রংপুরে ছেলে-মেয়ে স্ত্রীকে হত্যা করে আত্মহত্যার চেষ্টা

ঘাতক অটোচালক আটক

  রংপুর ব্যুরো ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ছবি: যুগান্তর

রংপুর মহানগরীর বাহার কাছনার দোলাপাড়া গ্রামে একটি বাড়ি থেকে এক অটোচালকের ছেলে-মেয়ে ও স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পারিবারিক কলহের কারণে মাদকাসক্ত অটোচালক আবদুর রাজ্জাক গলাকেটে ও শ্বাসরোধ করে তাদের হত্যা করে।

পরে তিনি নিজেও আত্মহত্যার চেষ্টা চালান বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে ঘাতককে আটক করেছে র‌্যাব।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান জানান, পারিবারিক কলহের জেরে শনিবার রাতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়।

বাহার কাছনার দোলা গ্রামের খোকন মাছুয়ার ছেলে অটোচালক আবদুর রাজ্জাক তার স্ত্রী আসফিয়া আখতার রত্নাকে (৩০) ব্লেড দিয়ে গলাকেটে এবং মেয়ে নেহা (৩) ও ছেলে নিশাতকে (১) শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

পরে তিনি ব্লেড দিয়ে নিজের গলা কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা চালান। এরপর তিন লাশের পাশে বসে তিনি অ্যাম্বুলেন্স বলে চিৎকার করতে থাকেন। প্রতিবেশীরা পুলিশ ও র‌্যাব-১৩ রংপুরকে জানায়।

র‌্যাব ঘটনাস্থলে গিয়ে সেখানে ঘাতক আবদুর রাজ্জাককে বসে থাকতে দেখে ও আটক করে। এ সময় পুলিশও হাজির হয়।

পুলিশ রোববার দুপুরে লাশের সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। পুলিশ জানায়, ঘাতক আবদুর রাজ্জাক মাদকাসক্ত।

তবে পারিবারিক কী বিষয়ে দ্বন্দ্বের কারণে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে। আবদুর রাজ্জাককে পুলিশি হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। প্রতিবেশীরা জানান, তিনি মাদকাসক্ত ছিলেন।

এ কারণে একবার স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। তবে পুনরায় তারা ঘর-সংসার করছিলেন। পুলিশ-র‌্যাব ঘটনাস্থল ঘিরে রাখে। এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে আরও কোনো রহস্য আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ঘাতক আবদুর রাজ্জাককে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে র‌্যাব।

রত্নার খালাতো বোন শাহনাজ বেগম জানান, ১০ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। তারা আগে স্টেশন পীরপুরে ভাড়া বাসায় থাকতেন। এরইমধ্যে বনিবনা না হওয়ায় রাজ্জাক স্ত্রীকে তালাক দিয়ে অন্যত্র বিয়ে করেন।

পরে তাদের মধ্যে সমঝোতা হওয়ায় রত্নাকে নিয়ে রাজ্জাক বাহার কাছনার দোলা গ্রামে বছরখানেক আগে বাড়ি করে সেখানে বসবাস শুরু করেন। গ্রামবাসী জানায়, রত্নার আগেও আরেকটি বিয়ে হয়েছিল।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হারাগাছ থানার ওসি একেএম নাজমুল কাদের জানিয়েছেন, হত্যাকাণ্ডে স্বামী একাই জড়িত বলে প্রাথমিক তদন্তে বোঝা যাচ্ছে। তবে হত্যার কারণ উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত