীন যুগান্তরকে বলেন, ‘জেলা পর্যায়ের এ কেন্দ্র থেকে আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেয়া হয় না। আমরা প্রতিদিন ৩ ঘণ্টা পরপর আবহাওয়া সংক্রান্ত বিভিন্ন সূচকের তথ্য সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠাই। জরুরি হলে প্রতি ঘণ্টায় ঢাকায় তথ্য প্রেরণ করি। সেখানে সারা দেশের সঙ্গে তথ্য বিশ্লেষণ করে পূর্বাভাস দেয়া হয়।’

অটো স্টেশনটি চালানোর জন্য কোনো এক্সপার্ট আছে কিনা- জানতে চাইলে সুরুজুল আমীন বলেন, ‘স্টেশনটি সব সময়ে তালাবদ্ধ অবস্থায় থাকে। এটির নিয়ন্ত্রণ ঢাকার সঙ্গে। কাউকে এটি চালাতে হয় না। এটি কোনো তথ্য দিতে না পারলে ঢাকা থেকে যারা নিয়ন্ত্রণ করেন তারা টের পান। আমরা শুধু এটি চলছে কিনা তা দেখি।’

আবহাওয়া কেন্দ্রটি আধুনিকায়নের ব্যাপারে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, ‘এ কেন্দ্রটিকে উন্নতমানের পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে রূপ দেয়ার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে। কৃষিভিত্তিক এ জনপদের মানুষ কৃষিকাজের উপযোগী ও জরুরি আবহাওয়া বিষয়ক তথ্যাদি যাতে পেতে পারে সেদিকে দৃষ্টি দেয়া হবে।’

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×