বাতের ব্যথায় গুহা থেরাপি

  যুগান্তর ডেস্ক ২৫ মার্চ ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাতের ব্যথায় গুহা থেরাপি

বাতের ব্যথা জীবনের একটা দীর্ঘ সময় ধরে পীড়া দিতে পারে। সাময়িক স্বস্তি ছাড়া চূড়ান্ত সমাধানের আশা বড়ই কঠিন। জার্মানির এক গুহার বাতাস রোগীদের জন্য স্বস্তি নিয়ে আসছে।

বিজ্ঞানীরা এ বিষয়ে আরও গবেষণা করছেন। রাইনার ব্লুমব্যার্গকে নিয়মিত ডাক্তারের কাছে যেতে হয়। ২৮ বছর বয়স থেকে তিনি ক্রনিক পিঠের ব্যথায় ভুগছেন। এখনও কোনো ওষুধে কাজ হয়নি।

ব্লুমব্যার্গ বলেন, ‘আসলে প্রায় ২৮ বছর ধরে পিঠের ব্যথায় ভুগছি। এখন জানা গেছে, সেটা অ্যাংকিলোসিং স্পন্ডিলাইটিস। তার সঙ্গে গাউট আর অস্টিওপোরোসিসও ধরা পড়েছে।’ ব্লুমব্যার্গের আপাতত একটাই আশা পুরনো এক খনি।

গত শতাব্দীতে শ্রমিকরা এখানে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করতেন। সেখানে এখন বাতের রোগের নিরাময় করা হয়। ইউরেনিয়াম ভাঙলে র‌্যাডন নামের যে তেজস্ক্রিয় গ্যাস সৃষ্টি হয়, সেটাই এই চিকিৎসার চাবিকাঠি। এই গ্যাসের ঘনত্ব বেশি হলে ফুসফুসের ক্যানসার হয়। কিন্তু কম ডোজ বা পরিমাণ আশ্চর্য ফল দিতে পারে।

বাড ক্রয়েৎসনাখ শহরে জার্মানির একমাত্র খনি অবস্থিত, যেখানে পাথরের মধ্যে জমা র‌্যাডন গ্যাস কাজে লাগিয়ে রোগ নিরাময় করা হয়। বাতের রোগীরা নিঃশ্বাসের মাধ্যমে সেখানকার বাতাস গ্রহণ করেন। তাতে আশ্চর্য ফল পাওয়া যায়।

অনেক রোগী বার দশেক সেখানে বসার পর বেশ কয়েক বছরের জন্য বাতের ব্যথা থেকে মুক্তি পেয়েছেন। বাত বিশেষজ্ঞ ড. হান্স ইয়োকেল বলেন, ‘বিংশ শতাব্দীর শুরুতে এই শহরের এক ফার্মাসিস্ট এ গুহার মধ্যে পরীক্ষা চালিয়ে দেখেছিলেন, সেখানে যথেষ্ট পরিমাণ র‌্যাডন রয়েছে। ১৯১২ সাল থেকে তিনি সেখানে চিকিৎসা শুরু করেন।’

র‌্যাডন শরীরের ওপর ঠিক কী প্রভাব রাখে, তা আজও জানা যায়নি। ডার্মস্টাট শহরে হেল্মহলৎস ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানীরা র‌্যাডন বিকিরণ থেরাপির প্রভাব ও ঝুঁকি পরীক্ষা করতে চান। বায়ো পদার্থবিদ ড. ক্লাউডিয়া ফুর্নিয়ে বলেন, ‘অন্যদিকে তথাকথিত র‌্যাডন সুইমিং পুলে অনেক কম ডোজে থাকে। অথবা গুহার মধ্যে সরাসরি নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে ক্রনিক রোগীরা তা গ্রহণ করতে পারেন।’

গবেষকরা তাদের গবেষণার জন্য আলাদা একটি র‌্যাডন কামরা তৈরি করেছেন। সেখানে ইঁদুরদের বাত সারাতে তাদের ওপর বিকিরণ করা হয়। র‌্যাডন ডিকম্পোজিশন বা ভাঙনের ফলে যে পদার্থ সৃষ্টি হয়, তা নিয়েও গবেষকদের আগ্রহ রয়েছে।

সেগুলো শরীরের মধ্যে জমা হয় ও তেজস্ক্রিয় বিকিরণ ঘটায়। গবেষকদের অনুমান, এই আলফা-বিকিরণ শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা চাঙ্গা করে তোলে।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter