জাকাতের অর্থ নিতে হারাগাছে উপচে পড়া ভিড়

  কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি ১৬ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুরের হারাগাছে জাকাতের অর্থ নিতে হাজির হয়েছিলেন হাজার হাজার মানুষ

নিয়মনীতি বা দূরত্ববিধির বালাই ছিল না। ছিল না করোনার বৈশ্বিক মহামারীর ভয় বা সাবধানতা মেনে চলার ছিটেফোঁটাও। সব ধরনের স্বাস্থ্য সতর্কতা উপেক্ষা করে আশপাশের হাজার হাজার গরিব-দুস্থ মানুষ বৃহস্পতিবার জাকাতের অর্থ নিতে হাজির হয়েছিলেন রংপুরের হারাগাছের শিল্পপতি প্রয়াত মহাসিন আলী বেঙ্গলের বাড়ির সামনে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি চলেছে জাকাত বণ্টনের কাজ। প্রতি বছরের মতো এবারও রমজান মাসে জাকাত-ফিতরার অর্থ নিতে হাজার হাজার গরিব মানুষ হাজির হন হারাগাছে এই শিল্পপতিদের বাড়িতে। অর্থ নেয়ার পাশাপাশি জাকাতের কাপড় নেয়ার জন্যও নারীদের উপস্থিতি ছিল ব্যাপক।

তবে এ দৃশ্য কেবল মহাসিন বেঙ্গলের বাড়ির সামনেই নয়। হারাগাছের অন্তত এক ডজন শিল্পপতির বাড়ির সামনে আগামী এক সপ্তাহ জুড়ে থাকবে জাকাত প্রার্থীদের উপচে পড়া ভিড়। সরকার যেখানে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে সব কাজ করার জন্য বারবার বলে আসছে এবং সরকারি উদ্যোগে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ত্রাণ দেয়া হচ্ছে।

করোনার বিস্তারের এই দুঃসময়ে এভাবে জাকাতের অর্থ বিতরণ কতটুকু সমীচীন হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন করেছেন স্থানীয় অনেকেই। স্থানীয়রা বলছেন, এমনিতেই হারাগাছ জনবহুল ও শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকা। এ ছাড়াও এলাকায় ইতোমধ্যেই তিনজন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। প্রশাসনের কঠোর নজরদারি থাকা সত্ত্বেও বিপুলসংখ্যক মানুষের উপস্থিতি কীভাবে ঘটছে তা নিয়ে নানা প্রান্ত থেকে নানা কথা বলা হচ্ছে।

এলাকাবাসী বলছেন, এর আগে যেভাবে জাকাত দেয়া হতো, করোনার এই সময়ে ওই ধারা থেকে সরে আসতে হবে। গরিব মানুষগুলোকে একত্রিত করে ঝুঁকির মধ্যে না ফেলে তালিকা করে তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে জাকাতের অর্থ বিলি করতে হবে। তা না হলে দ্রুত এলাকায় করোনা ছড়িয়ে পড়বে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উলফৎ আরা বেগম বলেন, এভাবে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে যারা জাকাত দিচ্ছেন তাদের সতর্ক করা হবে। তারা যেন নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে অথবা বাড়ি বাড়ি গিয়ে জাকাতের অর্থ প্রদান করেন।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত