৩ জেলায় বিষাক্ত স্পিরিট পানে ১৯ জনের মৃত্যু

দৃষ্টিশক্তি হারাল ছয়জন

  যুগান্তর ডেস্ক ২৯ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দিনাজপুর, রংপুর ও বগুড়ায় ঈদের ছুটিতে রেক্টিফায়েড স্পিরিট (বিষাক্ত মদ) পানে ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ছয়জন দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছে। স্পিরিট পানে দিনাজপুরের বিরামপুরে স্বামী-স্ত্রীসহ ১০ জন, রংপুরের পীরগঞ্জে ছয়জন ও বদরগঞ্জে তিনজন এবং বগুড়ার ধুনটে দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সম্পর্কে ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

বিরামপুর (দিনাজপুর) : স্পিরিট পানে বিরামপুরে বুধবার সকালে ছয়জন এবং রাতে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আরও কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়েছে। তারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এ ঘটনায় এক হোমিও চিকিৎসককে আটক করা হয়েছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর অভিযান চালিয়ে ৪ হাজার ১০০ বোতল স্পিরিট জব্দ করেছেন। জানা গেছে, পৌর এলাকার মাহমুদপুর গ্রামের আ. আজিজের ছেলে সোহেল রানা (৩০), আবুল হোসেনের ছেলে মনোয়ার হোসেন (৪২), আ. খালেকের ছেলে আবদুল আলীম (৪০), কাজীপাড়া মহল্লার ইসরাফিলের ছেলে আনোয়ার হোসেন (৪২) মঙ্গলবার নেশা করার উদ্দেশ্যে স্পিরিট পান করে। কিন্তু বিষ্ক্রিয়ায় বুধবার তাদের মৃত্যু হয়। এর আগে একই ঘটনায় বুধবার সকাল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে ছয়জনের মৃত্যু হয়। বুধবার সকালে মৃতরা হল মাহমুদপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে আ. মতিন (২২), সুলতান আলীর ছেলে মহসীন আলী (২৭), তোজাম্মেলের ছেলে আজিজুল (৩০), ইসলামপাড়ার তাপস বাক্সির ছেলে অমৃত্যু বাক্সি (২৪), হঠাৎপাড়া মহল্লার স্বামী শফিকুল (৫৫) ও স্ত্রী মঞ্জুয়ারা (৩৫)। স্পিরিট পানকারী আরও ছয়জন দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছে।

পীরগঞ্জ (রংপুর) : পীরগঞ্জে স্পিরিট পানে তিন মাদক ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতাসহ ছয়জন মারা গেছে। আরও পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ঈদুল ফিতরের পর ৪৮ ঘণ্টার ব্যবধানে পাঁচজন মারা গেছে।

রংপুর : বদরগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুরে স্পিরিট পানে ঈদের দিন ও পরের দিন তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হল- বদরগঞ্জ উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের নুর ইসলাম (৩০) এবং রংপুর সদর উপজেলার চন্দনপাট ইউনিয়নের সরোয়ার হোসেন (৩১) ও মোস্তফা কামাল (৩০)। এদের মধ্যে মঙ্গলবার সকালে সরোয়ার ও মোস্তফা কামাল এবং গত বুধবার সকালে নুর ইসলাম মারা যান। তিনজনই রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

বগুড়া : ধুনটে স্পিরিট পানে দুই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। অসুস্থ অবস্থায় আরও দু’জন গোপনে চিকিৎসা নিচ্ছেন। বুধবার দুপুরে চারজন পাশের সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার সোনামুখী বাজারে গিয়ে স্পিরিট পান করেন। একজন রাতে বাড়িতে ও অপরজন ভোরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) মারা যান।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত