বগুড়ায় প্রকাশ্যে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

  বগুড়া ব্যুরো ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বগুড়ায় প্রকাশ্যে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

বগুড়া শহরতলীর একটি বাজারে শত শত মানুষের সামনে প্রকাশ্যে কুপিয়ে মাছ ব্যবসায়ী আবদুর রহিমকে (৪৫) হত্যা করা হয়েছে। শহরতলীর অদ্দিরগোলা বাজারে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় এ ঘটনা ঘটে।

আবদুর রহিম বগুড়া সদরের সাবগ্রাম ইউনিয়নের চকঝপু গ্রামের মোজাহার আলীর ছেলে। তিনি মাছের পোনা ব্যবসার পাশাপাশি আওয়ামী লীগের সক্রিয় কর্মী ছিলেন বলে স্বজনরা জানিয়েছেন। নিহত রহিমের ভাই হত্যাকাণ্ডের জন্য স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের দায়ী করেছেন। এ ঘটনায় আজ মামলা করবেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

আবদুর রহিম গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেন। ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারি এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সাবগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসরাইল হককে হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি ছিলেন তিনি। এ মামলায় তিনি জামিনে ছিলেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আবদুর রহিম মোটরসাইকেলে অদ্দিরগোলা বাজার হয়ে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। বাজারের পূর্বদিকে পৌঁছলে কয়েকজন অস্ত্রধারী তার পথরোধ করে এবং শত শত মানুষের সামনে তাকে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দেয়। এরপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথা, বুক, হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। ধারালো অস্ত্রের কোপে তার ডান হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আবদুর রহিম রাস্তার ওপর পড়ে থাকলেও এ সময় ভয়ে কেউ এগিয়ে আসেনি। কিছুক্ষণের মধ্যেই মারা যান তিনি। হামলাকারীরা সবার সামনে দিয়েই ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

এ ঘটনার পর অদ্দিরগোলা বাজারের তিন শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেন ব্যবসায়ীরা। পরে সদর থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ বিষয়ে বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের কাছে জানতে চাইলেও কেউ কোনো কথা বলতে চাননি।

বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী বলেন, কেউ মুখ খুলছে না। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রেজাউল করিম রেজা বলেন, পূর্ববিরোধের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড হয়েছে। হত্যার প্রকৃত কারণ উদ্ঘাটন, হামলাকারীদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

এদিকে নিহত আবদুর রহিমের বড় ভাই আবদুল বাছেদ অভিযোগ করেন, আমার ভাই আওয়ামী লীগের কর্মী ছিল। আওয়ামী লীগ নেতা ইসরাইল হককে কোপানোর ঘটনায় করা মামলায় জামিনের পর থেকে ইসরাইল ও তার ভাইয়েরা রহিমকে হুমকি দিয়ে আসছিল।

বৃহস্পতিবার সকালে রহিম গাবতলীর পেরিরহাটে মাছের পাওনা টাকা আনতে গিয়েছিল। ফেরার পথে ইসরাইলের নেতৃত্বে তার ভাই আওয়ামী লীগ কর্মী নজির, ভাই স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মী মনির, চাচাতো ভাই আওয়ামী লীগ কর্মী সফিউল্লাহ, বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দেয়া সাবগ্রাম ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার সাইফুল ইসলামসহ ১০-১১ জন ভাড়াটে সন্ত্রাসী রহিমের পথরোধ করে। এরপর তাকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করে।

ভাইকে আমি সতর্ক হয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছিলাম। কিন্তু কথা না শোনায় আজ খুন হতে হল। তবে বগুড়া সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাফুজুল ইসলাম রাজ বলেন, আবদুর রহিম আওয়ামী লীগের কোনো পর্যায়ের কর্মী ছিলেন না।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×