এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা

চান্দিনায় নকল করতে না দেয়ায় হামলা ভাংচুর

বিভিন্ন স্থানে বহিষ্কার

  যুগান্তর ডেস্ক ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চান্দিনায় নকল করতে না দেয়ায় হামলা ভাংচুর

কুমিল্লার চান্দিনায় মঙ্গলবার এসএসসি পরীক্ষায় নকল করতে না দেয়ায় শিক্ষকদের ওপর হামলা ও ভাংচুর করা হয়েছে। উপজেলার মহিচাইল জোবেদা মমতাজ উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যু কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

এ ছাড়া পরীক্ষায় শৃঙ্খলা ভঙ্গ, নিয়মের তোয়াক্কা না করা, নকল কারা ও নকলে সহায়তা করা, নকল সরবরাহ করার দায়ে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি, শিক্ষক, পরীক্ষার্থীদের বহিষ্কার, অর্থদণ্ড, কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। যুগান্তর প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

চান্দিনা (কুমিল্লা) : পরীক্ষায় নকল করতে না দেয়ায় শিক্ষকদের ওপর হামলা ও বিদ্যালয়ের জানালার কাচ, ফুলের টব ভাংচুর করে শিক্ষকদের অবরুদ্ধ করে রাখে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। উপজেলার মহিচাইল জোবেদা মমতাজ উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যু কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। একই সময় দোল্লাই নবাবপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যু কেন্দ্রে এক শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করায় হামলার ঘটনা ঘটে। পরে চান্দিনা থানা পুলিশ ওই ২টি কেন্দ্রে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ছাড়া চান্দিনা আল-আমিন ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে দুই ও দোল্লাই নবাবপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এক শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়।

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) : এসএসসি পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদের অবৈধভাবে সহায়তা করাসহ বিভিন্ন অভিযোগে দুই শিক্ষককে পরীক্ষার যাবতীয় কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। কেন্দুয়া উপজেলা সদরের সায়মা শাজাহান একাডেমি ভেন্যু কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এর আগে নির্বাহী হাকিম ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল-ইমরান রুহুল ইসলামের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত তানিম আহমেদ নামে এক যুবককে দু’বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) : দায়িত্বে অবহেলা ও হলের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে না পারায় দুটি কেন্দ্র থেকে ৪ শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়েছে। টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ঘাটাইলের সাগরদীঘি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র ও ধলাপাড়া এসইউপি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৪ শিক্ষককে বহিষ্কার করে অব্যাহতি দেয়া হয়।

চাঁদপুর : মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের ঘিলাতলী সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষায় নকল সরবরাহের দায়ে যুবক ইসমাইলকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক ওই যুবককে দু’বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও একশ’ টাকা জরিমানা করেন।

নড়াইল ও মহম্মদপুর : কালিয়ায় পরীক্ষায় বিঘ্ন সৃষ্টির অপরাধে এক শিক্ষকসহ চারজনকে এক মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। কালিয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজিবুল আলম এ আদেশ দেন। কালিয়া উপজেলার নড়াগাতী থানার বড়দিয়া মুন্সি মানিক মিয়া ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

এ ছাড়া মহম্মদপুরে অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে এক শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বাবুখালী আফতাব উদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মো. রাসেল তাকে বহিষ্কার করেন।

ভেদরগঞ্জ (শরীয়তপুর) : এসএসসি পরীক্ষায় নকলে সহযোগিতার দায়ে দুই শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়েছে। সখিপুরের হাজী শরীয়ত উল্লাহ কলেজ ভেন্যু কেন্দ্রে দায়িত্ব পালনকালে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শঙ্কর চন্দ্র বৈদ্যের নির্দেশে তাদের বহিষ্কার করা হয়।

হবিগঞ্জ : বানিয়াচংয়ে দাখিল পরীক্ষার হলে নকল সরবরাহ করার অপরাধে এক যুবককে ৭ দিনের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে পরীক্ষা কেন্দ্রে অসদুপায় অবলম্বন করায় আরও এক শিক্ষার্থী ও এক শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়েছে। দণ্ডিত যুবক আজমিরীগঞ্জ উপজেলার মাহতাবপুর গ্রামের এনামুল হক চৌধুরীর ছেলে আকরাম হোসেন।

কালকিনি ও শিবচর (মাদারীপুর) : কালকিনিতে এসএসসি পরীক্ষায় নকল সরবরাহের দায়ে সৈয়দ সাকিল নামে এক তরুণকে আটক করেছে পুলিশ। সে উপজেলার ডাসার থানার গোপালপুরের পূর্ব পুয়ালী গ্রামের সৈয়দ লিয়াকতের ছেলে। কালকিনি সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলামের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৩ মাসের জেল দেয়া হয়।

এ ছাড়া শিবচরে নন্দকুমার ইন্সটিটিউশন কেন্দ্রে ক্যালকুলেটর নিয়ে ঢুকতে বাধা দেয়া হয়। শিক্ষকরা অবৈধভাবে ক্যালকুলেটর নিয়ে পরীক্ষার হলে প্রবেশে বাধা দেয়ায় পরীক্ষা শেষে শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ মিছিল করে। এ ব্যাপারে অভিভাবকদের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) : উল্লাপাড়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে দাখিল পরীক্ষায় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে ৫ শিক্ষককে অর্থদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আরিফুজ্জামান এ দণ্ড দেন।

কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) : পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে গিয়ে আজিজুল খান নামে এক তরুণকে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও কোটালীপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম মাহফুজুর রহমান। সরকারি কোটালীপাড়া ইউনিয়ন ইন্সটিটিউশনে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। আর প্রকৃত ছাত্র আজিজুল হাওলাদারকে পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হয়।

জুড়ী (মৌলভীবাজার) : আতিকুল ইসলাম নামে এক শিক্ষককে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ঘটনাটি উপজেলার হজরত শাহখাকী (রহ.) ইসলামিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে ঘটেছে।

রাজবাড়ী ও বালিয়াকান্দি : নকলের দায়ে ৫ পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বালিয়াকান্দি সরকারি কলেজ কেন্দ্রে দাখিলের গণিত বিষয়ের পরীক্ষা চলাকালে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসান সোহাগ তাদের বহিষ্কার করেন।

ভুরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) : দুটি কেন্দ্রে সরকারি নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে নিজেদের ইচ্ছেমাফিক কেন্দ্র পরিচালনা করছেন কেন্দ্র সচিবরা। বিষয়ভিত্তিক শিক্ষককক্ষ পরিদর্শন করায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার দায়িত্বরত ওই দুই শিক্ষককে বহিষ্কার করেছেন। কেন্দ্র দুটি হল ভুরুঙ্গামারী সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও ভুরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়।

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) : বাদুরা শেখ ফজিলাতুননেছা কামিল মাদ্রাসা থেকে কেন্দ্র কমিটি সদস্যসহ তিনজন ও পৌর এলাকার টিকিকাটা আ. ওয়াহাবিয়া মহিলা সিনিয়র মাদ্রাসা ভেন্যু কেন্দ্র থেকে দু’জনকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) রিপন বিশ্বাস অব্যাহতি প্রদান করেন।

ঘটনাপ্রবাহ : এসএসসি পরীক্ষা-২০২০

'কোভিড-১৯' সর্বশেষ আপডেট

# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৪২৪ ৩৩ ২৭
বিশ্ব ১৬,০৪,৫৩৫ ৩,৫৬,৬৬০ ৯৫,৭৩৪
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত