নিট গার্মেন্ট বন্ধ রাখুন, বেতন বন্ধ করা যাবে না: মালিকদের প্রতি সেলিম ওসমান
jugantor
নিট গার্মেন্ট বন্ধ রাখুন, বেতন বন্ধ করা যাবে না: মালিকদের প্রতি সেলিম ওসমান

  নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি  

২৬ মার্চ ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের পরিস্থিতি বিবেচনায় নিট খাতের সব কারখানা আজ (২৬ মার্চ) থেকে ৪ এপিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার অনুরোধ করেছেন বিকেএমইএ সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান।

কারাখানা মালিকদের উদ্দেশে এ সংক্রান্ত চিঠিতে তিনি বলেছেন, শ্রমিকদের বকেয়াসহ সব পাওনা ও মার্চ মাসের বেতন ব্যাংকের সঙ্গে সমন্বয় করে সময়মতো পরিশোধের প্রস্তুতি নিন। এর ব্যত্যয় ঘটানো যাবে না, এটা সম্পূর্ণই আপনার দায়িত্ব।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে শিল্প মালিক, সরকারের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর এ অনুরোধ করলেন তিনি। বুধবার বিকেএমইএ’র সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই চিঠি দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, রফতানি কার্যাদেশ বা এ সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম না থাকলে ফ্যাক্টরি চালানোর প্রয়োজন নেই। যেহেতু সরকারের চূড়ান্ত নির্দেশনা এখনও আসেনি, সে ক্ষেত্রে গার্মেন্ট মালিকরা প্রয়োজনে তাদের সম্পূর্ণ নিজস্ব রিস্ক অ্যান্ড রেসপন্সিবিলিটিতে কারখানা খোলা রেখে পরিচালনা করতে পারেন।

তবে পরিস্থিতি যেভাবে নাজুক হচ্ছে, তাতে যে কোনো মুহূর্তেই বাংলাদেশেও কারফিউ বা লকডাউন করা হতে পারে। তাই আপনি ক্ষতিগ্রস্ত না হওয়ার জন্য প্রয়োজনে সীমিত আকারে ফ্যাক্টরি চালাতে পারেন। তবে প্রতিষ্ঠানের যে কোনো সমস্যা হলে শ্রমিকদের সঙ্গে সরাসরি আলোচনা করে সমাধান করুন। কোনো অবস্থাতেই শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বন্ধ করা যাবে না।

তবে যদি কারখানা ছুটি দিয়ে থাকেন সে ক্ষেত্রে আপনার প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের মধ্য থেকে স্বেচ্ছাশ্রমে (ভলান্টিয়ার সার্ভিস) আগ্রহীদের নিয়ে টিম করে আপনার কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন। ছুটির পরে ফ্যাক্টরি খোলার সময় অবশ্যই শ্রমিক/কর্মকর্তাসহ সবার মেডিকেল চেকআপ করে কোনো রোগ না থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরই তাদেরকে (শ্রমিক/কর্মকর্তা) কারখানায় প্রবেশ করান।

নিট গার্মেন্ট বন্ধ রাখুন, বেতন বন্ধ করা যাবে না: মালিকদের প্রতি সেলিম ওসমান

 নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি 
২৬ মার্চ ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের পরিস্থিতি বিবেচনায় নিট খাতের সব কারখানা আজ (২৬ মার্চ) থেকে ৪ এপিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার অনুরোধ করেছেন বিকেএমইএ সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান।

কারাখানা মালিকদের উদ্দেশে এ সংক্রান্ত চিঠিতে তিনি বলেছেন, শ্রমিকদের বকেয়াসহ সব পাওনা ও মার্চ মাসের বেতন ব্যাংকের সঙ্গে সমন্বয় করে সময়মতো পরিশোধের প্রস্তুতি নিন। এর ব্যত্যয় ঘটানো যাবে না, এটা সম্পূর্ণই আপনার দায়িত্ব।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে শিল্প মালিক, সরকারের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর এ অনুরোধ করলেন তিনি। বুধবার বিকেএমইএ’র সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই চিঠি দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, রফতানি কার্যাদেশ বা এ সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম না থাকলে ফ্যাক্টরি চালানোর প্রয়োজন নেই। যেহেতু সরকারের চূড়ান্ত নির্দেশনা এখনও আসেনি, সে ক্ষেত্রে গার্মেন্ট মালিকরা প্রয়োজনে তাদের সম্পূর্ণ নিজস্ব রিস্ক অ্যান্ড রেসপন্সিবিলিটিতে কারখানা খোলা রেখে পরিচালনা করতে পারেন।

তবে পরিস্থিতি যেভাবে নাজুক হচ্ছে, তাতে যে কোনো মুহূর্তেই বাংলাদেশেও কারফিউ বা লকডাউন করা হতে পারে। তাই আপনি ক্ষতিগ্রস্ত না হওয়ার জন্য প্রয়োজনে সীমিত আকারে ফ্যাক্টরি চালাতে পারেন। তবে প্রতিষ্ঠানের যে কোনো সমস্যা হলে শ্রমিকদের সঙ্গে সরাসরি আলোচনা করে সমাধান করুন। কোনো অবস্থাতেই শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বন্ধ করা যাবে না।

তবে যদি কারখানা ছুটি দিয়ে থাকেন সে ক্ষেত্রে আপনার প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের মধ্য থেকে স্বেচ্ছাশ্রমে (ভলান্টিয়ার সার্ভিস) আগ্রহীদের নিয়ে টিম করে আপনার কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন। ছুটির পরে ফ্যাক্টরি খোলার সময় অবশ্যই শ্রমিক/কর্মকর্তাসহ সবার মেডিকেল চেকআপ করে কোনো রোগ না থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরই তাদেরকে (শ্রমিক/কর্মকর্তা) কারখানায় প্রবেশ করান।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০