দিনাজপুরের ৬ পুলিশ সদস্য চাকরিচ্যুত
jugantor
ডোপ টেস্টে মাদক শনাক্ত
দিনাজপুরের ৬ পুলিশ সদস্য চাকরিচ্যুত

  দিনাজপুর প্রতিনিধি  

০৫ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে দিনাজপুর জেলা পুলিশ। আর এ জন্য প্রথমে নিজেদের মধ্যেই শুরু করেছে শুদ্ধি অভিযান। এ শুদ্ধি অভিযানের প্রথম ধাপে ডোপ টেস্টের মাধ্যমে শরীরে মাদকের নমুনা পাওয়া যাওয়ায় দিনাজপুরের ৬ পুলিশ কনস্টেবলকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করেছে জেলা পুলিশ।

দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, সমাজকে মাদকমুক্ত করতে বদ্ধ পরিকর পুলিশ। আর সমাজকে মাদকমুক্ত করতে গেলে আগে নিজেদের মাদকমুক্ত রাখতে হবে। এ জন্যই নিজেদের মধ্যে শুরু হয়েছে শুদ্ধি অভিযান। শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসেবে গত ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের পর প্রথম ধাপে দিনাজপুর জেলার ৩৪ পুলিশ সদস্যের ডোপ টেস্ট করা হয়।

এ ৩৪ জনের মধ্যে ৬ জনের শরীরে মাদকের নমুনা শনাক্ত হয়। পরবর্তীতে আরও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে গত ৩১ ডিসেম্বর ওই ৬ পুলিশ কনস্টেবলকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করা হয়। তিনি জানান, দ্বিতীয় ধাপে আরও ডোপ টেস্টের প্রক্রিয়া চলছে। এ টেস্টে কোনো পুলিশ সদস্যের মধ্যে মাদক শনাক্ত হলে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। ক্রমান্বয়ে জেলার সব পুলিশ সদস্যের ডোপ টেস্ট করা হবে বলে জানান তিনি।

পুলিশ সুপার জানান, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের নির্দেশনা অনুযায়ী মাদকের বিরুদ্ধে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। তবে চাকরিচ্যুতরা যাতে পারিবারিক ও সামাজিকভাবে হেয় না হয়, সেজন্য তাদের নাম প্রকাশ করতে চাননি পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন।

ভারত সীমান্তবেষ্টিত জেলা হওয়ায় মাদকের ভয়াল থাবার মধ্যে রয়েছে দিনাজপুর জেলা। দীর্ঘদিন থেকে মাদক আচ্ছন্ন করে রয়েছে এ জেলায়। দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে চোরাপথে ভারত থেকে অবাধে দেশে প্রবেশ করে ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন মাদক। সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে আসা এসব মাদকের আংশিক অংশ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে ধরা পড়লেও অধিকাংশ মাদক ছড়িয়ে পড়ে দিনাজপুর জেলায় এবং দেশের বিভিন্ন স্থানে।

আর এ অবস্থায় সীমান্তে মাদক চোরাকারবারিরা হয়ে পড়েছে বেপরোয়া। মাদকের টাকা নিয়ে গত ১১ ডিসেম্বর দিনাজপুরের বিরামপুর সীমান্তে বাংলাদেশ ও ভারতের মাদক চোরাকারবারিদের মধ্যে সংঘর্ষও হয়। সংঘর্ষে ভারতের একজন মাদক ব্যবসায়ী নিহত ও বাংলাদেশের দু’জন গুরুতর আহত হয়েছে।

এই অবস্থায় মাদকের ব্যাপকতা কমিয়ে আনতে এবং সমাজকে মাদকমুক্ত করতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে দিনাজপুর জেলা পুলিশ। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান, তারা মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন। মাদকের ব্যাপারে কাউকে কোনো ছাড় দেয়া হবে না বলে জানান তিনি।

ডোপ টেস্টে মাদক শনাক্ত

দিনাজপুরের ৬ পুলিশ সদস্য চাকরিচ্যুত

 দিনাজপুর প্রতিনিধি 
০৫ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে দিনাজপুর জেলা পুলিশ। আর এ জন্য প্রথমে নিজেদের মধ্যেই শুরু করেছে শুদ্ধি অভিযান। এ শুদ্ধি অভিযানের প্রথম ধাপে ডোপ টেস্টের মাধ্যমে শরীরে মাদকের নমুনা পাওয়া যাওয়ায় দিনাজপুরের ৬ পুলিশ কনস্টেবলকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করেছে জেলা পুলিশ।

দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, সমাজকে মাদকমুক্ত করতে বদ্ধ পরিকর পুলিশ। আর সমাজকে মাদকমুক্ত করতে গেলে আগে নিজেদের মাদকমুক্ত রাখতে হবে। এ জন্যই নিজেদের মধ্যে শুরু হয়েছে শুদ্ধি অভিযান। শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসেবে গত ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের পর প্রথম ধাপে দিনাজপুর জেলার ৩৪ পুলিশ সদস্যের ডোপ টেস্ট করা হয়।

এ ৩৪ জনের মধ্যে ৬ জনের শরীরে মাদকের নমুনা শনাক্ত হয়। পরবর্তীতে আরও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে গত ৩১ ডিসেম্বর ওই ৬ পুলিশ কনস্টেবলকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করা হয়। তিনি জানান, দ্বিতীয় ধাপে আরও ডোপ টেস্টের প্রক্রিয়া চলছে। এ টেস্টে কোনো পুলিশ সদস্যের মধ্যে মাদক শনাক্ত হলে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। ক্রমান্বয়ে জেলার সব পুলিশ সদস্যের ডোপ টেস্ট করা হবে বলে জানান তিনি।

পুলিশ সুপার জানান, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের নির্দেশনা অনুযায়ী মাদকের বিরুদ্ধে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। তবে চাকরিচ্যুতরা যাতে পারিবারিক ও সামাজিকভাবে হেয় না হয়, সেজন্য তাদের নাম প্রকাশ করতে চাননি পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন।

ভারত সীমান্তবেষ্টিত জেলা হওয়ায় মাদকের ভয়াল থাবার মধ্যে রয়েছে দিনাজপুর জেলা। দীর্ঘদিন থেকে মাদক আচ্ছন্ন করে রয়েছে এ জেলায়। দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে চোরাপথে ভারত থেকে অবাধে দেশে প্রবেশ করে ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন মাদক। সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে আসা এসব মাদকের আংশিক অংশ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে ধরা পড়লেও অধিকাংশ মাদক ছড়িয়ে পড়ে দিনাজপুর জেলায় এবং দেশের বিভিন্ন স্থানে।

আর এ অবস্থায় সীমান্তে মাদক চোরাকারবারিরা হয়ে পড়েছে বেপরোয়া। মাদকের টাকা নিয়ে গত ১১ ডিসেম্বর দিনাজপুরের বিরামপুর সীমান্তে বাংলাদেশ ও ভারতের মাদক চোরাকারবারিদের মধ্যে সংঘর্ষও হয়। সংঘর্ষে ভারতের একজন মাদক ব্যবসায়ী নিহত ও বাংলাদেশের দু’জন গুরুতর আহত হয়েছে।

এই অবস্থায় মাদকের ব্যাপকতা কমিয়ে আনতে এবং সমাজকে মাদকমুক্ত করতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে দিনাজপুর জেলা পুলিশ। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান, তারা মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন। মাদকের ব্যাপারে কাউকে কোনো ছাড় দেয়া হবে না বলে জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন