চীনের সঙ্গে সীমান্ত বিরোধ

ভারতকে সংস্কৃতির ভিত্তিতেই এগোতে হবে

তিলক দেবাশের

  যুগান্তর ডেস্ক ৩১ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভারত সীমান্তে চীন আগ্রাসী আচরণে ব্যস্ত থাকলেও ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী শুধু সীমান্ত রক্ষাই করছে না, পাশাপাশি আর্টিক্যাল ৩৭০ বাতিল-পরবর্তী অবস্থা মোকাবেলায়ও জোরদার ভূমিকা পালন করছে। এ অঞ্চলের সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষায় ভারত কাজ করছে।

একই সঙ্গে ভৌগোলিক দাবি বজায় রেখেই ভারতকে ইতিহাস, সংস্কৃতি ও ভাষার ভিত্তিতে চীনের সঙ্গে সীমান্ত বিরোধ নিরসনে এগিয়ে যেতে হবে।

দ্য উইককে দেয়া সাক্ষাৎকারে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য তিলক দেভাশের এসব কথা বলেন।

দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যকার উত্তেজনা শান্তিপূর্ণ উপায়ে নিরসনে চীনের সঙ্গে আলোচনা চলছে বলে জানিয়ে তিলক দেভাশের বলেন, দিল্লি ও বেইজিংয়ে কূটনৈতিক পর্যায়ে যোগাযোগ চলছে।

সেনাবাহিনী পর্যায়ে এবং কূটনৈতিক পর্যায়ে উভয় পথেই ভারত ও চীন আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।

সীমান্তে শান্তি বজায় রাখতে দুই দেশই একাধিক প্রটোকলে স্বাক্ষর করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা এবং এসব প্রটোকল কঠোরভাবে মেনে চলতে ভারতীয় সেনাবাহিনী দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখছে।

সরকারের নির্দেশনা তারা অনুসরণ করছে। একই সঙ্গে সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষা করছে।

তিনি বলেন, গিলগিট-বেলুচিস্তান (জিবি) কৌশলগতভাবে উপমহাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল। কারোকুলাম পাস ও মহাসড়ক ব্যবহার করে পাকিস্তানি ভূখণ্ডে চীনের প্রবেশের সুযোগ করে দিয়েছে জিবি। অথচ ভারতের ভূমিতে প্রবেশে আফগানিস্তান ও মধ্য এশিয়াকে দিচ্ছে না।

জিবি ব্যবহার করে পাকিস্তানে পারমাণবিক অস্ত্র ও প্রযুক্তি সরবরাহ করতে সক্ষম হয় চীন। এ অঞ্চলে বিশাল মিঠা পানির মজুদ রয়েছে।

এটির মাধ্যমে তিব্বতের সঙ্গে জিনজিয়াংকে চীন সংযুক্ত করেছে। এ অঞ্চল ছাড়া আরব সাগরে চীন প্রবেশ করতে পারবে না।

তিনি বলেন, করোনার কারণে প্রায় একঘরে হয়ে পড়া চীন অন্যত্র নজর ঘোরাতেই বেশি আগ্রহী। তিনি আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে চীনবিরোধী জোটে ভারত শামিল হোক তা বেইজিং চায় না।

এছাড়া এমনও মনে করা হচ্ছে, সীমান্তবর্তী এলাকায় সামরিক প্রয়োজনে ভারতের নানা ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ চীনের অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই ভারতকে তারা একটা বার্তা দিতে চাইছে।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত