বিমানের টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে বিক্ষোভ
jugantor
শেষের পথে ভিসার মেয়াদ : বিপাকে প্রবাসীরা
বিমানের টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে বিক্ষোভ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মতিঝিলে বিমান বাংলাদেশে এয়ারলাইন্সের টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে বিক্ষোভ করেছেন সৌদি আরব থেকে ছুটিতে এসে আটকে পড়া প্রবাসীরা। সোমবার দুপুরে বিমানের অফিসে ঢুকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের গালাগাল করেন তারা। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সের ঢাকা থেকে ফ্লাইট বাতিল করার প্রতিবাদে তারা বিক্ষোভ করেন।

সোমবার সকাল থেকেই মতিঝিলে বিমানের অফিসের সামনে জড়ো হতে থাকেন প্রবাসীরা। সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সে ফ্লাইট বাতিলের জন্য বিমানকে দুষছেন তারা। এরপর দুপুর ২টার দিকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান নেন অনেক প্রবাসী। সেখানেও বিক্ষোভ করেন তারা।

এ সময় তারা ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ায় বিপাকে পড়ার কথা জানান। এদিকে সোনারগাঁও হোটেলের পাশে সৌদি এয়ারলাইন্সের অফিসে ভিড় করেন টিকেট প্রত্যাশীরা। সেখানে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন সহস্রাধিক প্রবাসী। ১৬ বছর সৌদিতে কাজ করা গোপাল সরকার বলেন, সেখানে আমার ২৫ লাখ টাকা আছে। কিন্তু আমি যেতে পারছি না। কারণ ৩০ তারিখ ভিসার মেয়াদ শেষ।

এখন কী হবে- সেই চিন্তায় স্ট্রোক করার মতো অবস্থায় আছি। হাফিজুর রহমান নামের আরেক প্রবাসী বলেন, দেশে আটকে পড়াদের দ্রুত সৌদি যাওয়ার ব্যবস্থা করা হোক। বিমানের কাছে যারা টিকেট পাবেন, তাদের টাকা ফেরত দেয়া হোক। দুর্নীতিবাজ ও চাটুকার বিমান একটি লস প্রজেক্ট।

আরেক প্রবাসী জানান, তাদের কারও ভিসা শেষ, কারও দুই একদিন মেয়াদ আছে, কারও আকামা শেষ। ৮-৯টা মাস এভাবে আছেন তারা। কেউ এক পয়সা সাহায্য করেনি। নিজেদের জমানো টাকাও শেষ। এখন ফিরে যেতে না পারলে চাকরি হারাবেন।

বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত তারা আমাদের অনুমতি না দিবে, ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা যাত্রীদের টিকেট দিতে পারছি না। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছে, চিঠি দিয়েছে, যোগাযোগ করছে।

তাদের ফিরে যাওয়ার ব্যাপারে আমাদের আন্তরিকতায় কোনো অভাব নেই। যাদের মার্চ মাসে সৌদিতে ফিরে যাওয়ার কথা ছিল, তাদের টিকিটগুলো আগে দিব, রিকনফার্ম করব, কিন্তু এর বিনিময়ে কোনো পয়সা নেয়া হবে না। বিশেষ ফ্লাইট চলবে।

শেষের পথে ভিসার মেয়াদ : বিপাকে প্রবাসীরা

বিমানের টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে বিক্ষোভ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মতিঝিলে বিমান বাংলাদেশে এয়ারলাইন্সের টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে বিক্ষোভ করেছেন সৌদি আরব থেকে ছুটিতে এসে আটকে পড়া প্রবাসীরা। সোমবার দুপুরে বিমানের অফিসে ঢুকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের গালাগাল করেন তারা। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সের ঢাকা থেকে ফ্লাইট বাতিল করার প্রতিবাদে তারা বিক্ষোভ করেন।

সোমবার সকাল থেকেই মতিঝিলে বিমানের অফিসের সামনে জড়ো হতে থাকেন প্রবাসীরা। সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সে ফ্লাইট বাতিলের জন্য বিমানকে দুষছেন তারা। এরপর দুপুর ২টার দিকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান নেন অনেক প্রবাসী। সেখানেও বিক্ষোভ করেন তারা।

এ সময় তারা ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ায় বিপাকে পড়ার কথা জানান। এদিকে সোনারগাঁও হোটেলের পাশে সৌদি এয়ারলাইন্সের অফিসে ভিড় করেন টিকেট প্রত্যাশীরা। সেখানে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন সহস্রাধিক প্রবাসী। ১৬ বছর সৌদিতে কাজ করা গোপাল সরকার বলেন, সেখানে আমার ২৫ লাখ টাকা আছে। কিন্তু আমি যেতে পারছি না। কারণ ৩০ তারিখ ভিসার মেয়াদ শেষ।

এখন কী হবে- সেই চিন্তায় স্ট্রোক করার মতো অবস্থায় আছি। হাফিজুর রহমান নামের আরেক প্রবাসী বলেন, দেশে আটকে পড়াদের দ্রুত সৌদি যাওয়ার ব্যবস্থা করা হোক। বিমানের কাছে যারা টিকেট পাবেন, তাদের টাকা ফেরত দেয়া হোক। দুর্নীতিবাজ ও চাটুকার বিমান একটি লস প্রজেক্ট।

আরেক প্রবাসী জানান, তাদের কারও ভিসা শেষ, কারও দুই একদিন মেয়াদ আছে, কারও আকামা শেষ। ৮-৯টা মাস এভাবে আছেন তারা। কেউ এক পয়সা সাহায্য করেনি। নিজেদের জমানো টাকাও শেষ। এখন ফিরে যেতে না পারলে চাকরি হারাবেন।

বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত তারা আমাদের অনুমতি না দিবে, ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা যাত্রীদের টিকেট দিতে পারছি না। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছে, চিঠি দিয়েছে, যোগাযোগ করছে।

তাদের ফিরে যাওয়ার ব্যাপারে আমাদের আন্তরিকতায় কোনো অভাব নেই। যাদের মার্চ মাসে সৌদিতে ফিরে যাওয়ার কথা ছিল, তাদের টিকিটগুলো আগে দিব, রিকনফার্ম করব, কিন্তু এর বিনিময়ে কোনো পয়সা নেয়া হবে না। বিশেষ ফ্লাইট চলবে।