খুমেক হাসপাতাল: আইসোলেশনে থাকা রোগীর মৃত্যু
jugantor
খুমেক হাসপাতাল: আইসোলেশনে থাকা রোগীর মৃত্যু
পালিয়েছেন আরেকজন

  খুলনা ব্যুরো  

৩০ মার্চ ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের আইসোলেশনে থাকা সুলতান শেখ (৭০) নামে এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে। রোববার সকাল সোয়া ৯টায় চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে শুক্রবার তিনি যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসার জন্য খুমেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটের আইসোলেশনে ভর্তি হন। সুলতান নড়াইলের কালিয়া উপজেলার আবদুল গফুর শেখের ছেলে।

হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ইনচার্জ ডাক্তার শৈলেন্দ্র নাথ বিশ্বাস জানিয়েছেন, সুলতান করোনা ইউনিটে ভর্তি থাকলেও তিনি যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত ছিলেন। বিষয়টি ঢাকায় আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

তারা জানিয়েছে তার নমুনা পরীক্ষার প্রয়োজন নেই। সেই কারণে তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আইসোলেশনে ভর্তি রোগী পলাতক : খুমেক হাসপাতালে করোনা আইসোলেশন ইউনিটে তিনজনের ভর্তির মধ্যে একজন পালিয়ে গেছেন। পালিয়ে যাওয়া ব্যক্তি যশোর ঝুমঝুমপুরের বাসিন্দা। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ভর্তি হওয়ার পর তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।

এর বাইরে এই হাসপাতালে বর্তমানে করোনা আইসোলেশনে দু’জন ভর্তি রয়েছেন। হাসপাতালের পরিচালক ডা. এটিএম মঞ্জুর মোর্শেদ রোগী পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, যদি এ রকম ঘটনা হয়ে থাকে তাহলে বিপজ্জনক।

এজন্য স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা নিতে হবে, যাতে কেউ পালিয়ে থাকতে না পারে।

খুমেক হাসপাতাল: আইসোলেশনে থাকা রোগীর মৃত্যু

পালিয়েছেন আরেকজন
 খুলনা ব্যুরো 
৩০ মার্চ ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। ফাইল ছবি

করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের আইসোলেশনে থাকা সুলতান শেখ (৭০) নামে এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে। রোববার সকাল সোয়া ৯টায় চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে শুক্রবার তিনি যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসার জন্য খুমেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটের আইসোলেশনে ভর্তি হন। সুলতান নড়াইলের কালিয়া উপজেলার আবদুল গফুর শেখের ছেলে।

হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ইনচার্জ ডাক্তার শৈলেন্দ্র নাথ বিশ্বাস জানিয়েছেন, সুলতান করোনা ইউনিটে ভর্তি থাকলেও তিনি যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত ছিলেন। বিষয়টি ঢাকায় আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

তারা জানিয়েছে তার নমুনা পরীক্ষার প্রয়োজন নেই। সেই কারণে তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আইসোলেশনে ভর্তি রোগী পলাতক : খুমেক হাসপাতালে করোনা আইসোলেশন ইউনিটে তিনজনের ভর্তির মধ্যে একজন পালিয়ে গেছেন। পালিয়ে যাওয়া ব্যক্তি যশোর ঝুমঝুমপুরের বাসিন্দা। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ভর্তি হওয়ার পর তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।

এর বাইরে এই হাসপাতালে বর্তমানে করোনা আইসোলেশনে দু’জন ভর্তি রয়েছেন। হাসপাতালের পরিচালক ডা. এটিএম মঞ্জুর মোর্শেদ রোগী পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, যদি এ রকম ঘটনা হয়ে থাকে তাহলে বিপজ্জনক।

এজন্য স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা নিতে হবে, যাতে কেউ পালিয়ে থাকতে না পারে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস