৩৭৯ দিনে ঝরল ৩১৫১ প্রাণ

পলাশবাড়ীতে ট্রাক উল্টে নিহত ১৩

চার জেলায় পুলিশ ও এনজিও কর্মকর্তাসহ প্রাণ গেছে আরও ছয়জনের

  যুগান্তর ডেস্ক ২২ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার গার্মেন্ট শ্রমিকরা ঈদ করতে বাড়িতে আসছিলেন একটি রড বোঝাই ট্রাকে চড়ে। কিন্তু গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে সড়ক দুর্ঘটনায় ওই ট্রাকের তিন শিশুসহ ১৩ জনকেই লাশ হয়ে বাড়ি ফিরতে হল। এছাড়া নাটোরের বড়াইগ্রামে পুলিশের এক কর্মকর্তা, ময়মনসিংহের গৌরীপুরে এনজিও কর্মকর্তা ও অটোরিকশা চালক, হবিগঞ্জের মাধবপুরে গ্রাম পুলিশ ও এক নারী এবং নোয়াখালীর হাতিয়ায় এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে ৩৭৯ দিনে প্রাণ ঝরল ৩১৫১ জনের। যুগান্তর প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

গাইবান্ধা : পলাশবাড়ী উপজেলা সদরের জুনদহ এলাকায় ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় রড বোঝাই একটি ট্রাক উল্টে গিয়ে ১৩ জন নিহত ও ৪ জন আহত হয়েছেন। সন্ধ্যা ৬টায় এ রিপোট লেখা পর্যন্ত গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ সূত্রে নিহত ১৩ জনের মধ্যে তিনজনের পরিচয় পাওয়া গেছে বলে জানায়। তারা হলেন- ছোটভগবানপুর মহদিপুর গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে মহসিন আলী, রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার ধোরাকান্ত এলাকার আবদুস সামাদের ছেলে শামছুল আলম, সুমন মিয়ার ছেলে সোয়াইদ।

নিহতদের মধ্যে তিন শিশু ও ১০ জনসহ সবাই পুরুষ। তারা বিভিন্ন এলাকার গার্মেন্টকর্মী বলে জানা গেছে। সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কড়া নিষেধাজ্ঞা ধাকা সত্ত্বেও পরিবারের লোকজনের সঙ্গে ঈদ করার উদ্দেশে এসব শ্রমিক বাড়ি রওনা দেন। ওইসব শ্রমিক ট্রাকের ড্রাইভার-হেলপারদের সঙ্গে যোগসাজশ করে গোপনে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে বুধবার রাত থেকেই বৃষ্টি হচ্ছিল। এরমধ্যে রডবোঝাই একটি ট্রাকে ওই ১৭ যাত্রী ঢাকা থেকে রংপুরের দিকে যাচ্ছিলেন। পথে পলাশবাড়ী উপজেলা সদরের জুনদহ এলাকায় ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে পানিভর্তি খাদে উল্টে পড়ে। এ সময় ট্রাকে থাকা যাত্রীরা রডের নিচে চাপা পড়েন। তবে ড্রাইভার-হেলপারসহ ইঞ্জিন রুমে থাকা যাত্রীরা পালিয়ে যান। খুব সম্ভব তারাও আহত অবস্থায় পালিয়ে গেছেন। এ ঘটনায় আশপাশের লোকজন এবং পথচারীরা এ ঘটনা দেখে সেখানে ছুটে যান। তারা উদ্ধারের চেষ্টা করেন। কিন্তু পানিভর্তি খাদে ট্রাকের রডের নিচে যাত্রীরা ডুবে যাওয়ায় তাদের উদ্ধার করতে তারা ব্যর্থ হন। তখন তারা পলাশবাড়ী থানা ও হাইওয়ে পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়। খবর পেয়ে ওইসব সংস্থার সদস্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। তারা পানিতে পড়া যাত্রীদের উদ্ধারে অভিযান চালায়। তাদের যৌথ প্রচেষ্টায় ওইসব যাত্রীদের একে একে পানির নিচ থেকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। তবে তাদের কাউকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

পলাশবাড়ী থানার ওসি মাসুদুর রহমান জানান, সকাল ৮টায় দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। সেখানে পানির ভেতরে ট্রাকের নিচ থেকে লাশ তোলা তাৎক্ষণিক সম্ভব না হওয়ায় একটি ট্রাক্টর নিয়ে এসে পুলিশ সদস্য ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন সেখান থেকে ট্রাকটি এবং লাশগুলো উদ্ধার করে। হাইওয়ে থানার ওসি আবদুল কাদের জিলানী জানান, লাশগুলো ও ট্রাকটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। খুব সম্ভব ট্রাকের ড্রাইভার ও কেবিনে থাকা অন্য লোকজন পালিয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত তিনজন যাত্রীর পরিচয় পাওয়া গেছে।

বড়াইগ্রাম (নাটোর) : বড়াইগ্রামে বিআরটিসির ট্রাকের চাপায় একরামুল ইসলাম নামে এক গোয়েন্দা পুলিশের এক কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার বেলা ৩টার দিকে বনপাড়া-হাটিকুমরুল-ঢাকা মহাসড়কের বড়াইগ্রাম থানা মোড় এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত একরামুল ইসলাম ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) এএসআই হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফেরার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) : ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের গৌরীপুর উপজেলার ডৌহাখলা ইউনিয়নের বড়ইতলা এলাকায় বুধবার রাতে অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ হয়। মোটরসাইকেল আরোহী চাঁদপুরের সাজেদা ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা মো. সেলিম মিয়া গুরুতর আহত হন। রাত ১০টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। তিনি জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার পাছপয়লা গ্রামের মো. নুরুজ্জামানের পুত্র। এ ঘটনায় গৌরীপুর থানার একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) : মাধবপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় এশা বানু নামে নারী গ্রাম পুলিশ ও রুমা বেগম এক নারী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নোয়াপাড়া সাহেব বাড়ী ও মাধবপুর পৌর শহরের ফায়ার সার্ভিস এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। রুমা বেগম উপজেলা বুল্লা গ্রামের আহাদ মিয়ার স্ত্রী ও মাধবপুর পৌর শহরের পশ্চিম মাধবপুর গ্রামে মোতালিব মিয়ার মেয়ে। এশা বানু মাধবপুর উপজেলার নোয়াপাড়া ইউপি নারাইনপুর গ্রামের বাসিন্দা।

কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) : নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় মোটরসাইকেলচাপায় আবুল কালাম (৬০) এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। ঘটনায় মোটরসাইকেল চালক জহির উদ্দিনসহ দু’জন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে নলচিরা-জাহাজমারা সড়কের মারগেজ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আবুল কালাম হাতিয়া পৌরসভা ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত