বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর কাউন্টডাউন শুরু ১০ জানুয়ারি
jugantor
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর কাউন্টডাউন শুরু ১০ জানুয়ারি

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০২ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
ঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ফাইল ছবি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর কাউন্টডাউন শুরু হচ্ছে আগামী ১০ জানুয়ারি। ওই দিন ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা বন্ধ রাখার অনুরোধ জানানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

বুধবার সচিবালয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সুপারিশের আলোকে গঠিত নিরাপত্তা উপকমিটির সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ১ জানুয়ারি শুরু হয়ে চলবে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ কাউন্টডাউন উদ্বোধনের দিন যেসব অনুষ্ঠান হবে সেসবের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে সেনাবাহিনী। তাদের সহযোগিতায় থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী- ১২ সিটি কর্পোরেশনের ২৮টি পয়েন্ট, বিভাগীয় শহর, ৫৩টি জেলা, ২টি উপজেলা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ মোট ৮২টি স্পটে কাউন্টডাউন ঘড়ি বসানো হবে। এসব স্থানে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হবে। এছাড়া কঠোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্থানীয় জনগণ, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদসহ প্রশাসন ও নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মীরা বিষয়টি দেখাশোনা করবেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন হতে যাচ্ছে। তার জন্মশতবার্ষিকী ১৭ মার্চ। এর আগে কাউন্টডাউনের একটি অনুষ্ঠান করতে যাচ্ছি। ১০ জানুয়ারি প্যারেড গ্রাউন্ডে বিকাল ৩টায় মুজিববর্ষের কাউন্টডাউন অনুষ্ঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করবেন। এএফডি (সশস্ত্রবাহিনী বিভাগ) নিরাপত্তা সমন্বয় করবে। অনুষ্ঠানে দুই হাজার আমন্ত্রিত অতিথি ও ১০ হাজার দর্শক আসবেন। দর্শকরা যারা যাবেন, তাদের মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে নাম রেজিস্ট্রেশন করে যেতে হবে। অনুষ্ঠান ঘিরে ১০ জানুয়ারি বাণিজ্য মেলা একদিনের জন্য বন্ধ রাখার অনুরোধ জানাব। অনুষ্ঠান যাতে বিভিন্ন স্থান থেকে জনসাধারণ দেখতে পারেন এজন্য টিভি স্ক্রিন বসানো হবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এসব অনুষ্ঠানে সম্পৃক্ত থাকবেন। অনুষ্ঠানটি উদযাপন করা হবে বঙ্গবন্ধু যেখানে যেভাবে প্লেনে করে এসেছিলেন, ঠিক সেখানে সেভাবেই। সেখানে বঙ্গবন্ধু যে রকম প্লেনে করে এসেছিলেন, সে রকম একটি প্লেনও রাখা হবে। সেদিন সারা দেশেই অনুষ্ঠান হবে। যারা অনুষ্ঠান করতে আগ্রহী, তাদের মুখ্য সমন্বয়কের অনুমতি নিয়ে করতে হবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এ উপলক্ষে আজকের এ সভাটি প্রথম। কাউন্টডাউন অনুষ্ঠানটি যাতে নির্বিঘ্ন, নিরাপদ হয় সেজন্যই এ সভা। আগামীতে আরও সভা হবে। মূল অনুষ্ঠানটি হবে ১৭ মার্চ, সেখানে কয়েকটি দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের আসার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল, সেরকম কয়েকজনেরও আসার সম্ভাবনা আছে। পরবর্তীকালে আমাদের মুখ্য সমন্বয়ক এ বিষয়ে জানিয়ে দেবেন। নিরাপত্তার স্বার্থে যখন প্রয়োজন হবে, তখনই সভা করব। এ সময় জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির মুখ্য সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর কাউন্টডাউন শুরু ১০ জানুয়ারি

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০২ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
ঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
ঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ফাইল ছবি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর কাউন্টডাউন শুরু হচ্ছে আগামী ১০ জানুয়ারি। ওই দিন ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা বন্ধ রাখার অনুরোধ জানানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

বুধবার সচিবালয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সুপারিশের আলোকে গঠিত নিরাপত্তা উপকমিটির সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ১ জানুয়ারি শুরু হয়ে চলবে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ কাউন্টডাউন উদ্বোধনের দিন যেসব অনুষ্ঠান হবে সেসবের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে সেনাবাহিনী। তাদের সহযোগিতায় থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী- ১২ সিটি কর্পোরেশনের ২৮টি পয়েন্ট, বিভাগীয় শহর, ৫৩টি জেলা, ২টি উপজেলা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ মোট ৮২টি স্পটে কাউন্টডাউন ঘড়ি বসানো হবে। এসব স্থানে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হবে। এছাড়া কঠোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্থানীয় জনগণ, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদসহ প্রশাসন ও নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মীরা বিষয়টি দেখাশোনা করবেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন হতে যাচ্ছে। তার জন্মশতবার্ষিকী ১৭ মার্চ। এর আগে কাউন্টডাউনের একটি অনুষ্ঠান করতে যাচ্ছি। ১০ জানুয়ারি প্যারেড গ্রাউন্ডে বিকাল ৩টায় মুজিববর্ষের কাউন্টডাউন অনুষ্ঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করবেন। এএফডি (সশস্ত্রবাহিনী বিভাগ) নিরাপত্তা সমন্বয় করবে। অনুষ্ঠানে দুই হাজার আমন্ত্রিত অতিথি ও ১০ হাজার দর্শক আসবেন। দর্শকরা যারা যাবেন, তাদের মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে নাম রেজিস্ট্রেশন করে যেতে হবে। অনুষ্ঠান ঘিরে ১০ জানুয়ারি বাণিজ্য মেলা একদিনের জন্য বন্ধ রাখার অনুরোধ জানাব। অনুষ্ঠান যাতে বিভিন্ন স্থান থেকে জনসাধারণ দেখতে পারেন এজন্য টিভি স্ক্রিন বসানো হবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এসব অনুষ্ঠানে সম্পৃক্ত থাকবেন। অনুষ্ঠানটি উদযাপন করা হবে বঙ্গবন্ধু যেখানে যেভাবে প্লেনে করে এসেছিলেন, ঠিক সেখানে সেভাবেই। সেখানে বঙ্গবন্ধু যে রকম প্লেনে করে এসেছিলেন, সে রকম একটি প্লেনও রাখা হবে। সেদিন সারা দেশেই অনুষ্ঠান হবে। যারা অনুষ্ঠান করতে আগ্রহী, তাদের মুখ্য সমন্বয়কের অনুমতি নিয়ে করতে হবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এ উপলক্ষে আজকের এ সভাটি প্রথম। কাউন্টডাউন অনুষ্ঠানটি যাতে নির্বিঘ্ন, নিরাপদ হয় সেজন্যই এ সভা। আগামীতে আরও সভা হবে। মূল অনুষ্ঠানটি হবে ১৭ মার্চ, সেখানে কয়েকটি দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের আসার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল, সেরকম কয়েকজনেরও আসার সম্ভাবনা আছে। পরবর্তীকালে আমাদের মুখ্য সমন্বয়ক এ বিষয়ে জানিয়ে দেবেন। নিরাপত্তার স্বার্থে যখন প্রয়োজন হবে, তখনই সভা করব। এ সময় জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির মুখ্য সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।