নতুন করোনাভাইরাস, তিনজন পুরোপুরি সুস্থ, যে কোনো সময় ছাড়পত্র
jugantor
নতুন করোনাভাইরাস, তিনজন পুরোপুরি সুস্থ, যে কোনো সময় ছাড়পত্র
ভারতের সঙ্গে ফ্লাইট বাতিল বিমানসহ চার সংস্থার * আজ থেকে ভারতগামী সব রুটে বাস বন্ধ * প্রবাসীদের এই মুহূর্তে দেশে না আসার পরামর্শ * স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ ও সমাবেশ স্থগিত * ক্লাসরুমেই অ্যাসেম্বলি করার নির্দেশনা * জুমার খুতবায় করণীয় নিয়ে আলোচনার আহ্বান

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৩ মার্চ ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ফাইল ছবি

দেশে নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া তিনজন এখন পুরোপুরি সুস্থ। তাদের যে কোনো সময় ছাড়পত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, দেশে নতুন কোনো করোনা রোগী নেই। এদিকে নতুন এ ভাইরাস নিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ভারতের সব ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমানসহ দেশীয় চার সংস্থা।

আজ থেকে দেশটির সঙ্গে সব রুটে বাস চলাচলও বন্ধ হয়ে যাবে। প্রবাসীদের এই মুহূর্তে দেশে না আসার পরামর্শ দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে নানা সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণিকক্ষেই প্রাত্যহিক সমাবেশ (অ্যাসেম্বলি) করার নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর।

জেলা-উপজেলায় স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ ও সমাবেশ স্থগিত করা হয়েছে। আজ জুমার খুতবায় করণীয় নিয়ে আলোচনার জন্য ইমামদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। এ ছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে করোনা প্রতিরোধে আলোচনা সভা ও সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, দেশে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগী পাওয়া যায়নি। পাঁচ দিন আগে যে তিনজনকে শনাক্ত করা হয়েছিল, তারা এখন পুরোপুরি সুস্থ। যে কোনো সময় তাদের ছাড়পত্র দেয়া হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুসারে দু’বার পরীক্ষায় তাদের শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।

মন্ত্রী বলেন, স্ক্যানার দিয়ে করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয় না। এই মেশিন দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা ডিটেক্ট করা হয়। কারও তাপমাত্রা বেশি পাওয়া গেলে তাকে আলাদা করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। বর্তমানে মন্ত্রণালয়ের কাছে মোট দশটি স্ক্যানার আছে। মন্ত্রী বলেন, যেসব জায়গায় স্ক্যানার স্থাপন করা হয়েছে এই মেশিনগুলো (সামিটের দেয়া) সেখানে ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে এবং নতুন স্থানেও স্থাপন করা হবে।

করোনাভাইরাস নিয়ে তিনটি কমিটি কাজ করছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, উপজেলা-ইউনিয়ন পর্যায়ে বিদেশ থেকে কেউ এলে তাদের শনাক্ত করে আলাদা করা হবে। করোনা শনাক্ত ও প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে বিদেশ থেকে আসা সবাইকেই থার্মাল স্ক্যানারের মধ্য দিয়ে আসতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, যারা বিদেশ থেকে আসছেন তাদের হোম কোয়ারেন্টিনের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি। তাদের নিজ উদ্যোগে হোম কোয়ারেন্টিনের পরামর্শ দিচ্ছি, অনুরোধ জানাচ্ছি। মানুষ এখন অনেক সচেতন। বিদেশ থেকে কেউ এলে তারা, তাদের আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশীরাও আমাদের হটলাইনে ফোন করে পরামর্শ চাচ্ছেন।

করোনা মোকাবেলায় সরকার স্কুলসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কথা ভাবছে কি না- এমন প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, শুধু স্কুলগুলো নয়, দেশের বড় বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠান বা কারখানাগুলোয় যে বিপুল পরিমাণ শ্রমিক কাজ করে তাদের বিষয়েও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ভাবছে।

