বুয়েটে র‌্যাগিং: হল থেকে স্থায়ী বহিষ্কার ৯ শিক্ষার্থী

২১ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা * ২৮ ডিসেম্বর থেকে পরীক্ষা শুরুর চিন্তা বুয়েটের

  ঢাবি প্রতিনিধি ২৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) এবার র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় ৯ শিক্ষার্থীকে হল থেকে স্থায়ী বহিষ্কার এবং ২১ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

আগামীতে শাস্তি পাওয়ার তালিকায় রয়েছেন আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী। আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনার পর বুয়েটে র‌্যাগিং তদন্তে গঠিত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে বুয়েট বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এর আগে ২১ নভেম্বর ২৬ শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কার এবং ৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেয়া হয়েছে। এর ফলে ডিসেম্বরের শুরুর দিকে বুয়েটে দীর্ঘদিনের অচলাবস্থা নিরসনের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, বুয়েটে র‌্যাগিং নিয়ে গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে দুটি হলের ৩০ জনের বিরুদ্ধে অপরাধের মাত্রা অনুযায়ী বিভিন্ন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে আহসানউল্লাহ হলে ১০ জন সাজা পায়। যাদের ৬ জনকে বিভিন্ন টার্মের জন্য একাডেমিক বহিষ্কার এবং হল থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়েছে।

বাকি চারজনকে সতর্ক করা হয়েছে। অর্ডিনেন্স অনুযায়ী সতর্ক করা মিনিমাম লেভেলের সাজা। ভবিষ্যতে শৃঙ্খলাপন্থী কিছু পেলে তাদেরও কঠোর সাজা দেয়া হবে।

ছাত্রকল্যাণ পরিচালক জানান, সোহরাওয়ার্দী হলে ২০ জনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে একাডেমিক সাজা এবং হল থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়েছে।

বাকি ১৭ জনকে হল থেকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার ও সতর্ক করা হয়েছে। এর বাইরে তিতুমীর হলের ঘটনায় যাদের নাম এসেছে, তাদের আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য ডাকা হয়েছিল। তখন আমাদের কাছে মনে হয়েছে, এ ঘটনায় আরও অনেকে জড়িত আছে। সেজন্য চার সদস্যের তদন্ত কমিটি হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী আগামী সপ্তাহে এই হলটির জড়িত সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হল থেকে স্থায়ী বহিষ্কারসহ বিভিন্ন মেয়াদে একাডেমিক শাস্তিপ্রাপ্ত ৯ জনের মধ্যে সোহরাওয়ার্দী হলের তিনজন হলেন- মো. মোবাশ্বের হোসেন শান্ত, এএসএম মাহাদী হাসান ও আকিব হাসান রাফিন। আহসানউল্লাহ হলের বাকি ছয়জন হলেন- সব্যসাচী দাস দিব্য, সৌমিত্র লাহিড়ী, প্লাবন চৌধুরী, নাহিদ আহমেদ, অর্ণব চৌধুরী ও মো. ফরহাদ হোসেন।

আহসানউল্লাহ হলে সতর্ক করা চার শিক্ষার্থী হলেন- মো. তাসনিম ফারহান ফাতিন, লোকমান হোসেন, শাফকাত বিন জাফর এবং তানজির রশিদ আবির। সোহরাওয়ার্দী হলে সতর্র্কীকরণ নোটিশ পাওয়া এবং বিভিন্ন মেয়াদে আবাসিক হল থেকে বহিষ্কার হওয়া ১৭ জন হলেন- কাজি গোলাম কিবরিয়া রিফাত, মো. সাকিব হাসান, মো. সাজ্জাদুর রহমান, সাকিব শাহরিয়া, শেখ আসিফুর রহমান আকাশ, মো. রাইয়ান তাহসিন, মেহেদী হাসান, তৈয়ব হোসেন, এএফএম মাহফুজুল কবির, মো. বখতিয়ার মাহবুব মুরাদ, সৈয়দ শাহরিয়ার আলম প্রত্যয়, মো. তৌফিক হাসান, মো. কুতুবুজ্জামান কাজল, মোহাম্মদ তাহমিদুল ইসলাম, ফেরদৌস হাসান ফাহিম, মো. আল-আমিন ও তাহাজিবুল ইসলাম।

এর আগে ১৪ নভেম্বর সংবাদ সম্মেলন করে তিনটি দাবি জানান শিক্ষার্থীরা; যা বাস্তবায়নে তিন সপ্তাহ সময় নেয় বুয়েট কর্তৃপক্ষ। ইতিমধ্যে শিক্ষার্থীদের প্রথম ও দ্বিতীয় দাবি পূরণ হয়েছে। বাকি রয়েছে একটি দাবি। এর ফলে ক্লাস-পরীক্ষায় ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকা বুয়েটের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী অন্তরা মাধুরী তিথি যুগান্তরকে বলেন, আমরা আগেই বলেছি দুটি দাবির পর সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষার সিডিউল দিলে আমরা তা গ্রহণ করব। সেই হিসেবে আমরা পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা হলে তা মেনে নেব। তবে অবশ্যই পরীক্ষা শুরুর সাত দিন আগে তৃতীয় দাবিটি পূরণ করতে হবে। তা না হলে আমরা পরীক্ষা বর্জন করব।

এ বিষয়ে বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, আশা করছি আগামী সপ্তাহে পুরো বিষয়টির সমাধান হবে। তৃতীয় দাবিটির বিষয়েও আগামী সপ্তাহে একটা বার্তা দিতে পারব। সার্বিক বিষয় নিয়ে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ইতিমধ্যে ভিসি স্যারের কথা হয়েছে। তারা ডিসেম্বরের ২৮ তারিখের দিকে পরীক্ষা দেয়ার কথা বলেছে। সেভাবেই আমাদের প্রস্তুতি চলছে। আশা করছি, ডিসেম্বরের শুরুর দিকেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে।

ঘটনাপ্রবাহ : বুয়েট ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত