কুষ্টিয়া ও ধামরাইয়ের বাজার পেঁয়াজশূন্য ভোক্তা দিশেহারা

আজ রাজশাহীতে ৪৫ টাকায় বিক্রি করবে টিসিবি

  যুগান্তর ডেস্ক ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পেঁয়াজ
‌পেঁয়াজ।ফাইল ছবি

কুষ্টিয়া ও ঢাকার ধামরাইয়ের বাজারগুলোতে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে না। হঠাৎ করেই বাজারগুলো পেঁয়াজশূন্য হয়ে পড়ে। শুক্রবার সরকারি ছুটির দিনে বাজারে ক্রেতা সমাগম বেশি ছিল। তবে পেঁয়াজ কিনতে না পেরে খালি হাতে অনেক ক্রেতা বাড়ি ফেরেন।

পেঁয়াজের এমন সংকটে দিশেহারা ভোক্তারা। এদিকে আজ শনিবার থেকে রাজশাহী মহানগরীর পাঁচটি পয়েন্টে খোলাবাজারে ৪৫ টাকা কেজিদরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করতে যাচ্ছে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। এ সম্পর্কে ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ায় খুচরা কিংবা পাইকারি বাজারে পেঁয়াজ মিলছে না। প্রশাসনের বেঁধে দেয়া দরে কেউ পেঁয়াজ বিক্রি করতে চাইছে না। আড়তদাররা জানান, প্রশাসনের কড়া নজরদারির কারণে তারা বেশি দামে পেঁয়াজ আমদানি করতে পারছেন না। তারা বলছেন, প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৭০ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে। অথচ ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রির নির্দেশ দিচ্ছেন।

এ কারণে বাধ্য হয়ে পেঁয়াজের আমদানি কিংবা বিক্রি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বিক্রেতাদের অভিযোগ, বাজারে পেঁয়াজ একেবারে কম। প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৬১ টাকায় কিনতে হচ্ছে। ১৭০ টাকায় বিক্রি করলেও প্রশাসন চাপ দিচ্ছে আরও কমে বিক্রি করতে। তাই ভয়ে কেউ পেঁয়াজ বিক্রি করছে না।

কুষ্টিয়া পৌরবাজারের দুয়েকটি স্থানে ১৮০-১৯০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করতে দেখা যায়। আড়তদার শফি উদ্দিন জানান, চার বস্তায় ২৪০ কেজি পুরনো পেঁয়াজ তার আড়তে আসে। সকাল ৭টায় খুচরা বিক্রেতাদের কাছে তিনি ১৬১ টাকা কেজিদরে বিক্রি করেছেন। সকাল ১০টার দিকে একজন নির্বাহী হাকিম এসে তাকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করেন।

পেঁয়াজ কেনার চালান দেখাতে না পারায় তাকে জরিমানা করা হয়। হাকিমের তৎপরতা দেখে অনেক খুচরা বিক্রেতা পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছু একাধিক খুচরা বিক্রেতা বলেন, প্রশাসনের চাপাচাপির কারণে কেউ ঝুঁকি নিচ্ছে না। পুরনো পেঁয়াজ ১৭০ টাকা কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছিল। নতুন পেঁয়াজ ১৫০ টাকা কেজি। পেঁয়াজ আমদানিও নেই। জেলা বাজার মনিটরিং কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম বলেন, শুক্রবার বাজারে পেঁয়াজ খুবই কম ছিল। সন্ধ্যার মধ্যে বাজারে পেঁয়াজ ঢুকবে।

ধামরাই (ঢাকা) : লিফলেটে পেঁয়াজের দাম ৬০ টাকা শোভা পেলেও হাটবাজারে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে না। জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা প্রশাসন থেকে দাম নির্ধারণ করে পুরো এলাকায় লিফলেট বিতরণ ও দেয়ালে দেয়ালে পোস্টারিং করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে বিক্রেতারা দোকান ও আড়ত থেকে পেঁয়াজ সরিয়ে ফেলেছে। এ কারণে পেঁয়াজশূন্য হয়ে পড়ে ধামরাই পৌর শহরসহ উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের হাটবাজার।

ইসলামপুর কাঁচাবাজারের দোকানদার মো. মজিবর রহমান বলেন, পাইকারি বাজার থেকে ১৬০-১৮০ টাকা কেজিদরে পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে। প্রশাসনের বেঁধে দেয়া ৬০ টাকা কেজিদরে পেঁয়াজ বিক্রি করলে লোকসান হয়। লোকসান দিয়ে তো আমরা পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারব না।

পৌর মেয়র আলহাজ গোলাম কবীর মোল্লা বলেন, পেঁয়াজের মজুদ থাকতেও অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করছে। ২৫০-৩০০ টাকা কেজিদরে পেঁয়াজ বিক্রি করে তারা বাজার অস্থিতিশীল করছে। বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে স্থানীয় বাজারে পেঁয়াজের দাম ৬০ টাকা নির্ধারণ করে জনগণকে অবহিত করতে লিফলেট বিতরণ ও দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার লাগানো হয়েছে।

রাজশাহী : আজ থেকে মহানগরীর পাঁচটি পয়েন্টে টিসিবির নির্ধারিত ডিলারদের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রির কার্যক্রম শুরু হবে। খোলাবাজার থেকে একজন ভোক্তা প্রতিদিন সর্বোচ্চ এক কেজি পেঁয়াজ কিনতে পারবেন। কেজিপ্রতি খরচ পড়বে ৪৫ টাকা। শুক্রবার রাজশাহীর খুচরা বাজারে দেশি পেঁয়াজ ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

আর মিয়ানমারের পেঁয়াজ ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। টিসিবির রাজশাহী কার্যালয়ের আঞ্চলিক প্রধান প্রতাপ কুমার জানান, নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট, কোর্ট এলাকা, ভদ্রা মোড়, রেলগেট ও আমচত্বর এলাকায় প্রতিদিন পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে। অনিয়ম রোধে স্থানীয় ডিলারদের নিয়মিত মনিটরিং করবে টিসিবি। প্রতিদিন টিসিবি পাঁচ টন পেঁয়াজ সরবরাহ করবে। প্রতি পয়েন্টে এক টন করে দেয়া হবে। পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×