স্কুলসহ সব জায়গায় হ্যান্ড স্যানিটেশন করার জন্য বলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয় নিয়ে বৈঠক করে স্ব স্ব সংস্থাকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। তবে সাবান দিয়ে হাত ধুলেও হ্যান্ড স্যানিটেশন হয়। এর আগে সামিট গ্রুপের পক্ষ থেকে পাঁচটি থার্মাল স্ক্যানার স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় সামিট গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. লতিফ খান, গ্রুপের পরিচালক আজিজা আজিজ খান, ফরিদা খান ও সালমান খান উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের সব ফ্লাইট বাতিল : করোনাভাইরাসের কারণে আজ থেকে ভারতের সব ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্সসহ দেশীয় ৪ বিমান সংস্থা। ১৩ মার্চ থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত অন্যান্য দেশের নাগরিকদের মতো বাংলাদেশিদেরও ভারতে প্রবেশের জন্য ভিসা দেয়া বন্ধ করেছেন দেশটির সরকার।

তবে তারা কূটনৈতিক, অফিশিয়াল, রাষ্ট্রপুঞ্জ ও আন্তর্জাতিক সংস্থাসহ অন্য কয়েকটি ভিসার ক্ষেত্রে ছাড় দেবে। এ অবস্থায় যাত্রী কমে যাওয়ায় বাংলাদেশ থেকে ভারতে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ করতে যাচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আজ শুক্রবার থেকে বিমানের কোনো ফ্লাইট ভারতে যাবে না।

একই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশের ৩টি বেসরকারি বিমান সংস্থা নভোএয়ার, রিজেন্ট এয়ারওয়েজ ও ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। দেশীয় ৪টি এয়ারলাইন্স ভারতে প্রতি সপ্তাহে মোট ৩৭টি ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে। এর মধ্যে বিমান চলাচল করে ভারতের কলকাতা ও দিল্লি রুটে। ইউএস-বাংলার ফ্লাইট রয়েছে কলকাতা ও চেন্নাইয়ে। নভোএয়ারের ফ্লাইট রয়েছে কলকাতা রুটে।

বিমানের উপমহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকার বলেন, কলকাতায় প্রতিদিন দুটি করে বিমানের ফ্লাইট রয়েছে। দিল্লিতেও প্রতিদিন একটি করে ফ্লাইট ছিল। তবে করোনাভাইরাসের কারণে কয়েক দিন ধরে ঢাকা-দিল্লি রুটে প্রতি সপ্তাহে তিনটি করে ফ্লাইট চলানো হচ্ছিল।

নভোএয়ারের সিনিয়র ম্যানেজার (মার্কেটিং অ্যান্ড সেলস) একেএম মাহফুজুল আলম বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে নভোএয়ারের ফ্লাইট যাত্রী ছাড়াই কলকাতায় যাবে। সেখান থেকে ফিরতি যাত্রীদের আনা হবে। তবে ১৪ মার্চ থেকে তাদের কলকাতা ফ্লাইট পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাবে।

ঢাকা থেকে চেন্নাই ও কলকাতায় প্রতি সপ্তাহে ১৩টি ফ্লাইট রয়েছে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের। তবে ১৫ মার্চ পর্যন্ত ঢাকা-চেন্নাই রুটে এবং ১৬ মার্চ পর্যন্ত ঢাকা-কলকাতা রুটে কেবল ফিরতি যাত্রীদের আনতে ফ্লাইট চালাবে তারা। ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম বলেন, কাল থেকে ভারতীয় ছাড়া অন্য কোনো দেশের যাত্রীদের কলকাতা ও চেন্নাইয়ে নেয়া হবে না।

এরপর থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইউএস বাংলার ভারতের ফ্লাইট বন্ধ থাকবে। রিজেন্ট এয়ারওয়েজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আসিফ বলেন, আমাদের দেশে যেসব ভারতীয় আছেন এবং ভারতে যেসব বাংলাদেশি আছেন, তাদের ঢাকায় ফেরাতে আমরা কয়েকদিন ফ্লাইট চালানোর কথা জানিয়েছি ভারতকে। তারা অনুমতি দিলে কয়েকদিন এসব ফ্লাইট চলবে, এরপর বন্ধ থাকবে।

ভারতের সঙ্গে বাস চলাচল বন্ধ : করোনাভাইরাসের কারণে ভারতের কলকাতাসহ বিভিন্ন রাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের বাস চলাচল আজ থেকে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার রাতে যেসব গাড়ি কলকাতার উদ্দেশে রওনা হয়েছে, সেগুলোর যাত্রীরা দেশটিতে ঢোকার পর স্থলবন্দরগুলোর ইমিগ্রেশনও বন্ধ করে দেবে দেশটি।

এ কারণে ঢাকা-কলকাতা, ঢাকা-শিলিগুড়িসহ অন্যান্য রুটের বাসও বন্ধ হয়ে যাবে। বিষয়টি নিশ্চিত করে শ্যামলী এনআর ট্রাভেলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শুভঙ্কর ঘোষ রাকেশ যুগান্তরকে বলেন, বৃহস্পতিবার সর্বশেষ রাত ১১টায় যে গাড়িটি ভারতের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে, সেটি প্রবেশের পর দেশটির ইমিগ্রেশন বন্ধ হয়ে যাবে। ভারতের ফরেন অ্যাফেয়ার্স থেকে সব ধরনের ভিসা সাসপেন্ড করায় আমরাও কলকাতা ও শিলিগুড়ির গাড়ি বন্ধ করে দিয়েছি।

ক্লাসরুমেই অ্যাসেম্বলি করার নির্দেশনা : শ্রেণিকক্ষেই প্রাত্যহিক সমাবেশ (অ্যাসেম্বলি) করার নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি)। শিক্ষার্থীরা যার যার আসনে থাকবে। সেখানে দাঁড়িয়ে যথানিয়মে গাইবে জাতীয় সংগীত।

এছাড়া খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ জনসমাগম হয় এমন অনুষ্ঠানের সূচি পুনর্বিন্যাস করতেও বলা হয়েছে। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রকোপের পরিপ্রেক্ষিতে সংস্থাটি দেশের সব মাধ্যমিক স্কুল এবং কলেজেকে এই নির্দেশ দিয়েছে। মাউশির অধীন সব অফিস ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেয়া হয়।

প্রবাসীদের এই মুহূর্তে দেশে না আসার পরামর্শ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর : বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করা প্রবাসী বাংলাদেশিদের তাড়াহুড়ো করে এই মুহূর্তেই ফিরে না আসার পরামর্শ দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। যে যেই দেশে আছেন, সেই দেশের নিয়ম-কানুন ও পদক্ষেপ অনুসরণ করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

তবে অধিকতর করোনা আক্রান্ত দেশগুলো থেকে কোনো প্রবাসী বাংলাদেশে এলে তাকে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে বলেও সতর্ক করে দেন মন্ত্রী। বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় মধ্যপ্রাচ্যের পাঁচ দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, যেসব প্রবাসী এখন বাংলাদেশে অবস্থান করছেন তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হলেও তা বাড়ানো হবে। আপাতত প্রবাসীদের দেশেই অবস্থান করতে বলেন মন্ত্রী। বৈঠকে বাংলাদেশে নিযুক্ত মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব, কাতার, কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইরাকের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। এ ছাড়াও প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমেদ এবং স্বাস্থ্য, বিমান ও প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব বৈঠকে অংশ নেন।

ড. মোমেন বলেন, সৌদি আরবের প্রতিনিধি বৈঠকে আমাদের জানিয়েছেন, ওই দেশে আপাতত ওমরা ভিসা দেয়া স্থগিত। কাতার জানিয়েছে, তারা ১৪টি দেশের বিমান বন্ধ করেছে। বাংলাদেশের প্রবাসীরা ওই দেশে কিছুদিন পর যেতে পারবেন। তাদেরও ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হবে।

ভিসা ও ওয়ার্ক পারমিট পেতে বাংলাদেশিদের কোনো সমস্যার মুখে পড়তে হবে না। এমনকি সে দেশে যারা নতুন কাজে যাচ্ছেন তারা পরে গেলেও কোনো ক্ষতি হবে না। কুয়েত জানিয়েছে, আপাতত সব দেশের সব প্রকার ফ্লাইট বন্ধ করেছে তারা। আমাদের দেশে যেসব প্রবাসী এসেছেন তারা যাওয়ার সময় কোনো সমস্যা হবে না। আর সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইরাক সব সময় আমাদের জন্য খোলা আছে।

তিনি বলেন, প্রবাসীরা এখন সৌদি ফিরে না গেলেও দুশ্চিন্তার কারণ নেই, পরে গিয়েও কাজে যোগ দিতে পারবেন। তবে তাদের সৌদিতে ১৫ দিন পর্যবেক্ষণে রাখার পর কাজে যোগ দিতে দেয়া হবে। ঢাকা থেকে সরাসরি সৌদির বিমানে যেতে হবে। কোথাও ট্রানজিট নিলে সমস্যা হতে পারে।

স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ-সমাবেশ স্থগিত : দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কুচকাওয়াজ ও সমাবেশ স্থগিত করেছে সরকার। ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালন ও ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে সংশোধিত জাতীয় কর্মসূচি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের পর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সংশোধিত কর্মসূচি জেলা প্রশাসক (ডিসি) এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) কাছে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টির সত্যতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন একাধিক ডিসি এবং ইউএনও।

বুধবার দুপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান, করোনাভাইরাসের কারণে স্বাধীনতা দিবসের রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান সীমিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরপরই রাতে ডিসি ও ইউএনওদের সংশোধিত চিঠি দিয়ে স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ-সমাবেশ স্থগিত করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

জুমার খুতবায় আলোচনার আহ্বান : করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকার বিষয়ে শুক্রবার জুমার খুতবায় আলোচনা করার জন্য ইমাম ও খতিবদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানটির সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ নিজামউদ্দিন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানানো হয়।

বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের খেলা স্থগিত : বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের জাতীয় পর্যায়ের খেলা স্থগিত করা হয়েছে। আগামীকাল শনিবার এ দুই টুর্নামেন্টের জাতীয় পর্যায়ের খেলা শুরু হওয়ার কথা ছিল।

২১ মার্চ নির্ধারিত ছিল ফাইনাল খেলা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ। বৃহস্পতিবার তিনি যুগান্তরকে বলেন, করোনা পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে সতর্কতা হিসেবে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

নতুন করোনাভাইরাস, তিনজন পুরোপুরি সুস্থ, যে কোনো সময় ছাড়পত্র

ভারতের সঙ্গে ফ্লাইট বাতিল বিমানসহ চার সংস্থার * আজ থেকে ভারতগামী সব রুটে বাস বন্ধ * প্রবাসীদের এই মুহূর্তে দেশে না আসার পরামর্শ * স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ ও সমাবেশ স্থগিত * ক্লাসরুমেই অ্যাসেম্বলি করার নির্দেশনা * জুমার খুতবায় করণীয় নিয়ে আলোচনার আহ্বান
 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৩ মার্চ ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ফাইল ছবি
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ফাইল ছবি

দেশে নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া তিনজন এখন পুরোপুরি সুস্থ। তাদের যে কোনো সময় ছাড়পত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, দেশে নতুন কোনো করোনা রোগী নেই। এদিকে নতুন এ ভাইরাস নিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ভারতের সব ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমানসহ দেশীয় চার সংস্থা।

আজ থেকে দেশটির সঙ্গে সব রুটে বাস চলাচলও বন্ধ হয়ে যাবে। প্রবাসীদের এই মুহূর্তে দেশে না আসার পরামর্শ দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে নানা সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণিকক্ষেই প্রাত্যহিক সমাবেশ (অ্যাসেম্বলি) করার নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর।

জেলা-উপজেলায় স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ ও সমাবেশ স্থগিত করা হয়েছে। আজ জুমার খুতবায় করণীয় নিয়ে আলোচনার জন্য ইমামদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। এ ছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে করোনা প্রতিরোধে আলোচনা সভা ও সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, দেশে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগী পাওয়া যায়নি। পাঁচ দিন আগে যে তিনজনকে শনাক্ত করা হয়েছিল, তারা এখন পুরোপুরি সুস্থ। যে কোনো সময় তাদের ছাড়পত্র দেয়া হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুসারে দু’বার পরীক্ষায় তাদের শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।

মন্ত্রী বলেন, স্ক্যানার দিয়ে করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয় না। এই মেশিন দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা ডিটেক্ট করা হয়। কারও তাপমাত্রা বেশি পাওয়া গেলে তাকে আলাদা করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। বর্তমানে মন্ত্রণালয়ের কাছে মোট দশটি স্ক্যানার আছে। মন্ত্রী বলেন, যেসব জায়গায় স্ক্যানার স্থাপন করা হয়েছে এই মেশিনগুলো (সামিটের দেয়া) সেখানে ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে এবং নতুন স্থানেও স্থাপন করা হবে।

করোনাভাইরাস নিয়ে তিনটি কমিটি কাজ করছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, উপজেলা-ইউনিয়ন পর্যায়ে বিদেশ থেকে কেউ এলে তাদের শনাক্ত করে আলাদা করা হবে। করোনা শনাক্ত ও প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে বিদেশ থেকে আসা সবাইকেই থার্মাল স্ক্যানারের মধ্য দিয়ে আসতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, যারা বিদেশ থেকে আসছেন তাদের হোম কোয়ারেন্টিনের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি। তাদের নিজ উদ্যোগে হোম কোয়ারেন্টিনের পরামর্শ দিচ্ছি, অনুরোধ জানাচ্ছি। মানুষ এখন অনেক সচেতন। বিদেশ থেকে কেউ এলে তারা, তাদের আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশীরাও আমাদের হটলাইনে ফোন করে পরামর্শ চাচ্ছেন।

করোনা মোকাবেলায় সরকার স্কুলসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কথা ভাবছে কি না- এমন প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, শুধু স্কুলগুলো নয়, দেশের বড় বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠান বা কারখানাগুলোয় যে বিপুল পরিমাণ শ্রমিক কাজ করে তাদের বিষয়েও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ভাবছে।

স্কুলসহ সব জায়গায় হ্যান্ড স্যানিটেশন করার জন্য বলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয় নিয়ে বৈঠক করে স্ব স্ব সংস্থাকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। তবে সাবান দিয়ে হাত ধুলেও হ্যান্ড স্যানিটেশন হয়। এর আগে সামিট গ্রুপের পক্ষ থেকে পাঁচটি থার্মাল স্ক্যানার স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় সামিট গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. লতিফ খান, গ্রুপের পরিচালক আজিজা আজিজ খান, ফরিদা খান ও সালমান খান উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের সব ফ্লাইট বাতিল : করোনাভাইরাসের কারণে আজ থেকে ভারতের সব ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্সসহ দেশীয় ৪ বিমান সংস্থা। ১৩ মার্চ থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত অন্যান্য দেশের নাগরিকদের মতো বাংলাদেশিদেরও ভারতে প্রবেশের জন্য ভিসা দেয়া বন্ধ করেছেন দেশটির সরকার।

তবে তারা কূটনৈতিক, অফিশিয়াল, রাষ্ট্রপুঞ্জ ও আন্তর্জাতিক সংস্থাসহ অন্য কয়েকটি ভিসার ক্ষেত্রে ছাড় দেবে। এ অবস্থায় যাত্রী কমে যাওয়ায় বাংলাদেশ থেকে ভারতে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ করতে যাচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আজ শুক্রবার থেকে বিমানের কোনো ফ্লাইট ভারতে যাবে না।

একই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশের ৩টি বেসরকারি বিমান সংস্থা নভোএয়ার, রিজেন্ট এয়ারওয়েজ ও ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। দেশীয় ৪টি এয়ারলাইন্স ভারতে প্রতি সপ্তাহে মোট ৩৭টি ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে। এর মধ্যে বিমান চলাচল করে ভারতের কলকাতা ও দিল্লি রুটে। ইউএস-বাংলার ফ্লাইট রয়েছে কলকাতা ও চেন্নাইয়ে। নভোএয়ারের ফ্লাইট রয়েছে কলকাতা রুটে।

বিমানের উপমহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকার বলেন, কলকাতায় প্রতিদিন দুটি করে বিমানের ফ্লাইট রয়েছে। দিল্লিতেও প্রতিদিন একটি করে ফ্লাইট ছিল। তবে করোনাভাইরাসের কারণে কয়েক দিন ধরে ঢাকা-দিল্লি রুটে প্রতি সপ্তাহে তিনটি করে ফ্লাইট চলানো হচ্ছিল।

নভোএয়ারের সিনিয়র ম্যানেজার (মার্কেটিং অ্যান্ড সেলস) একেএম মাহফুজুল আলম বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে নভোএয়ারের ফ্লাইট যাত্রী ছাড়াই কলকাতায় যাবে। সেখান থেকে ফিরতি যাত্রীদের আনা হবে। তবে ১৪ মার্চ থেকে তাদের কলকাতা ফ্লাইট পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাবে।

ঢাকা থেকে চেন্নাই ও কলকাতায় প্রতি সপ্তাহে ১৩টি ফ্লাইট রয়েছে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের। তবে ১৫ মার্চ পর্যন্ত ঢাকা-চেন্নাই রুটে এবং ১৬ মার্চ পর্যন্ত ঢাকা-কলকাতা রুটে কেবল ফিরতি যাত্রীদের আনতে ফ্লাইট চালাবে তারা। ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম বলেন, কাল থেকে ভারতীয় ছাড়া অন্য কোনো দেশের যাত্রীদের কলকাতা ও চেন্নাইয়ে নেয়া হবে না।

এরপর থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইউএস বাংলার ভারতের ফ্লাইট বন্ধ থাকবে। রিজেন্ট এয়ারওয়েজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আসিফ বলেন, আমাদের দেশে যেসব ভারতীয় আছেন এবং ভারতে যেসব বাংলাদেশি আছেন, তাদের ঢাকায় ফেরাতে আমরা কয়েকদিন ফ্লাইট চালানোর কথা জানিয়েছি ভারতকে। তারা অনুমতি দিলে কয়েকদিন এসব ফ্লাইট চলবে, এরপর বন্ধ থাকবে।

ভারতের সঙ্গে বাস চলাচল বন্ধ : করোনাভাইরাসের কারণে ভারতের কলকাতাসহ বিভিন্ন রাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের বাস চলাচল আজ থেকে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার রাতে যেসব গাড়ি কলকাতার উদ্দেশে রওনা হয়েছে, সেগুলোর যাত্রীরা দেশটিতে ঢোকার পর স্থলবন্দরগুলোর ইমিগ্রেশনও বন্ধ করে দেবে দেশটি।

এ কারণে ঢাকা-কলকাতা, ঢাকা-শিলিগুড়িসহ অন্যান্য রুটের বাসও বন্ধ হয়ে যাবে। বিষয়টি নিশ্চিত করে শ্যামলী এনআর ট্রাভেলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শুভঙ্কর ঘোষ রাকেশ যুগান্তরকে বলেন, বৃহস্পতিবার সর্বশেষ রাত ১১টায় যে গাড়িটি ভারতের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে, সেটি প্রবেশের পর দেশটির ইমিগ্রেশন বন্ধ হয়ে যাবে। ভারতের ফরেন অ্যাফেয়ার্স থেকে সব ধরনের ভিসা সাসপেন্ড করায় আমরাও কলকাতা ও শিলিগুড়ির গাড়ি বন্ধ করে দিয়েছি। 

ক্লাসরুমেই অ্যাসেম্বলি করার নির্দেশনা : শ্রেণিকক্ষেই প্রাত্যহিক সমাবেশ (অ্যাসেম্বলি) করার নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি)। শিক্ষার্থীরা যার যার আসনে থাকবে। সেখানে দাঁড়িয়ে যথানিয়মে গাইবে জাতীয় সংগীত।

এছাড়া খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ জনসমাগম হয় এমন অনুষ্ঠানের সূচি পুনর্বিন্যাস করতেও বলা হয়েছে। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রকোপের পরিপ্রেক্ষিতে সংস্থাটি দেশের সব মাধ্যমিক স্কুল এবং কলেজেকে এই নির্দেশ দিয়েছে। মাউশির অধীন সব অফিস ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেয়া হয়।

