ঢাবি গবেষণা

বাংলাদেশে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৯২৯ জনের মৃত্যু

গুজব ছড়ানোয় গ্রেফতার ৮৪

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৪ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশে করোনার উপসর্গ নিয়ে এ পর্যন্ত ৯২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। যদিও ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, সরকারি হিসাব অনুযায়ী ৮ মার্চ থেকে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) নিয়ে গুজব ও মিথ্যা তথ্য ছড়ানোর দায়ে এখন পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ৮৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ৮ মার্চ থেকে ৯ মে পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের বাংলাদেশ পিস অবজারভেটরি (বিপিও) টিমের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগী শনাক্ত হন ৮ মার্চ। ওইদিন থেকে ৯ মে পর্যন্ত দেশে ভাইরাসটিতে সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে ৯২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ। তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়, উপসর্গ নিয়ে মৃতদের মধ্যে ২১০ জন ঢাকা বিভাগের, ১৬৭ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, ১১০ জন খুলনা বিভাগের, ৮৭ জন রাজশাহী বিভাগের, ৮৪ জন বরিশাল বিভাগের, ৬৬ জন সিলেট বিভাগের এবং ৬৫ জন রংপুর বিভাগের বাসিন্দা।

যদিও সরকারি হিসাব বলছে ভিন্ন কথা। সরকারি হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের পরিচালক অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, বিভিন্ন পত্রিকায় করোনাভাইরাস নিয়ে যেসব প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে সেগুলো ক্রস চেক করে ৯২৯ জনের একটি সংখ্যা পেয়েছি। তবে যারা মারা গিয়েছেন তারা সবাই কোভিড-১৯-এর সঙ্গে সম্পর্কিত নাও হতে পরেন। যেহেতু পত্রিকায় লেখা হয়েছে এরা কোভিড-১৯ উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। তাই তাদের এ সংখ্যার কথা আমাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

আরও বলা হয়েছে, ৮ মার্চ থেকে এখন পর্যন্ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ানোর কারণে ৮৪ জনকে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যার মধ্যে ঢাকা বিভাগ থেকে সর্বোচ্চ ৩৪ জন এবং রাজশাহী বিভাগ থেকে সর্বনিু ৬ জনকে আটক করা হয়। আর আটককৃতদের মধ্যে রয়েছে সাংবাদিক, কার্টুনিস্ট ও সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার ইন্সটিটিউশনের কর্মীরাও। আবার এদের অনেককে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনেও আটক করা হয়েছে।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত