গৌরীপুরে জাকের পার্টির নেতাকে গলা টিপে হত্যা
jugantor
রাস্তা নিয়ে বিরোধ
গৌরীপুরে জাকের পার্টির নেতাকে গলা টিপে হত্যা

  গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

৩০ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে স্ত্রী ও সন্তানদের সামনে জাকের পার্টির এক নেতাকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তার নাম আবদুল মোতালেব (৬০)। তিনি জাকের পার্টি সহনাটী ইউনিয়ন শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, আবদুল মোতালেবের সঙ্গে রাস্তা নিয়ে প্রতিবেশী খোকন মিয়া, চান মিয়া ও সুরুজ আলীর বিরোধ চলছিল। সকালে দু’পক্ষের মধ্যে রাস্তা নিয়ে বাকবিতণ্ডা চলছিল। একপর্যায়ে আবদুল মোতালেবকে খোকন ঝাপটে ধরে। এরপর গলা টিপে ধরে উপরে উঠিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোতালেবের মৃত্যু হয়। নিহতের স্ত্রী আনোয়ারা খাতুন জানান, সকালে রাস্তা নিয়ে সন্তানদের সঙ্গে খোকন মিয়ার তর্কাতর্কি হচ্ছিল। শব্দ শুনে তার স্বামী সেখানে যান। যাওয়া মাত্রই তার স্বামীকে খোকন মিয়া ঝাপটে ধরে। এরপর গলা চেপে উপরের দিকে তুলে হত্যা করে। তিনি বলেন, আমার স্বামী বলেছিলেন সরকারি নির্ধারিত জায়গা দিয়ে রাস্তা নিতে। অথবা দু’পক্ষের জমিতে রাস্তা করতে। কিন্তু ওরা সেটা মানেনি।

নিহতের ছেলে জুয়েল মিয়া বলেন, বাবাকে বাঁচাতে চেয়েছিলাম। কিন্তু ওরা আমাকে আটকে রেখে কিলঘুষি দিতে থাকে। চোখের সামনে বাবার মৃত্যু দেখলাম। কিন্তু বাঁচাতে পারলাম না।

সহনাটী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান জানান, রাস্তা সংক্রান্ত তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে এমন মৃত্যু বেদনাদায়ক।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ বোরহান উদ্দিন সন্ধ্যায় জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের চেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। আটকরা হলেন- খোকন মিয়া, মো. চান মিয়া ও মো. সুরুজ আলী।

এদিকে গলাটিপে হত্যার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন খোকন মিয়া। তিনি বলেন, হোঁচট খেয়ে পড়ে ইটের সঙ্গে আঘাত লেগে মোতালেবের মৃত্যু হয়েছে।

রাস্তা নিয়ে বিরোধ

গৌরীপুরে জাকের পার্টির নেতাকে গলা টিপে হত্যা

 গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
৩০ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে স্ত্রী ও সন্তানদের সামনে জাকের পার্টির এক নেতাকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তার নাম আবদুল মোতালেব (৬০)। তিনি জাকের পার্টি সহনাটী ইউনিয়ন শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, আবদুল মোতালেবের সঙ্গে রাস্তা নিয়ে প্রতিবেশী খোকন মিয়া, চান মিয়া ও সুরুজ আলীর বিরোধ চলছিল। সকালে দু’পক্ষের মধ্যে রাস্তা নিয়ে বাকবিতণ্ডা চলছিল। একপর্যায়ে আবদুল মোতালেবকে খোকন ঝাপটে ধরে। এরপর গলা টিপে ধরে উপরে উঠিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোতালেবের মৃত্যু হয়। নিহতের স্ত্রী আনোয়ারা খাতুন জানান, সকালে রাস্তা নিয়ে সন্তানদের সঙ্গে খোকন মিয়ার তর্কাতর্কি হচ্ছিল। শব্দ শুনে তার স্বামী সেখানে যান। যাওয়া মাত্রই তার স্বামীকে খোকন মিয়া ঝাপটে ধরে। এরপর গলা চেপে উপরের দিকে তুলে হত্যা করে। তিনি বলেন, আমার স্বামী বলেছিলেন সরকারি নির্ধারিত জায়গা দিয়ে রাস্তা নিতে। অথবা দু’পক্ষের জমিতে রাস্তা করতে। কিন্তু ওরা সেটা মানেনি।

নিহতের ছেলে জুয়েল মিয়া বলেন, বাবাকে বাঁচাতে চেয়েছিলাম। কিন্তু ওরা আমাকে আটকে রেখে কিলঘুষি দিতে থাকে। চোখের সামনে বাবার মৃত্যু দেখলাম। কিন্তু বাঁচাতে পারলাম না।

সহনাটী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান জানান, রাস্তা সংক্রান্ত তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে এমন মৃত্যু বেদনাদায়ক।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ বোরহান উদ্দিন সন্ধ্যায় জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের চেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। আটকরা হলেন- খোকন মিয়া, মো. চান মিয়া ও মো. সুরুজ আলী।

এদিকে গলাটিপে হত্যার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন খোকন মিয়া। তিনি বলেন, হোঁচট খেয়ে পড়ে ইটের সঙ্গে আঘাত লেগে মোতালেবের মৃত্যু হয়েছে।