চট্টগ্রাম বন্দর: সতর্কতা সংকেত জারির পরই বন্ধ পণ্য ডেলিভারি

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ২১ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে বুধবার চট্টগ্রাম বন্দরে মহাবিপদ সংকেত জারির পর পরই সব ধরনের পণ্য ডেলিভারি বন্ধ হয়ে যায়। এর আগেই বন্দরের বহির্নোঙর ও জেটিতে অবস্থানরত জাহাজ থেকে সব ধরনের পণ্য বা কনটেইনার খালাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এদিন চট্টগ্রামে সাগর উত্তাল ছিল। পতেঙ্গায় বঙ্গোপসাগরে স্বাভাবিকের চেয়ে কয়েক ফুট উচ্চতার ঢেউয়ে বেড়িবাঁধ এলাকা প্লাবিত হয়।

এর আগে মঙ্গলবার জেটিতে থাকা ১৯টি জাহাজের সব কটিকে বহির্নোঙরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। জেটিতে থাকলে বাতাসের তোড়ে জাহাজ, জেটি এবং অন্যান্য স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে, তাই এই ব্যবস্থা নেয়া হয়। একইসঙ্গে নিচু শেডগুলোতে যাতে পানি প্রবেশ করতে না পারে তার ব্যবস্থা করা হয়। এছাড়া বন্দর ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স, হাসপাতাল ও রেসকিউ বোট প্রস্তুত রাখা হয়।

এদিকে ঘূর্ণিঝড়ে জান-মালের সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় এদিন চট্টগ্রামের উপকূলীয় এলাকার জনগণকে আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হয়। জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সজীব কুমার চক্রবর্তী জানান, বিকাল পর্যন্ত চট্টগ্রাম নগরী ও উপকূলীয় উপজেলার আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে লক্ষাধিক লোক আশ্রয় নেয়। এ ছাড়া ১৩ হাজার গবাদিপশুও আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হয়।

তিনি জানান, লোকজনের আশ্রয়ের জন্য ১ হাজার ৯৫১টি সাইক্লোন শেল্টার খুলে দেয়া হয়। এছাড়া প্রস্তুত রাখা হয় ২৭৯টি সাইক্লোন শেল্টার। সন্দ্বীপ ও বাঁশখালী উপজেলা সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। এ দুই উপজেলায় ২০ হাজার করে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ বিকাল নাগাদ আশ্রয় কেন্দ্রে যায়। আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি পর্যাপ্ত পরিমাণ হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঘটনাপ্রবাহ : ঘূর্ণিঝড় আম্পান

আরও

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত