বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় থাই ম্যাসাজ
jugantor
বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় থাই ম্যাসাজ

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

থাইল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী ম্যাসাজ
থাইল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী ম্যাসাজ

ইউনেস্কোর সাংস্কৃতিক বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে থাইল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী ম্যাসাজ। জাতিসংঘের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বিজ্ঞান বিষয়ক সংস্থাটির সর্বশেষ তালিকায় উঠেছে ‘থাই ম্যাসাজে’র নাম।

ব্যাংককের বিলাসবহুল স্পা থেকে শুরু করে ফুকেত-এর ফুটপাত পর্যন্ত থাইল্যান্ডের সর্বত্র দারুণ জনপ্রিয় দুই হাজার বছরের পুরনো এই প্রথা।

কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতায় বৃহস্পতিবার এক বৈঠকে বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ‘থাই ম্যাসাজ’-এর নাম ঘোষণা করে ইউনেস্কো। বৈঠকে উপস্থিত থাইল্যান্ডের প্রতিনিধি বলেন, এর ফলে নুয়াড থাই নামে পরিচিত এই ম্যাসাজের প্রচলন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়বে।

ভারতে উৎপত্তি হলেও থাইল্যান্ডে ঐতিহ্যবাহী এই ম্যাসাজের নিয়মিত চর্চা হয়ে আসছে। গত শতাব্দীর ’৬০-এর দশকে এটি বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করে।

থাইল্যান্ডে অনেকে বংশপরম্পরায় এই ম্যাসাজের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। বর্তমানে বিশ্বের ১৪৫টি দেশে থাই ম্যাসাজের প্রচলন রয়েছে।

এই বিশেষ ধরনের ম্যাসাজে আঙুল, কনুই, হাঁটু ও পায়ের সাহায্যে ডিপ স্ট্রেচিং ও বডি ট্যুইস্টিং করা হয়। এর মাধ্যমে শরীরের বিভিন্ন আকুপাংচার পয়েন্টে চাপ পড়ে, যাতে শরীরের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়। মাংসপেশির যন্ত্রণা সারাতে এই ম্যাসাজ খুবই উপকারী। বিবিসি।

বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় থাই ম্যাসাজ

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
থাইল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী ম্যাসাজ
থাইল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী ম্যাসাজ

ইউনেস্কোর সাংস্কৃতিক বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে থাইল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী ম্যাসাজ। জাতিসংঘের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বিজ্ঞান বিষয়ক সংস্থাটির সর্বশেষ তালিকায় উঠেছে ‘থাই ম্যাসাজে’র নাম।

ব্যাংককের বিলাসবহুল স্পা থেকে শুরু করে ফুকেত-এর ফুটপাত পর্যন্ত থাইল্যান্ডের সর্বত্র দারুণ জনপ্রিয় দুই হাজার বছরের পুরনো এই প্রথা।

কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতায় বৃহস্পতিবার এক বৈঠকে বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ‘থাই ম্যাসাজ’-এর নাম ঘোষণা করে ইউনেস্কো। বৈঠকে উপস্থিত থাইল্যান্ডের প্রতিনিধি বলেন, এর ফলে নুয়াড থাই নামে পরিচিত এই ম্যাসাজের প্রচলন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়বে।

ভারতে উৎপত্তি হলেও থাইল্যান্ডে ঐতিহ্যবাহী এই ম্যাসাজের নিয়মিত চর্চা হয়ে আসছে। গত শতাব্দীর ’৬০-এর দশকে এটি বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করে।

থাইল্যান্ডে অনেকে বংশপরম্পরায় এই ম্যাসাজের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। বর্তমানে বিশ্বের ১৪৫টি দেশে থাই ম্যাসাজের প্রচলন রয়েছে।

এই বিশেষ ধরনের ম্যাসাজে আঙুল, কনুই, হাঁটু ও পায়ের সাহায্যে ডিপ স্ট্রেচিং ও বডি ট্যুইস্টিং করা হয়। এর মাধ্যমে শরীরের বিভিন্ন আকুপাংচার পয়েন্টে চাপ পড়ে, যাতে শরীরের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়। মাংসপেশির যন্ত্রণা সারাতে এই ম্যাসাজ খুবই উপকারী। বিবিসি।