বিএসএমএমইউকে গণস্বাস্থ্যর চিঠি

অ্যান্টিবডি কিটের অনুমোদনের অনুরোধ

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৪ জুন ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভাইরাস শনাক্তে ‘জিআর র‌্যাপিড ডট ব্লট’ কিটে ত্রুটি নেই বলে জানিয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভিসিকে এ সংক্রান্ত এক চিঠিতে বিষয়টি জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জিআর র‌্যাপিড ডট ব্লট কিটের প্রকল্পের কো-অর্ডিনেটর ডা. মুহিব উল্লাহ খন্দকার। চিঠিতে তিনি অতিদ্রুত এন্টিবডি কিটের কাজ সম্পন্ন করে অনুমোদনের ব্যবস্থা করার অনুরোধ জানান।

চিঠিতে বলা হয়, আমাদের কিটে কোনও ত্রুটি ধরা পড়েনি। ক্রটি ধরা পড়েছে নমুনা সংগ্রহ করার পদ্ধতিতে। নমুনা সংগ্রহের বর্তমান পদ্ধতিতে লালা সংগ্রহ ঠিকমতো হচ্ছে না। এর ফলে কিছু নমুনা থেকে ভাইরাস শনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না। নমুনা সংগ্রহ প্রক্রিয়াকে আরও সমন্বিত ও কার্যকর করার জন্য অ্যান্টিজেন পরীক্ষা বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে। বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে সাময়িক বন্ধ রাখার জন্য। আমরা ইতোমধ্যেই একটি সমন্বিত পদ্ধতি বের করেছি। সেটা দু’-একদিনের মধ্যে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষকে প্রদান করা হবে। ডা. মুহিব উল্লাহ খন্দকার বলেন, ‘আমরা যেভাবে নমুনা সংগ্রহ করেছি, বিএসএমএমইউতে সেভাবে হচ্ছে না। অনেকে নমুনা হিসেবে লালার বদলে কফ দিয়ে যাচ্ছেন। লালা আর কফ এক না। তাই আমরা বলেছি আপাতত একটু বন্ধ রাখুন। আমরা ইতোমধ্যে নতুন যে পদ্ধতি বের করেছি তাতে ৯০ শতাংশ সিমিলারিটি থাকবে। এটাই বিএসএমএমইউকে বলা হয়েছে। বলা হয়নি যে কিটে ত্রুটি আছে। বলা হয়েছে, লালা সংগ্রহটা ঠিকমতো হচ্ছে না। কেউ থুথু দিচ্ছেন, কেউ কফ দিচ্ছেন, যার ফলে সেখান থেকে ভাইরাস তুলে নেয়া যাচ্ছে না। আমরা নমুনা সংগ্রহের জন্য আরেকটা প্রটোকল দিচ্ছি।’ এ বিষয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমরা বিএসএমএমইউকে চিঠি দিয়ে অনুরোধ করেছি ৪০০ কিটের পরীক্ষা করেছেন, আর কত করবেন। আমাদের অন্তত সাময়িক অনুমতি দিন। ওষুধ প্রশাসনকেও চিঠি দিয়েছি। আমাদের অ্যান্টিজেন কিটে কোনো ত্রুটি ধরা পড়েনি। সবকিছুর ইম্প্রভ হয়। আমি যে করোনা পজিটিভ হয়েছি, সেটা আমাদের কিটেই সহজে ধরা পড়েছে। কারণ আমি সঠিক নিয়মে লালা দিয়েছি। কিন্তু মানুষ লালা না দিয়ে কফ, পানের পিক দিলে তো পরীক্ষার ফল ভিন্ন হয়ে যায়।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত