বেইজিংয়ের নতুন আইন

চীনা ধনীরা হংকং থেকে সম্পদ অন্যত্র সরিয়ে নিতে চাচ্ছেন

  যুগান্তর ডেস্ক ০৪ জুন ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বেইজিংয়ের প্রস্তাবিত জাতীয় নিরাপত্তা আইনের পর ধনী চীনারা হংকংয়ে খুবই কম তহবিল রাখবেন বলে মনে করা হচ্ছে। এই আইনের ফলে চীনের মূল ভূখণ্ডে কর্তৃপক্ষ তাদের তহবিল খুঁজে বের করে তা জব্দ করতে পারবেন বলে আশঙ্কা রয়েছে। ব্যাংকার ও শিল্পকারখানার সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন খবর জানিয়েছে।

হংকংয়ের ব্যক্তিগত মালিকানার সম্পদের অর্ধেকেরও বেশি এক লাখ কোটি ডলার চীনের মূল ভূখণ্ডের মানুষজনের কাছ থেকে আসা। এসব অর্থ তারা হংকংয়ে রেখে দিয়েছেন। চীনের নৈকট্য থেকে লাভবান হচ্ছে শহরটি। এছাড়া তাদের আইনি ব্যবস্থাও ভিন্ন। হংকংয়ের মুদ্রার মানও ডলারের হিসাবে নির্ধারণ করা। কিন্তু চীনের নতুন আইনের কারণে পুঁজি ও ফ্লাইট সুবিধার দরুন বৈশ্বিক অর্থনীতির কেন্দ্র হিসেবে হংকং তার সুবিধা হারাতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এক ডজন ব্যাংকার ও চাকরিদাতার সঙ্গে কথা বলে রয়টার্স জানিয়েছে, মূল অফশোর সম্পদের জন্য অন্যত্র জায়গা খুঁজছেন চীনা নাগরিকরা। সেক্ষেত্রে সিঙ্গাপুর, সুইজারল্যান্ড ও লন্ডন তাদের তালিকার শীর্ষে রয়েছে। ক্রেডিট সুইস প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৯ সালের মাঝামাঝিতে প্রাপ্তবয়স্কদের গড় সম্পদে সুইজারল্যান্ডের পরেই রয়েছে হংকং। আর ৫০ মিলিয়নেরও বেশি সম্পদ আছে, এমন মানুষদের সংখ্যায় বিশ্বের দশম স্থানে শহরটি। গত বছরের মাঝামাঝি থেকে হংকং ছেড়ে পালানোর সুযোগ খুঁজছেন ধনীরা। সেই সুযোগে বিভিন্ন দেশ তাদের গোল্ডেন ভিসার অফার দেয়। বিভিন্ন দেশের সরকার ধনী হংকংবাসীদের প্রস্তাব দিয়েছিল, ‘আপনারা যদি আমাদের দেশে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেন, তাহলে আপনাকে নাগরিকত্ব দেব।’ অনেকেই এই গোল্ডেন ভিসা অফার নিয়ে আগ্রহ দেখান তখন। এবার হংকং থেকে সম্পদ অন্যত্র সরিয়ে নিতে চাচ্ছেন চীনা ধনীরা। ইউরোপীয় সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানির একজন পরামর্শক বলেন, একজন চীনা ক্লায়েন্ট যিনি হংকংয়ে বিনিয়োগে ঝুঁকির কারণে তার পরিবর্তে এই সপ্তাহে সিঙ্গাপুরে একটি নতুন প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে পাঁচটি অ্যাপার্টমেন্ট কিনেছেন। সিঙ্গাপুরভিত্তিক একজন ব্যাংকার বলেন, তার ব্যাংক হংকংয়ের বাইরে অ্যাকাউন্ট খোলার বিষয়ে চীনা ধনীদের তথ্যের অনুসন্ধান শুরু করেছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত