নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলা

৫১ জনকে হত্যার কথা স্বীকার ব্রেন্টন ট্যারান্টের

  যুগান্তর ডেস্ক ২৭ মার্চ ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরের দুটি মসজিদে হামলা চালিয়ে ৫১ মুসল্লিকে হত্যার ঘটনার এক বছর পর সব অপরাধ স্বীকার করেছেন অভিযুক্ত আসামি শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদী ব্রেন্টন ট্যারান্ট। গত বছরের ১৫ মার্চ শুক্রবার জুমার নামাজের সময় মসজিদে অবস্থানরত মুসল্লিদের ওপর স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ে আকস্মিক এ হামলা চালায় ব্রেন্টন। নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করে ৫১ জনকে। ব্রেন্টন হামলার দৃশ্য সরাসরি ফেসবুকে সম্প্রচার করেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ৫১ জনকে হত্যার পাশাপাশি আরও ৪০ জনকে হত্যাচেষ্টা এবং সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ ছিল অস্ট্রেলীয় নাগরিক ট্যারান্টের বিরুদ্ধে, যার সবগুলোই স্বীকার করেছেন তিনি।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে বর্তমানে লকডাউন রয়েছে নিউজিল্যান্ড। তাই বৃহস্পতিবার আদালতে অল্পসংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে ক্রাইস্টচার্চের আদালতে ব্রেন্টন তার দোষ স্বীকার করেন। যদিও এর আগে গত বছরের জুন আদালতের শুনানিতে সব অভিযোগই অস্বীকার করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছিলেন এ হামলাকারী।

শুনানিতে সাধারণ কাউকে থাকতে দেয়া হয়নি। কারাগর থেকে ব্রেন্টন ও তার আইনজীবীরা ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে এ শুনানিতে অংশ নেন। হামলার ঘটনায় আহত ও হতাহতদের পরিবারের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য আক্রান্ত দুই মসজিদের একজন প্রতিনিধিকে শুনানিতে উপস্থিত থাকার অনুমতি দেয়া হয়। শুনানিকালে বিচারপতি ক্যামেরন ম্যান্ডার বলেন, ‘এটি দুঃখজনক, যখন আসামি দোষ স্বীকার করল তখন বর্তমানে আরোপ করা কোভিড-১৯ বিধিনিষেধের কারণে আহত ও হতাহতদের পরিবারের সদস্যরা আদালতে উপস্থিত থাকতে পারল না।’

বিচারপতি ম্যান্ডার বলেন, ‘আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু না হওয়া পর্যন্ত এবং আহত ও হতাহতদের পরিবারের সদস্যরা সশরীরে আদালতে উপস্থিত থাকতে পারার মতো পরিস্থিতি না হওয়া পর্যন্ত আসামিকে সাজা দেয়ার কোনো উদ্দেশ্য নেই।’

ব্রেন্টনের বিরুদ্ধে আনা ৯২টি অভিযোগের রায়ের দিন নির্ধারিত হয়নি। আদালত ১ মে পর্যন্ত ব্রেন্টনকে হেফাজতে রাখার নির্দেশ নিয়েছেন। শাস্তি ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত কারাগারেই থাকবেন তিনি। কবে নাগাদ তার এসব অভিযোগের দণ্ড দেয়া হবে, তা এখনও নির্ধারণ করেননি আদালত। তবে আদালত বলেছেন, প্রত্যেকটি অভিযোগেই ব্রেন্টনকে দোষী সাব্যস্ত করে দণ্ড দেয়া হবে।

ব্রেন্টন তার দোষ স্বীকার করার পর নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন বলেছেন, তিনি এ খবর শুনে স্বস্তির একটা বড় নিঃশ্বাস ছেড়েছেন।

ওই হামলাকে নিউজিল্যান্ডে শন্তিকালীন সময়ের সবচেয়ে বড় ‘নির্বিচার হত্যা’ হিসেবে অভিহিত করা হয়। ব্রেন্টনের এ হামলায় নিউজিল্যান্ডসহ পুরো বিশ্ব হতবাক হয়ে যায়। হামলার জেরে নিউজিল্যান্ড সব ধরনের সেমি-অটোমেটিক আগ্নেয়াস্ত্র নিষিদ্ধ করাসহ বেশকিছু কঠোর পদক্ষেপ নেয়।

আরও পড়ুন

'কোভিড-১৯' সর্বশেষ আপডেট

# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৫১ ২৫
বিশ্ব ৮,৫৬,৯১৭১,৭৭,১৪১৪২,১০৭
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×