প্রাক-বাজেট আলোচনায় এনবিআর চেয়ারম্যান

বাড়ির মালিকদের করের আওতায় আনা হবে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১০ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এনবিআর

রাজধানী ঢাকার বাড়ির মালিকদের অনেকেই কর দেন না। করজাল বাড়াতে এসব বাড়িওয়ালাকে আগামীতে করের আওতায় আনা হবে। বাজেটে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া যায় কিনা না, ভেবে দেখা হবে। সেটি সম্ভব না হলে বাজেটের পর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সোমবার ব্যবসায়ী ও পেশাজীবী সংগঠনের সঙ্গে প্রাক-বাজেট আলোচনায় এ কথা জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। এনবিআরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সভায় পেশাজীবী সংগঠন, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন, ফ্রেইট ফরোয়াডার্স অ্যাসোসিয়েশন, শিপ বিল্ডিং অ্যাসোসিয়েশন ও শিপ ব্রেকিং অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সভার শুরুতে ঢাকা ট্যাক্স বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আবদুল মতিন রাজস্ব আদায় বাড়াতে করজাল বাড়ানোর পরামর্শ দিয়ে বলেন, ঢাকার বাড়িওয়ালাদের অনেকে করের আওতায় নেই। এদের করের আওতায় আনতে সিটি কর্পোরেশনের হোল্ডিং ট্যাক্স জমা দেয়ার সময় আয়কর রিটার্নের সনদপত্র জমা দেয়া বাধ্যতামূলক করা উচিত। তাহলে করদাতার সংখ্যা বাড়বে। এ ছাড়া আয়কর বিভাগের জনবল বৃদ্ধি এবং ট্রেড লাইসেন্স গ্রহণ ও নবায়নের সময় আয়কর সনদপত্র বাধ্যতামূলক করা যেতে পারে।

জবাবে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, করজাল বাড়াতে এনবিআর নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছে। বাজেটের মধ্যে অথবা পরে বাড়িওয়ালাদের কীভাবে করের আওতায় আনা যায় সেটি ভেবে দেখা হবে।

আবদুল মতিন আরও বলেন, ফ্ল্যাট রেজিস্ট্রেশনের করহার বেশি। তাই অনেকে ফ্ল্যাট কিনেও রেজিস্ট্রেশন করছেন না। এতে সরকার বিপুল রাজস্ব হারাচ্ছে। এ ছাড়া সাইনিং মানির (জমির মালিকদের সঙ্গে ডেভেলপারদের চুক্তি) ওপর ১৫ শতাংশ উৎসে কর আরোপ করা আছে, কিন্তু জমি বিক্রিতে ৪ শতাংশ কর আছে। এতে একদিকে ট্যাক্স ফাঁকি হচ্ছে, অন্যদিকে কালো টাকার উৎপত্তি হচ্ছে।

শিপ ব্রেকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সচিব মো. সিদ্দিক বলেন, জাহাজ ভাঙা শিল্পের ওপর দ্বৈত করারোপ করা হচ্ছে। প্রথমে পুরনো জাহাজ কেনার পর ওজনের ওপর শুল্ক-কর দিতে হচ্ছে। পরে আবার জাহাজের ভেতরে থাকা মালামাল যেমন ফ্রিজ, টিভি ও জেনারেটরের ওপর নির্ধারিত হারে শুল্ক-কর আদায় করা হচ্ছে। এসব অসঙ্গতি দূর করা উচিত। এ ছাড়া জাহাজের ওপর টনপ্রতি স্পেসিফিক ডিউটি ১৫শ’ ও অগ্রিম আয়কর ৮০০ টাকা থেকে কমানোর দাবি জানান তিনি।

এক্সপোর্ট ওরিয়েন্ট শিপ বিল্ডিং ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আবদুল্লাহ হেল বারী বলেন, বর্তমানে রফতানিমুখী জাহাজ নির্মাণ শিল্প প্রতিকূল পরিবেশ পার করছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে শুল্ক-কর ছাড় দেয়া প্রয়োজন। এ ছাড়া দেশীয় যেসব কোম্পানির জাহাজ বিদেশে মালামাল পরিবহন করে, তাদের কাছে জাহাজ বিক্রিকে রফতানি হিসেবে গণ্য করার দাবি জানান।

ইন্সটিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশের (আইসিএসবি) প্রতিনিধি বলেন, বিদেশিরা অন অ্যারাইভাল ভিসা নিয়ে বাংলাদেশে এসে কলসালটেন্সি করে টাকা বিদেশে নিয়ে যাচ্ছে। অথচ বাংলাদেশিরা বিদেশে কলসালটেন্সি করে রেমিটেন্স আনলে তার ওপর ট্যাক্স কাটা হচ্ছে। জবাবে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, প্রকৃতপক্ষেই বিদেশিরা এসে কাজ করে চলে যাচ্ছে। এ বিষয়ে নীতিমালা থাকা দরকার।

সবশেষে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, বাজেট করার সময় রাজস্ব আয়ের বিষয় মাথায় রাখতে হয়। সরকার বড় বড় প্রকল্প নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়ন করছে। এ জন্য প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। এ অর্থের জোগান দিতে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বাড়াতে হবে। অনেকে মনে করেন, কর বেশি দিচ্ছেন। কিন্তু তারপরও পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের কর-জিডিপি অনুপাত কম।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের বছর হলেও এ বছর বাজেট প্রণয়নে ধারাবাহিকতা বজায় রাখার চেষ্টা করা হবে। কল্যাণকর বাজেট দেয়ার চেষ্টা করব। প্রাক-বাজেট আলোচনায় শুল্কনীতির সদস্য ফিরোজ শাহ আলম, ভ্যাটনীতির সদস্য রেজাউল হাসান ও আয়কর নীতির সদস্য কানন কুমার রায়সহ এনবিআরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.