খাদ্যপণ্য মজুদের হিড়িক দামও লাগামছাড়া

সারা দেশে অভিযানে জেল-জরিমানা * সংকট দেখা দিয়েছে ওষুধেরও * কারসাজি রোধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে -গোলাম রহমান * পর্যাপ্ত মজুদ আছে, বেশি পণ্য কিনবেন না -বাণিজ্যমন্ত্রী

  ইয়াসিন রহমান ২১ মার্চ ২০২০, ০১:৪১:২৭ | প্রিন্ট সংস্করণ

ছবি: সংগৃহীত

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সাধারণ মানুষকে জনসমাগম এড়ানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এক উপজেলায় কিছু এলাকা অবরুদ্ধ (লকডাউন) করা হয়েছে। আরও কয়েক এলাকার ওপর নজর রাখছে সরকার। এ পরিস্থিতিতে আতঙ্কে ভুগছেন ভোক্তা। তারা সামর্থ্য অনুযায়ী খাদ্যপণ্য ও ওষুধ সামগ্রী কিনে বাসা-বাড়িতে মজুদ করছেন। বুধবার থেকে মুদি ও ওষুধের দোকান, কাঁচাবাজার ও সুপারশপগুলোয় হুমড়ি খেয়ে পড়ছিলেন ক্রেতারা। শুক্রবার ঠাঁই ছিল না এগুলোতে।

বাড়তি চাহিদার সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরাও বাড়িয়ে দিচ্ছেন খাদ্য ও নিত্যপণ্যের দাম। তিন দিন ধরে কয়েক ঘণ্টা পরপর চড়ছে তা। ডাল, পেঁয়াজ, চিনি, ডিম, আদা-রসুন, আলু, সব ধরনের মাংস- চিত্র একই। ওষুধের দোকানেও প্রয়োজনীয় ওষুধের সংকট দেখা দিয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ না থাকায় বেড়েছে দামও।

এর পরিপ্রেক্ষিতে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরসহ বিভিন্ন সংস্থা বাজার তদারকিতে নেমেছে। বেশি দরে পণ্য বিক্রির দায়ে সারা দেশে বহু প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসায়ীকে শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে। এরপরও বসে নেই অসাধু ব্যবসায়ীরা। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের প্রধানরা বলছেন- দেশে খাদ্যপণ্যসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ আছে। তাই প্রত্যেককে প্রয়োজনের বেশি পণ্য কেনা থেকে বিরত থাকতে হবে। দেশে নিত্যপণ্য সংকটের গুজবে কান না দিতেও কোথাও কোথাও মাইকিংও করা হচ্ছে।

শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টা, রাজধানীর নয়াবাজারে এক মুদি দোকানে পণ্য কিনছিলেন মো. শামীম আহসান। তিনি বিক্রেতাকে ৫ লিটারের দুই বোতল সয়াবিন তেল, ৫ কেজি চিনি, ৪ কেজি লবণ, ৫ কেজি মুড়ি, ৫ কেজি পেঁয়াজ, এক বস্তা (৫০ কেজি) মিনিকেট চাল, ২ কেজি আদা, ২ কেজি রসুন, ৫০০ গ্রাম ওজনের ২ প্যাকেট চা পাতা, ২ কেজি গুঁড়োদুধ দিতে বললেন। এত পণ্য একসঙ্গে কিনছেন কেন? জবাবে শামীম আহসান যুগান্তরকে বলেন, ‘ভাই, আল্লাহ ভালো জানে সামনে দেশে কী পরিস্থিতি হয়। তাই খাদ্যপণ্য কিনে বাড়িতে জমা করছি। এটাকে মজুদ বলা যাবে না। মাসের খাবার একসঙ্গে কিনে রাখছি, যাতে বাজারে বারবার না আসতে হয়।’

রাজধানীর কারওয়ান বাজার, মালিবাগ বাজার ও নয়াবাজার ঘুরে দেখা গেছে, এদিন প্রতি কেজি মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে ৫৬-৫৮ টাকা, যা একদিন আগে বিক্রি হয়েছে ৫৪-৫৫ টাকা; পাঁচ দিন আগে ছিল ৫০-৫২ টাকা। নাজিরশাল বিক্রি হয়েছে ৬০-৬৭ টাকা, যা একদিন আগে বিক্রি হয়েছে ৫৮-৬৫ টাকা; পাঁচ দিন আগে ছিল ৫৬-৬০ টাকা। বিআর-২৮ বিক্রি হয়েছে ৪০-৪২ টাকা, যা একদিন আগে বিক্রি হয়েছে ৩৮-৪০ টাকা; চার দিন আগে ছিল ৩৩-৩৪ টাকা।

মালিবাগ কাঁচাবাজারের খালেক রাইস এজেন্সির মালিক ও খুচরা চাল ব্যবসায়ী দিদার হোসেন যুগান্তরকে বলেন, পাইকারিতে প্রতিদিনই চালের দাম বাড়ছে। তবে তাদেরও কোনো দোষ নেই। কারণ মিলাররা চালের চাহিদা বেশি দেখে বিভিন্ন অজুহাতে দাম বাড়াচ্ছেন। এর প্রভাব পড়ছে খুচরা বাজারে।

রাজধানীর বাজারগুলোতে এদিন প্রতি কেজি মসুরের ডাল (মাঝারি) বিক্রি হয়েছে ৭০-৭৫ টাকা, যা একদিন আগে বৃহস্পতিবার বিক্রি হয় ৬৫-৭০ টাকা, এক সপ্তাহ আগে ছিল ৬০-৬৫ টাকা। খোলা আটা বিক্রি হয়েছে ৩০-৩২ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ২৬-৩০ টাকা। প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৭০-৮০ টাকা, যা একদিন আগে বিক্রি হয়েছে ৫০-৫৫ টাকা; গত সপ্তাহে ছিল ৪৫-৫০ টাকা। এক ডজন ফার্মের ডিম বিক্রি হয়েছে ১২০ টাকা, যা একদিন আগে বিক্রি হয় ১১০-১১৫ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৯৫ টাকা।

প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হয়েছে ৭০ টাকা, যা একদিন আগেও ৬৮ টাকায় বিক্রি হয়েছে। শুকনা মরিচ প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ২৩০-২৪০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ২১০-২২০ টাকা। দেশি রসুন বিক্রি হয়েছে ১৩০-১৪০ টাকা, গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছে ৭০-৮০ টাকা। দেশি আদা বিক্রি হয়েছে ১৪০-১৬০ টাকা কেজি, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ১০০-১২০ টাকা। একদিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি আলু ৭-৮ টাকা বেড়ে বিক্রি হয়েছে ২৫-২৮ টাকায়।

মাংসের দোকানে গিয়ে দেখা গেছে, শুক্রবার প্রতি কেজি গুরুর মাংস বিক্রি হয়েছে সর্বোচ্চ ৬০০ টাকা। যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৫৫০ টাকা। খাসির মাংস বিক্রি হয়েছে সর্বোচ্চ ৯০০ টাকা কেজি, দুই সপ্তাহ আগেও বিক্রি হয়েছে ৮০০ টাকা। এছাড়া বেড়েছে ব্রয়লার মুরগির দামও। একদিনের ব্যবধানে প্রতি কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে বিক্রি হয়েছে ১৩০-১৩৫ টাকা।

জানতে চাইলে ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান যুগান্তরকে বলেন, সরকারের তদারকি সংস্থাদের আরও সজাগ থাকতে হবে, যাতে করোনাভাইরাসের অজুহাত দিয়ে কেউ অসাধু পন্ধায় ভোক্তার পকেট কাটতে না পারে। এমন হলে দ্রুত শাস্তির আওতায় আনতে হবে। ভোক্তাকেও সতর্ক থাকতে হবে, যাতে তাদের কারণে পণ্যের দাম না বাড়ে। কেউ যাতে ১০ দিনের পণ্য একদিনে না কেনে।

সম্প্রতি বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ও খাদ্যশস্যের মজুদ যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে। গেল বছরের তুলনায় এবার ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ পণ্য বেশি রয়েছে। আতঙ্কিত না হয়ে স্বাভাবিক ক্রয় করলে কোনো সংকট তৈরি হবে না। সুতরাং অতিরিক্ত পণ্য কিনে বাজারে অহেতুক অস্থিরতা তৈরি করবেন না।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার শুক্রবার যুগান্তরকে বলেন, করোনাভাইরাস আতঙ্কে মানুষ বেশি কেনাকাটা করছে। এ সুযোগে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বেশি মুনাফার লোভে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। এসব কারসাজিকারীদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছি। পাঁচটি টিম রাজধানীতে কাজ করছে। পাইকারি ও খুচরা বাজারে অভিযানের পাশাপাশি ব্যবসায়ী ও ভোক্তাদের সতর্ক করা হচ্ছে।

মনজুর শাহরিয়ার আরও বলেন, কারওয়ান বাজারের হজরত আলী নামে এক পাইকারি ব্যবসায়ী পেঁয়াজের দাম একদিনেই কেজিতে ১৫ টাকা বাড়িয়েছে। গতকালও তিনি ৪৪ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করেছেন। আজ বিক্রি করছিলেন ৫৯ টাকায়। তার কাছে বাড়তি দামে কেনার রসিদ দেখতে চাইলে উনি দেখাতে পারেননি। এ অপরাধে তার প্রতিষ্ঠানকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া আরও বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়েছি। যারাই দাম বেশি নিচ্ছেন, তাদের শাস্তির আওতায় আনা হচ্ছে।

এছাড়া একইদিন ৫৪ টাকার চাল ৫৯ টাকায় বিক্রি করায় দুটি আড়তকে জরিমানা করেছেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মোবাইল টিম। রাজধানীর উত্তর যাত্রাবাড়ী এলাকায় অভিযান চালিয়ে মা-মণি ও রাইস নামের দুটি চালের আড়তকে এ জরিমানা করা হয়।

সারা দেশ : রাজধানীর মতো এদিন সারা দেশের চিত্র ছিল একই। এদিন দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে শতাধিক ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়। ব্যুরো অফিস ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

কালকিনি (মাদারীপুর) : উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে পৌর এলাকার ভুরঘাটা বাজারে অভিযানে জালাল স্টোরের মালিক জালাল হোসেনকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। বিসমিল্লাহ স্টোর (মালিক হাবিবুর রহমান) সিলগালা করে দেয়া হয়।

টেকেরহাট (মাদারীপুর) : মাদারীপুর সদর ও রাজৈর উপজেলায় ১৩ দোকানদারকে ৬৪ হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. গিয়াসউদ্দিন। শুক্রবার সকালে মস্তফাপুর বাজার, শহরের পুরানবাজার ও রাজৈর এলাকায় এ অভিযান চলে।

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) : উপজেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত চাল ব্যবসায়ী আইনুল হককে ৫ হাজার টাকা ও পেঁয়াজ ব্যবসায়ী সোহেলকে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

টাঙ্গাইল : সদরে ১৩ ব্যবসায়ীকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুখময় সরকার। এছাড়া গোপালপুর উপজেলায় ৫ ব্যবসায়ীকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিকাশ বিশ্বাস।

মেহেন্দিগঞ্জ : বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করায় ৪ ব্যবসায়ীকে ১০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিজুস চন্দ্র দে।

বোরহানউদ্দিন (ভোলা) : পৌর শহর ও কুঞ্জেরহাট বাজারে ৯ ব্যবসায়ীকে ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. বশির গাজী।

দশমিনা (পটুয়াখালী) : উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া ফেরদাউস ১৩ ব্যবসায়ীকে ৬৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেন।

পিরোজপুর : শহরের প্রধান বাজারে ১২ প্রতিষ্ঠানকে ২৩ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইয়াসিন খন্দকার।

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) : ৮ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) : ভূঞাপুর কাঁচাবাজার ও গোবিন্দাসীর চালের গুদামে অভিযান চালিয়ে ৬ ব্যবসায়ীকে ২৬ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আসলাম হোসাইন।

পটুয়াখালী ও দক্ষিণ : ভ্রাম্যমাণ আদালত ৩ লাখ ১৪ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছেন।

বরিশাল ব্যুরো : নগরীর ফরিয়াপট্টি এলাকায় ৩ চালের আড়তে অভিযান চালিয়ে ৬৮ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুল ইসলাম।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : এক দোকানিকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর হোসেন।

চরফ্যাশন (দক্ষিণ) : উপজেলা নির্বাহী রুহুল আমীন ৬ ব্যবসায়ীকে জরিমানা করেন।

মির্জাগঞ্জ দক্ষিণ (পটুয়াখালী) : কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি ও গুজবে আতঙ্কিত হয়ে অতিরিক্ত পণ্য ক্রয় না করতে মির্জাগঞ্জে সুবিদখালী বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে।

হোমনা (কুমিল্লা) : তিন ব্যবসায়ীকে ৯ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া ভূঁইয়া।

বাকেরগঞ্জ (বরিশাল) : বোয়ালিয়া বাজারে খালেক স্টোর, বশির স্টোর ও প্যাদা স্টোরকে ১০ হাজার টাকা করে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধবী রায়।

শরণখোলা (বাগরহাট) : তিন ব্যবসায়ীকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহিন।

আগৈলঝাড়া (বরিশাল) : তিন প্রতিষ্ঠানকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চৌধুরী রওশন ইসলাম।

হবিগঞ্জ : চৌধুরী বাজার এলাকায় রকি স্টোরকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং দুই ব্যবসায়ীকে ৬ মাসের জেল ও লাইসেন্স বাতিল করেছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্লা।

গোপালপুর (টাঙ্গাইল) : ৫ ব্যবসায়ীকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিকাশ বিশ্বাস।

কচুয়া (চাঁদপুর) : কচুয়া বাজারে ৪ দোকানে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপায়ন দাস শুভ।

রামগতি (লক্ষ্মীপুর) : রামগতি ও কমলনগর উপজেলায় ১১ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল মমিন ও মোহাম্মদ মোবারক হোসেন।

খাগড়াছড়ি : মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিভীষণ কান্তি দাশ দুই চাল ব্যবসায়ীর চার গুদাম সিলগালা করেছেন। সঙ্গে চার ব্যবসায়ীকে ১৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ঈশ্বরদী (পাবনা) : ৮ ব্যবসায়ীকে ১ লাখ ৫০ হাজার ৫শ’ টাকা জরিমানা করা হয়। একটি কাঁচামালের আড়তে ব্যবসায়ীরা পালিয়ে গেলে তাদের গ্রেফতারে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

কুমিল্লা ব্যুরো : বাজার মনিটরিং করেও ঠেকানো যাচ্ছে না দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি। পণ্যের পাশাপাশি বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় ওষুধেরও সংকট দেখা দিয়েছে।

চট্টগ্রাম ব্যুরো : কিছু কিছু দোকানে নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। চট্টগ্রামে বেড়েছে সব ধরনের চালের দাম। প্রতি বস্তায় বেড়েছে ২শ’ থেকে ৫শ’ টাকা।

পলাশ (নরসিংদী) : দ্বিগুণ দামে পেঁয়াজ ও চাউল বিক্রি করায় ঘোড়াশাল বাজারের জাহিদ হোসেন ও কালা চন্দন নামে দুই ব্যবসায়ীকে আটক করে পুলিশ। পরে মুচলেকা দিলে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।

সাতকানিয়া : দেওয়ানহাট, কোর্ট রোড, ডলুব্রিজ এলাকায় চার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ২২ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নূর-ই-আলম।

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) : বেশি দামে মাস্ক বিক্রি করায় কটিয়াদী বাজারে পাঁচ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করে। কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ড বাজারে পেঁয়াজ-রসুন বিক্রেতাকে ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করে।

দুমকি (পটুয়াখালী) : বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রির অপরাধে ৬ ব্যবসায়ীকে ১৯ হাজার ৫শ’ টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী কর্মকর্তা শঙ্কর কুমার বিশ্বাস।

লক্ষ্মীপুর : দুই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ৭ হাজার টাকা জরিমানা করেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাহিদুল ইসলাম।

জুড়ী (মৌলভীবাজার) : জুড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অসীম চন্দ্র বণিক দত্ত এন্টারপ্রাইজের ক্ষিতিষ দত্তকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

গৌরনদী (বরিশাল) : রিপন সরদার (৪০) নামে পেঁয়াজ ব্যবসায়ীকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইসরাত জাহান।

কাপাসিয়া (গাজীপুর) : উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসমত আরা কাপাসিয়া সদর ও রাওনাট বাজারে ৮ ব্যবসায়ীকে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) : উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মমতাজ বেগম তাঁতবাজারে ৭টি মুদি মনোহারী ও ১টি রেস্টুরেন্টকে ৪৪ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

কাউখালী (পিরোজপুর) : উপজেলা নির্বাহী অফিসার খালেদা খাতুন রেখা ১০ প্রতিষ্ঠানকে ৩২ হাজার ৫শ’ টাকা জরিমানা করেছেন।

টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) : পৃথক দুটি মোবাইল কোর্টে ১০ জনকে অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ঝালকাঠি : ১২ ব্যবসায়ীকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সিলেট ব্যুরো : নগরীতে ৭টি ও প্রতি উপজেলায় ইউএনও/এসিল্যান্ডের নেতৃত্বে ১টি করে টিম মাঠে নেমেছে। লালবাজার ও আম্বরখানায় চারটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) : পৌরশহরে ও আঠারবাড়ির রায়ের বাজারের পাঁচ ব্যবসায়ীকে ৪৮ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইদা পারভীন।

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) : তিনটি চালের দোকানে ২০ হাজার টাকা, ওষুধের দোকানে ২৫ হাজার টাকা ও পেঁয়াজের দোকানে ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

আশুগঞ্জ : চাউল ব্যবসায়ীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজিমুল হায়দার।

মীরসরাই (চট্টগ্রাম) : করেরহাট, বারইয়াহাট, মীরসরাই সদর, মিঠাছড়া ও আবুতোরাব বাজারে ১৩ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে নগদ ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এছাড়া আমাদের দিনাজপুর, ভাণ্ডারিয়া (পিরোজপুর), শেরপুর (বগুড়া), আমতলী (বরগুনা), ধোবাউরা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি তার এলাকায় নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির তথ্য জানিয়েছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত