ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে আবারও রকেট হামলা

আরব সাগরে দেড়শ’ ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র জব্দের দাবি যুক্তরাষ্ট্রের

  যুগান্তর ডেস্ক ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাকেট হামলা
রাকেট হামলা।ফাইল ছবি

ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় কিরকুক প্রদেশের একটি মার্কিন সেনাঘাঁটিতে রকেট হামলা চালানো হয়েছে। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে যুক্তরাষ্ট্রের কে-ওয়ান ঘাঁটিতে এ হামলা হয়। তবে তাৎক্ষণিক হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। কোনো দেশ বা গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করেনি। অপরদিকে আরব সাগরে ইরানের দেড়শ’ ক্ষেপণাস্ত্র জব্দ করার দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এএফপি, রয়টার্স।

সেনাঘাঁটিতে হামলা : ইরাকি ও মার্কিন নিরাপত্তা সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়েছে, ২৭ ডিসেম্বর কে-ওয়ান ঘাঁটিতে অন্তত ৩০টি রকেট হামলা হয়েছিল। এতে এক মার্কিন ঠিকাদার নিহত হন। এ ঘটনার জন্য ইরান ঘনিষ্ঠ ইরাকি সামরিক গোষ্ঠী কাতায়িব হিজবুল্লাহকে দায়ী করে যুক্তরাষ্ট্র। পরে তাদের পাল্টা হামলায় প্রাণ হারান অন্তত ২৫ হিজবুল্লাহ সেনা। এর কয়েকদিন পর ৩ জানুয়ারি বাগদাদ বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়ে ইরানের কুদস ফোর্সের প্রভাবশালী জেনারেল কাসেম সোলাইমানি ও কাতাইব হিজবুল্লাহর সহ-প্রতিষ্ঠাতা আবু মাহদি আল মুহান্দিসকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র। এ হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে ইরাকের দুটি মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। সোলাইমানির মৃত্যুতে ইরানে ৪০ দিনের শোক পালন শেষে বৃহস্পতিবার কে-ওয়ান ঘাঁটিতে ফের রকেট হামলার ঘটনা ঘটল।

দেড়শ’ ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র জব্দ : দেড়শ’ ট্যাংকবিধ্বংসী গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র ও স্থল থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রসহ ইরানের উৎপাদিত বিপুল পরিমাণ অস্ত্র জব্দ করার দাবি করেছে মার্কিন নৌবাহিনী। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র জানায়, রোববার আরব সাগরে একটি ঐতিহ্যবাহী নৌযান ডোয়ায় করে গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র ক্রুজার নোরম্যান্ডি নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। সেগুলো জব্দ করা হয়েছে। জব্দ ট্যাংকবিধ্বংসী গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্রগুলো রুশ প্রযুক্তিতে তৈরি। যার মধ্যে তিনটি ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রও রয়েছে। নভেম্বরেও ইরানি অস্ত্র ভাণ্ডার জব্দ করার দাবি করেছিল মার্কিন সেনাবাহিনী। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যুক্তরাষ্ট্র ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের জন্য সরবরাহ করা ইরানি অস্ত্র জব্দ করছে। জাতিসংঘের প্রস্তাব অনুসারে, দেশের বাইরে অস্ত্র সরবরাহ, বিক্রি ও হস্তান্তর করতে পারবে না ইরান। ইয়েমেনে হুতি নেতাদের অস্ত্র সরবরাহেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। কারণ হুতি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, বিদেশি বিশেষজ্ঞ ও ইরান থেকে পাচার করা যন্ত্রাংশ দিয়ে তারা বিশাল অস্ত্র ভাণ্ডার গড়ে তুলেছে।

ঘটনাপ্রবাহ : ইরানি শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×