প্রবাসীদের এই মুহূর্তে দেশে না আসার পরামর্শ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর : বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করা প্রবাসী বাংলাদেশিদের তাড়াহুড়ো করে এই মুহূর্তেই ফিরে না আসার পরামর্শ দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। যে যেই দেশে আছেন, সেই দেশের নিয়ম-কানুন ও পদক্ষেপ অনুসরণ করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

তবে অধিকতর করোনা আক্রান্ত দেশগুলো থেকে কোনো প্রবাসী বাংলাদেশে এলে তাকে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে বলেও সতর্ক করে দেন মন্ত্রী। বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় মধ্যপ্রাচ্যের পাঁচ দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, যেসব প্রবাসী এখন বাংলাদেশে অবস্থান করছেন তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হলেও তা বাড়ানো হবে। আপাতত প্রবাসীদের দেশেই অবস্থান করতে বলেন মন্ত্রী। বৈঠকে বাংলাদেশে নিযুক্ত মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব, কাতার, কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইরাকের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। এ ছাড়াও প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমেদ এবং স্বাস্থ্য, বিমান ও প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব বৈঠকে অংশ নেন।

ড. মোমেন বলেন, সৌদি আরবের প্রতিনিধি বৈঠকে আমাদের জানিয়েছেন, ওই দেশে আপাতত ওমরা ভিসা দেয়া স্থগিত। কাতার জানিয়েছে, তারা ১৪টি দেশের বিমান বন্ধ করেছে। বাংলাদেশের প্রবাসীরা ওই দেশে কিছুদিন পর যেতে পারবেন। তাদেরও ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হবে।

ভিসা ও ওয়ার্ক পারমিট পেতে বাংলাদেশিদের কোনো সমস্যার মুখে পড়তে হবে না। এমনকি সে দেশে যারা নতুন কাজে যাচ্ছেন তারা পরে গেলেও কোনো ক্ষতি হবে না। কুয়েত জানিয়েছে, আপাতত সব দেশের সব প্রকার ফ্লাইট বন্ধ করেছে তারা। আমাদের দেশে যেসব প্রবাসী এসেছেন তারা যাওয়ার সময় কোনো সমস্যা হবে না। আর সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইরাক সব সময় আমাদের জন্য খোলা আছে।

তিনি বলেন, প্রবাসীরা এখন সৌদি ফিরে না গেলেও দুশ্চিন্তার কারণ নেই, পরে গিয়েও কাজে যোগ দিতে পারবেন। তবে তাদের সৌদিতে ১৫ দিন পর্যবেক্ষণে রাখার পর কাজে যোগ দিতে দেয়া হবে। ঢাকা থেকে সরাসরি সৌদির বিমানে যেতে হবে। কোথাও ট্রানজিট নিলে সমস্যা হতে পারে।

স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ-সমাবেশ স্থগিত : দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কুচকাওয়াজ ও সমাবেশ স্থগিত করেছে সরকার। ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালন ও ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে সংশোধিত জাতীয় কর্মসূচি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের পর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সংশোধিত কর্মসূচি জেলা প্রশাসক (ডিসি) এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) কাছে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টির সত্যতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন একাধিক ডিসি এবং ইউএনও।

বুধবার দুপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান, করোনাভাইরাসের কারণে স্বাধীনতা দিবসের রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান সীমিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরপরই রাতে ডিসি ও ইউএনওদের সংশোধিত চিঠি দিয়ে স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজ-সমাবেশ স্থগিত করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

জুমার খুতবায় আলোচনার আহ্বান : করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকার বিষয়ে শুক্রবার জুমার খুতবায় আলোচনা করার জন্য ইমাম ও খতিবদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানটির সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ নিজামউদ্দিন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানানো হয়। 

বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের খেলা স্থগিত : বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের জাতীয় পর্যায়ের খেলা স্থগিত করা হয়েছে। আগামীকাল শনিবার এ দুই টুর্নামেন্টের জাতীয় পর্যায়ের খেলা শুরু হওয়ার কথা ছিল।

২১ মার্চ নির্ধারিত ছিল ফাইনাল খেলা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ। বৃহস্পতিবার তিনি যুগান্তরকে বলেন, করোনা পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে সতর্কতা হিসেবে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস