চট্টগ্রাম বন্দরে স্থানীয়দের নিয়োগের ব্যবস্থা করব
jugantor
চট্টগ্রাম বন্দরে স্থানীয়দের নিয়োগের ব্যবস্থা করব
-ডা. শাহাদাত

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

১৪ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, আমি নির্বাচিত হলে চট্টগ্রাম বন্দরে স্থানীয় বাসিন্দাদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে নিয়োগের উদ্যোগ নেব। চট্টগ্রাম বন্দর প্রতিষ্ঠা ও সম্প্রসারণের সময় স্থানীয় বাসিন্দাদের জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। দেশের স্বার্থে বন্দরের জন্য অনেকে নিজেদের বসতবাড়ি ও ফসলি জমি ছেড়ে দিয়েছেন।

এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তারা। অথচ এখনো বন্দর এলাকার সুশিক্ষিত হাজার হাজার যুবক বেকার। এ বেকারত্বের কারণে এদের অনেকেই বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত হয়ে পরিবারের বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বন্দরে স্থানীয় লোকের চাকরির কোনো কোটা নেই। নগরীর ৩৬ নম্বর গোসাইলডাঙ্গা ও ৩৮ নম্বর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ডে নির্বাচনী গণসংযোগ ও পথসভায় তিনি বুধবার এসব কথা বলেন।

ডা. শাহাদাত বলেন, নিমতলা থেকে পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত পর্যন্ত বিশেষায়িত কোনো হাসপাতাল নেই। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের যে হাসপাতাল আছে তাতে স্থানীয় বাসিন্দারা কোনো চিকিৎসা পান না। আপনারা আমাকে নির্বাচিত করলে সিটি করপোরেশনের অধীনে বিশেষায়িত হাসপাতাল করার উদ্যোগ নেব।

গোসাইলডাঙ্গা, মুনিরনগর, দক্ষিণ মধ্যম হালিশহরসহ নগরীর বিভিন্ন এলাকার প্রধান সমস্যা হচ্ছে জলাবদ্ধতা। বিশেষ করে জোয়ারের পানিতে ও সামান্য বৃষ্টিপাতেই ডুবে যায়। তখন চরম দুর্ভোগ পোহান নগরবাসী। জলবদ্ধতা নিরসনে দীর্ঘমেয়াদি মহাপরিকল্পনা করে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

নগরীর বন্দর ও ইপিজেড এলাকায় বিপুলসংখ্যক গার্মেন্টস শ্রমিকের বসবাসের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের মধ্যে ৬০ শতাংশই ভাড়াটিয়া। নিম্ন আয়ের এসব শ্রমিকের যাতায়াত ও আবাসন সংকট রয়েছে। তাদের জন্য পর্যাপ্ত গণপরিবহণের ব্যবস্থাসহ আবাসন সংকট নিরসনে কাজ করব।

ভোটারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ধানের শীষে ভোট দিয়ে আপনাদের পিতা নয়, সেবক নির্বাচিত করুন। আমি আপনাদের সেবক হয়ে সুখ-দুঃখে পাশে থাকব। আমি আপনাদের সন্ত্রাস, মাদক ও চাঁদাবাজমুক্ত, পরিচ্ছন্ন, স্মার্ট, নন্দনিক চট্টগ্রাম নগরী উপহার দিতে চাই।

পথসভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাসেম বক্কর। গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এমএ আজিজ, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য গাজী সিরাজ উলাহ, মঞ্জুর আলম চৌধুরী মঞ্জু, মহানগরী বিএনপির সাবেক সহসাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম (ডক), মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচএম রাশেদ খান, মহানগর জাসাস সভাপতি কণ্ঠশিল্পী আব্দুল মান্নান রানা, দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী হাজি হানিফ সওদাগর, গোসাইলডাঙ্গা ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী মো. হারুন, মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী কামরুন্নাহার লিজা, বিএনপি নেতা আলী আজম চৌধুরী, মো. নাছির, মো, ইউসুফ, মো. সালাউদ্দিন, আব্দুল কুদ্দুস সেন্টু, মাহবুবুল আলম বাচ্চু প্রমুখ।

চট্টগ্রাম বন্দরে স্থানীয়দের নিয়োগের ব্যবস্থা করব

-ডা. শাহাদাত
 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, আমি নির্বাচিত হলে চট্টগ্রাম বন্দরে স্থানীয় বাসিন্দাদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে নিয়োগের উদ্যোগ নেব। চট্টগ্রাম বন্দর প্রতিষ্ঠা ও সম্প্রসারণের সময় স্থানীয় বাসিন্দাদের জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। দেশের স্বার্থে বন্দরের জন্য অনেকে নিজেদের বসতবাড়ি ও ফসলি জমি ছেড়ে দিয়েছেন।

এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তারা। অথচ এখনো বন্দর এলাকার সুশিক্ষিত হাজার হাজার যুবক বেকার। এ বেকারত্বের কারণে এদের অনেকেই বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত হয়ে পরিবারের বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বন্দরে স্থানীয় লোকের চাকরির কোনো কোটা নেই। নগরীর ৩৬ নম্বর গোসাইলডাঙ্গা ও ৩৮ নম্বর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ডে নির্বাচনী গণসংযোগ ও পথসভায় তিনি বুধবার এসব কথা বলেন।

ডা. শাহাদাত বলেন, নিমতলা থেকে পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত পর্যন্ত বিশেষায়িত কোনো হাসপাতাল নেই। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের যে হাসপাতাল আছে তাতে স্থানীয় বাসিন্দারা কোনো চিকিৎসা পান না। আপনারা আমাকে নির্বাচিত করলে সিটি করপোরেশনের অধীনে বিশেষায়িত হাসপাতাল করার উদ্যোগ নেব।

গোসাইলডাঙ্গা, মুনিরনগর, দক্ষিণ মধ্যম হালিশহরসহ নগরীর বিভিন্ন এলাকার প্রধান সমস্যা হচ্ছে জলাবদ্ধতা। বিশেষ করে জোয়ারের পানিতে ও সামান্য বৃষ্টিপাতেই ডুবে যায়। তখন চরম দুর্ভোগ পোহান নগরবাসী। জলবদ্ধতা নিরসনে দীর্ঘমেয়াদি মহাপরিকল্পনা করে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

নগরীর বন্দর ও ইপিজেড এলাকায় বিপুলসংখ্যক গার্মেন্টস শ্রমিকের বসবাসের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের মধ্যে ৬০ শতাংশই ভাড়াটিয়া। নিম্ন আয়ের এসব শ্রমিকের যাতায়াত ও আবাসন সংকট রয়েছে। তাদের জন্য পর্যাপ্ত গণপরিবহণের ব্যবস্থাসহ আবাসন সংকট নিরসনে কাজ করব।

ভোটারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ধানের শীষে ভোট দিয়ে আপনাদের পিতা নয়, সেবক নির্বাচিত করুন। আমি আপনাদের সেবক হয়ে সুখ-দুঃখে পাশে থাকব। আমি আপনাদের সন্ত্রাস, মাদক ও চাঁদাবাজমুক্ত, পরিচ্ছন্ন, স্মার্ট, নন্দনিক চট্টগ্রাম নগরী উপহার দিতে চাই।

পথসভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাসেম বক্কর। গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এমএ আজিজ, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য গাজী সিরাজ উলাহ, মঞ্জুর আলম চৌধুরী মঞ্জু, মহানগরী বিএনপির সাবেক সহসাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম (ডক), মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচএম রাশেদ খান, মহানগর জাসাস সভাপতি কণ্ঠশিল্পী আব্দুল মান্নান রানা, দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী হাজি হানিফ সওদাগর, গোসাইলডাঙ্গা ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী মো. হারুন, মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী কামরুন্নাহার লিজা, বিএনপি নেতা আলী আজম চৌধুরী, মো. নাছির, মো, ইউসুফ, মো. সালাউদ্দিন, আব্দুল কুদ্দুস সেন্টু, মাহবুবুল আলম বাচ্চু প্রমুখ।