লেবাননে দ্রুত নতুন সরকার গঠনের আহ্বান ফ্রান্সের

  যুগান্তর ডেস্ক ১২ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

লেবাননে দ্রুত নতুন সরকারের গঠনের আহ্বান জানিয়েছে ফ্রান্স। দেশটি বলেছে, অর্থনৈতিক ও প্রশাসনিক সংস্কারের ক্ষেত্রে লেবাননের নাগরিকদের আকাঙ্ক্ষা অবশ্যই পূরণ করা উচিত।

সোমবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় লেবানেরর প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব তার সরকারের পদত্যাগের ঘোষণার পরপরই ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জিয়ান-ইভেস লি ড্রিয়ান এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানান। খবর এএফপি।

ইভেস বলেন, ‘এখন দ্রুত এমন একটি সরকার গঠনে অগ্রাধিকার দিতে হবে, যে সরকার জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণ করতে পারে। আর এ সরকারের লক্ষ্য হবে দ্রুত বিধ্বস্ত বৈরুত পুনর্গঠন করার পাশাপাশি সংস্কার কাজ করা।’

৪ জুলাই বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে দুই শতাধিক লোক নিহত এবং ৫ হাজারের বেশি আহত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে দেশব্যাপী ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে সোমবার হাসান দিয়াবের সরকার পদত্যাগ করে। জানুয়ারিতে মিলিশিয়া সংগঠন হিজবুল্লাহ ও ইরানের সমর্থনে দিয়াবের সরকার গঠিত হয়েছিল।

বিশ্লেষকরা মনে করছেন, জনঅসন্তোষের মুখে দিয়াব সরকার পদত্যাগের ঘোষণা দিলেও মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটির রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অস্থিরতা সহসাই মিটছে না। কারণ লেবাননের অধিকাংশ মানুষ রাষ্ট্রপরিচালনায় নতুন নেতৃত্ব চান। নতুন নেতৃত্ব ছাড়া বর্তমান সংকটের খুব সামান্যই সমাধান হবে।

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের ঝুঁকি সম্পর্কে আগেই সতর্ক করা হয়েছিল : বৈরুত বন্দরের গুদামে থাকা ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের নিরাপত্তা ঝুঁকি সম্পর্কে গত মাসেই নিরাপত্তা কর্মকর্তারা লেবাননের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে সতর্ক করেছিলেন। মজুদ এ বিপুল পরিমাণ রাসায়নিক পদার্থ কোনো কারণে বিস্ফোরিত হলে পুরো রাজধানী ধ্বংস হয়ে যেতে পারে সে হুশিয়ারি দিয়েছিলেন তারা।

দুই সপ্তাহ পর তাদের আশঙ্কাকে সত্যি প্রমাণিত করে প্রবল বিস্ফোরণে বৈরুত বন্দরের বেশিরভাগ অংশই নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে, প্রাণ কেড়ে নিয়েছে অন্তত ২২০ জনের, আহত ছাড়িয়েছে ৬ হাজার। শহরটির প্রায় ৬ হাজার ভবনও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বন্দরে পড়ে থাকা বিস্ফোরক পদার্থ নিয়ে নিরাপত্তা কর্মকর্তারা যে জুলাইয়েই লেবাননের নেতাদের সতর্ক করেছিলেন, সে সংক্রান্ত বেশ কিছু নথি দেখেছেন তারা। দেশটির ঊর্ধ্বতন নিরাপত্তা কর্মকর্তাও দুই সপ্তাহ আগেই মজুদ অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিয়ে প্রেসিডেন্ট-প্রধানমন্ত্রীকে সতর্ক করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

লেবাননের রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা অধিদফতর ২০ জুলাই প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন ও প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াবকে বন্দরে মজুদ রাসায়নিক পদার্থ নিয়ে প্রতিবেদন পাঠিয়েছিল। ওই প্রতিবেদনের মধ্যে একটি চিঠিও ছিল।

লেবাননের একজন ঊর্ধ্বতন নিরাপত্তা কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠিতে জানুয়ারিতে শুরু হওয়া একটি বিচার বিভাগীয় তদন্তের সংক্ষিপ্ত সার ছিল, যাতে বন্দরে পড়ে থাকা বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিতে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার তাগিদ দেয়া হয়েছিল।

তবে লেবাননের ওই ঊর্ধ্বতন নিরাপত্তা কর্মকর্তার বক্তব্যের সত্যতা নিশ্চিত করতে পারেনি রয়টার্স। ২০ জুলাইয়ের চিঠি নিয়ে প্রেসিডেন্ট আউন ও প্রধানমন্ত্রী দিয়াবের দফতরের মন্তব্য চাওয়া হলেও তাতেও সাড়া মেলেনি।

প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে এভাবে সতর্ক করার বিষয়টি সত্য হলে তা লেবাননের বর্তমান পরিস্থিতিকে আরও অগ্নিগর্ভ করে তুলতে পারে বলে আশঙ্কা পর্যবেক্ষকদের। বিশ্লেষকদের ধারণা, সরকারের অবহেলা ও দুর্নীতির কারণে এমনিতেই বেহাল লেবাননের অর্থনীতি বিস্ফোরণের পর আরও সংকটে পড়বে।

ঘটনাপ্রবাহ : লেবাননে বিস্ফোরণ

আরও

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত