শিশু আরশাদুলের লাশ উদ্ধার

এখনও নিখোঁজ আশামনি

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সবুজবাগের বাসাবোর মান্ডা খাল থেকে সাড়ে চার বছরের শিশু আরশাদুলের মরদেহ উদ্ধার করেছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। তবে কদমতলীতে খালের পানিতে তলিয়ে যাওয়া সাড়ে ৫ বছরের শিশু আশামনি ওরফে তোহামনি এখনও নিখোঁজ রয়েছে। তাকে উদ্ধারে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস।

সবুজবাগ থানার এসআই সোহেল সারোয়ার যুগান্তরকে বলেন, প্রায় ১৮ ঘণ্টা পর সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় মান্ডা খাল থেকে শিশু আরশাদুলের লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। উদ্ধারের পর ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরশাদুলের বাবা হাসমত আলী পেশায় রিকশাচালক। মা মমতা বেগম বাসা বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করেন। তাদের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের ধুবাউরায়। মাণ্ডা খাল পাড়েই তিন সন্তান নিয়ে একটি ঘরে তারা থাকতেন। হাসমত আলী বলেন, রোববার বিকাল ৩টার দিকে খালের পাশে খোলা জায়গায় ভাইয়ের সঙ্গে খেলছিল আরশাদুল।

কাগজের প্লেন বানিয়ে ওড়ানোর চেষ্টা করছিল। এক পর্যায়ে কাগজের প্লেনটি গিয়ে খালে পড়ে। সেটি কুড়াতে গিয়েই পানিতে ডুবে যায় আরশাদুল। স্থানীয় যুবক কামাল হোসেন বলেন, আরশাদুল খালে পড়ে যাওয়ার খবর পেয়ে স্থানীয়রা প্রথমে খালের পানিতে নেমে খোঁজাখুঁজি করেন। না পেয়ে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়া হয়।

ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা এসে তল্লাশি চালান। না পেয়ে রাত সাড়ে ১০টায় তারা অভিযান স্থগিত করেন। ঘটনাস্থলে রাতে অবস্থান করেন ফায়ার সার্ভিসের দুই কর্মী। সোমবার সকাল ৯টায় ডুবুরি দলটি উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। তারা খাল থেকে আরশাদুলের লাশ উদ্ধার করে। এদিকে শনিবার বিকালে কদমতলীর আহমদনগর এলাকার খালে পড়ে যাওয়া আশামনি ওরফে তোহামনির লাশ এখনও উদ্ধার করতে পারেনি ফায়ার সার্ভিসের লোকজন।

শিশুটি খালে ডুবে যাওয়ার খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। ফায়ার সার্ভিসের তিন জন ডুবুরি রোববার গভীর রাত পর্যন্ত তল্লাশি করে শিশুকে উদ্ধার করতে পারেনি। সে এখনও নিখোঁজ রয়েছে।

ফারুক হোসেন নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, মেয়ে শিশুটি বল আনতে খালের কাছে গেলে পড়ে যায়। খালটি কাদা ও ময়লা-আবর্জনায় ভরা। এ কারণে শিশুটি তলিয়ে যাওয়ার পর সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। আশামনির বাবার নাম এরশাদ।

বাসা মিরাজনগরের পাশের মোহাম্মদনগর কালভার্ট এলাকায়। ঘটনাস্থলের পাশেই শিশুটির বাবার একটি কনফেকশনারি রয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার রাসেল শিকদার সোমবার সন্ধ্যায় জানান, উদ্ধার তৎপরতা ৬টার পরে স্থগিত করা হয়েছে। আগামীকাল (আজ) সকাল থেকে উদ্ধার কাজ আবার শুরু হবে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত