করোনার মধ্যেই নির্বাচনী উত্তাপ
jugantor
বরিশালের ৬ পৌরসভা
করোনার মধ্যেই নির্বাচনী উত্তাপ
মেয়র প্রাথী হতে আ’লীগ-বিএনপির কয়েক ডজন নেতা মাঠে

  সাইদুর রহমান পান্থ, বরিশাল  

২৩ নভেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশালে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেই উত্তেজনা ছড়াচ্ছে পৌরসভা নির্বাচন। জেলার ৬ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হতে জোর তৎপরতা শুরু করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কয়েক ডজন নেতা। তবে নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি থেকে প্রার্থী হতে আগ্রহীদের তেমন তৎপরতা লক্ষ করা যাচ্ছে না।

তারা দলীয় সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছেন। দলের সিগন্যাল পেলেই তারা মাঠে নামবেন। এরপরও দুই-তিনটি পৌরসভায় বিএনপি নেতাদের গণসংযোগ লক্ষ করা যাচ্ছে। প্রার্থী হতে আগ্রহীরা ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাওয়া শুরু করে দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ সভা-সমাবেশও করছেন।

বাড়ি, পাড়া-মহল্লা, হাটবাজার-সর্বত্র নির্বাচন নিয়ে আলোচনা। বসে নেই কাউন্সিল প্রার্থী হতে আগ্রহীরাও। গণসংযোগ, মিছিল, কর্মিসভা ও উঠান বৈঠক শুরু করেছেন তারা। গৌরনদী পৌরসভায় বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হারিচুর রহমান।

তিনি ছাড়াও এখানে মনোনয়ন পেতে মাঠে আছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এইচএম জয়নাল আবেদিন ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মনির হোসেন মিয়া।

এই পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম ফকির ও যুবদলের সভাপতি সফিকুর রহমান স্বপন শরীফ। পাশাপাশি দুই দলের আরও কয়েক নেতা প্রার্থী হতে চান।

মুলাদী পৌরসভার বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সফিকউজ্জামান রুবেল।

তিনি ছাড়াও এখানে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন হিরন, উপজেলা কৃষক লীগ সভাপতি আবদুর রব মুন্সি, আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাহলে উদ্দিন হাওলাদার, মোসলেম উদ্দিন বয়াতি, শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক দিদারুল আহসান খান, যুবলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য দেলোয়ার হোসেন হাওলাদার, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসেন তালুকদার প্রার্থী হতে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাবেক সভাপতি সেমিল চৌকিদার মেয়র পদে প্রার্থী হতে চান। তবে এই পৌরসভায় বিএনপির কোনো তৎপরতা লক্ষ করা যাচ্ছে না।

বাকেরগঞ্জ পৌরসভার বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন ডাকুয়া। তিনি ছাড়াও এখানে প্রার্থী হতে আগ্রহী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দিন মাঝি, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি মশিউর রহমান জোমাদ্দার ও ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ রিপন।

এখানে বিএনপির মনোনয়ন পেতে মাঠে রয়েছেন পৌর বিএনপির সভাপতি নাসির উদ্দিন জোমাদ্দার, সাবেক সভাপতি মতিউর রহমান মোল্লা, শাহিন তালুকদার ও ছাত্রদল নেতা কামরুল ইসলাম রাজিব। জাতীয় পার্টি থেকে এখানে মেয়র পদে লড়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য নাসরিন জাহান রত্নার কন্যা ব্যারিস্টার ফারহা ফিজা বিনতে আমিন।

বানারীপাড়া পৌরসভার বর্তমান মেয়র জেলা আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র শিল। এখানে মেয়র প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহমুদ হোসেন মাখন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সুব্রত লাল কুণ্ডু, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি ওয়াহিদুজ্জামান দুলাল ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউল হক মিন্টু।

আর বিএনপির মনোনয়ন পেতে মাঠে রয়েছেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ আহম্মেদ মৃধা ও পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম।

মেহেন্দিগঞ্জের বর্তমান পৌর মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিন খান। তিনি ছাড়াও এখানে দলীয় মনোনয়ন পেতে মাঠে নেমেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম ভুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান রিপন, সহ-সম্পাদক আবদুল জব্বার কানন, যুবলীগ সভাপতি পারভেজ চান ও পৌর কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর হোসেন।

এখানে বিএনপির প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন দিপেন, পৌর বিএনপির সভাপতি জিয়া উদ্দিন সুজন ও ইঞ্জিনিয়ার গাজী মো. জাহাঙ্গীর।

উজিরপুর পৌরসভার বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারি। তিনি ছাড়াও এখানে মেয়র পদে দলের মনোনয়ন চান উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হেমায়েত উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি অশোক কুমার হাওলাদার, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহ্বায়ক ইকবাল হোসেন বালি ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামাল হোসেন সবুজ। এখানে মেয়র প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খান ও উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিকুজ্জামান লিটন।

বরিশালের ৬ পৌরসভা

করোনার মধ্যেই নির্বাচনী উত্তাপ

মেয়র প্রাথী হতে আ’লীগ-বিএনপির কয়েক ডজন নেতা মাঠে
 সাইদুর রহমান পান্থ, বরিশাল 
২৩ নভেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশালে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেই উত্তেজনা ছড়াচ্ছে পৌরসভা নির্বাচন। জেলার ৬ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হতে জোর তৎপরতা শুরু করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কয়েক ডজন নেতা। তবে নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি থেকে প্রার্থী হতে আগ্রহীদের তেমন তৎপরতা লক্ষ করা যাচ্ছে না।

তারা দলীয় সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছেন। দলের সিগন্যাল পেলেই তারা মাঠে নামবেন। এরপরও দুই-তিনটি পৌরসভায় বিএনপি নেতাদের গণসংযোগ লক্ষ করা যাচ্ছে। প্রার্থী হতে আগ্রহীরা ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাওয়া শুরু করে দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ সভা-সমাবেশও করছেন।

বাড়ি, পাড়া-মহল্লা, হাটবাজার-সর্বত্র নির্বাচন নিয়ে আলোচনা। বসে নেই কাউন্সিল প্রার্থী হতে আগ্রহীরাও। গণসংযোগ, মিছিল, কর্মিসভা ও উঠান বৈঠক শুরু করেছেন তারা। গৌরনদী পৌরসভায় বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হারিচুর রহমান।

তিনি ছাড়াও এখানে মনোনয়ন পেতে মাঠে আছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এইচএম জয়নাল আবেদিন ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মনির হোসেন মিয়া।

এই পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম ফকির ও যুবদলের সভাপতি সফিকুর রহমান স্বপন শরীফ। পাশাপাশি দুই দলের আরও কয়েক নেতা প্রার্থী হতে চান।

মুলাদী পৌরসভার বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সফিকউজ্জামান রুবেল।

তিনি ছাড়াও এখানে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন হিরন, উপজেলা কৃষক লীগ সভাপতি আবদুর রব মুন্সি, আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাহলে উদ্দিন হাওলাদার, মোসলেম উদ্দিন বয়াতি, শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক দিদারুল আহসান খান, যুবলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য দেলোয়ার হোসেন হাওলাদার, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসেন তালুকদার প্রার্থী হতে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাবেক সভাপতি সেমিল চৌকিদার মেয়র পদে প্রার্থী হতে চান। তবে এই পৌরসভায় বিএনপির কোনো তৎপরতা লক্ষ করা যাচ্ছে না।

বাকেরগঞ্জ পৌরসভার বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন ডাকুয়া। তিনি ছাড়াও এখানে প্রার্থী হতে আগ্রহী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দিন মাঝি, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি মশিউর রহমান জোমাদ্দার ও ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ রিপন।

এখানে বিএনপির মনোনয়ন পেতে মাঠে রয়েছেন পৌর বিএনপির সভাপতি নাসির উদ্দিন জোমাদ্দার, সাবেক সভাপতি মতিউর রহমান মোল্লা, শাহিন তালুকদার ও ছাত্রদল নেতা কামরুল ইসলাম রাজিব। জাতীয় পার্টি থেকে এখানে মেয়র পদে লড়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য নাসরিন জাহান রত্নার কন্যা ব্যারিস্টার ফারহা ফিজা বিনতে আমিন।

বানারীপাড়া পৌরসভার বর্তমান মেয়র জেলা আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র শিল। এখানে মেয়র প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহমুদ হোসেন মাখন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সুব্রত লাল কুণ্ডু, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি ওয়াহিদুজ্জামান দুলাল ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউল হক মিন্টু।

আর বিএনপির মনোনয়ন পেতে মাঠে রয়েছেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ আহম্মেদ মৃধা ও পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম।

মেহেন্দিগঞ্জের বর্তমান পৌর মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিন খান। তিনি ছাড়াও এখানে দলীয় মনোনয়ন পেতে মাঠে নেমেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম ভুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান রিপন, সহ-সম্পাদক আবদুল জব্বার কানন, যুবলীগ সভাপতি পারভেজ চান ও পৌর কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর হোসেন।

এখানে বিএনপির প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন দিপেন, পৌর বিএনপির সভাপতি জিয়া উদ্দিন সুজন ও ইঞ্জিনিয়ার গাজী মো. জাহাঙ্গীর।

উজিরপুর পৌরসভার বর্তমান মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারি। তিনি ছাড়াও এখানে মেয়র পদে দলের মনোনয়ন চান উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হেমায়েত উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি অশোক কুমার হাওলাদার, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহ্বায়ক ইকবাল হোসেন বালি ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামাল হোসেন সবুজ। এখানে মেয়র প্রার্থী হতে মাঠে রয়েছেন পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খান ও উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিকুজ্জামান লিটন।