প্রেমিককে বশ করতে এসে কবিরাজের কাছে ধর্ষণের শিকার
jugantor
প্রেমিককে বশ করতে এসে কবিরাজের কাছে ধর্ষণের শিকার
মোংলায় স্কুলছাত্রীকে আটকে রেখে পতিতাবৃত্তি

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৪ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে প্রেমিককে বশ করতে কবিরাজের কাছে এসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক নারী। বাগেরহাটের মোংলায় স্কুলছাত্রীকে আটকে রেখে পতিতাবৃত্তি ও ধর্ষণের অভিযোগে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বরিশালের গৌরনদীতে ধর্ষণ মামলায় পল্লি বিদ্যুৎ কর্মচারী, জামালপুরে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে যুবক ও মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে ধর্ষণের ঘটনায় সালিশকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

ধামরাই (ঢাকা) : ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলায় মঙ্গলবার রাতে ছালাম নামে এক কবিরাজকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকালে ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার চৌহাট এলাকায়। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বুধবার ওই কবিরাজকে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। ওই কবিরাজ চৌহাট গ্রামের ওয়ারেজ আলীর ছেলে।

পুলিশ জানায়, ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীর সঙ্গে অপর এক তরুণের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সম্প্রতি তাদের সম্পর্কের মধ্যে চির ধরে। প্রতিবেশী এক ভাবির কথায় মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় চৌহাট গ্রামের ছালাম কবিরাজের কাছে যায় ওই তরুণী। কবিরাজ তাকে একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের বিষয়টি কাউকে না জানাতে তন্ত্রমন্ত্রের ভয় দেখায় কবিরাজ। পরে তরুণী কাওয়ালীপাড়া বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক রাসেল মোল্লার কাছে ওই কবিরাজের নামে অভিযোগ করেন। পরিদর্শক রাসেল বিষয়টি ধামরাই থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহাকে জানালে একটি মামলা করা হয় কবিরাজ ছালামের নামে।

কাওয়ালীপাড়া বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. রাসেল মোল্লা বলেন, মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত হয়েছেন, উপপুলিশ পরিদর্শক আবু সাইয়িদ। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই তরুণীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও জবানবন্দির জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মোংলা (বাগেরহাট) : মোংলার সিগন্যাল টাওয়ার এলাকার এক কিশোরীকে ছয় মাস আটকে রেখে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী মঙ্গলবার থানায় মামলা দায়েরের পর ধর্ষকসহ পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অপরাধে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মোংলা থানার ওসি (তদন্ত) তুহিন মন্ডল জানান, মোংলা পৌর শহরের সিগন্যাল টাওয়ার এলাকার কিশোরীকে ছয় মাস আগে শিউলি বেগম ও শারমিন বেগম কাজের কথা বলে শরণখোলার ধানসাগর এলাকায় নিয়ে যান। এরপর সেখানে ওই কিশোরীকে আটকে রেখে নেশাদ্রব্য খাইয়ে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হয়। পরে খবর পেয়ে ১১ জানুয়ারি কিশোরীর মা-বাবা তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে মোংলায় নিয়ে আসেন।

বাবা-মায়ের কাছে ফিরে বিষয়টি জানায় ওই কিশোরী। সর্বশেষ তাকে ধর্ষণ করে দেলো পাটোয়ারী। এর আগে বিভিন্ন স্থানে এবং বাড়িতে নিয়ে তাকে পতিতাবৃত্তি করানো হয়। মামলার আসামিরা হল : শারমিন বেগম, শিউলি বেগম, পারভিন বেগম, শিল্পী বেগম, আলী হোসেন, দেলো পাটোয়ারী ও তায়েবা বেগম। আসামি তায়েবা বেগম ছাড়া বাকিদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জামালপুর : জামালপুর সদরের ঘোড়াধাপে সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে হাবিবুর রহমান ফরহাদ নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ফরহাদ একই গ্রামের শেখ বাড়ির আবদুল হামিদের ছেলে। বুধবার দুপুরে সদর উপজেলার ঘোড়াধাপ ইউনিয়নের বন্দচিথলিয়া গ্রামে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। গুরুতর অসুস্থ শিশুটিকে ২৫০ শয্যা জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গৌরনদী (বরিশাল) : গৌরনদীতে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে উপজেলার শাহজিরা গ্রামের ওই নারী বাদী হয়ে নাজমুল আকনকে আসামি করে বুধবার গৌরনদী থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ নাজমুল আকনকে গ্রেফতার করেছে। নাজমুল মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ মাইচপাড়ার মোসলেম আকনের ছেলে ও পল্লি বিদ্যুৎ গৌরনদী জোনাল অফিসের আওতাধীন শরিকল সাব-স্টেশনের লাইনম্যান।

টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) : টঙ্গীবাড়ীতে প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণের ঘটনায় সালিশকারী হারুন রশিদ জামাদ্দার গ্রেফতার হয়েছেন। বুধবার সকালে টঙ্গীবাড়ী থানায় একটি ধর্ষণ মামলায় তাকে এসআই কেএম রেয়াদুল ইসলাম উপজেলার বিদগাঁও থেকে গ্রেফতার করেন। হারুন শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার মুরাদ মল্লিকের কান্দি গ্রামের শুক্কুর জমাদ্দারের ছেলে।

প্রেমিককে বশ করতে এসে কবিরাজের কাছে ধর্ষণের শিকার

মোংলায় স্কুলছাত্রীকে আটকে রেখে পতিতাবৃত্তি
 যুগান্তর ডেস্ক 
১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে প্রেমিককে বশ করতে কবিরাজের কাছে এসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক নারী। বাগেরহাটের মোংলায় স্কুলছাত্রীকে আটকে রেখে পতিতাবৃত্তি ও ধর্ষণের অভিযোগে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বরিশালের গৌরনদীতে ধর্ষণ মামলায় পল্লি বিদ্যুৎ কর্মচারী, জামালপুরে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে যুবক ও মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে ধর্ষণের ঘটনায় সালিশকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

ধামরাই (ঢাকা) : ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলায় মঙ্গলবার রাতে ছালাম নামে এক কবিরাজকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকালে ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার চৌহাট এলাকায়। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বুধবার ওই কবিরাজকে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। ওই কবিরাজ চৌহাট গ্রামের ওয়ারেজ আলীর ছেলে।

পুলিশ জানায়, ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীর সঙ্গে অপর এক তরুণের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সম্প্রতি তাদের সম্পর্কের মধ্যে চির ধরে। প্রতিবেশী এক ভাবির কথায় মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় চৌহাট গ্রামের ছালাম কবিরাজের কাছে যায় ওই তরুণী। কবিরাজ তাকে একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের বিষয়টি কাউকে না জানাতে তন্ত্রমন্ত্রের ভয় দেখায় কবিরাজ। পরে তরুণী কাওয়ালীপাড়া বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক রাসেল মোল্লার কাছে ওই কবিরাজের নামে অভিযোগ করেন। পরিদর্শক রাসেল বিষয়টি ধামরাই থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহাকে জানালে একটি মামলা করা হয় কবিরাজ ছালামের নামে।

কাওয়ালীপাড়া বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. রাসেল মোল্লা বলেন, মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত হয়েছেন, উপপুলিশ পরিদর্শক আবু সাইয়িদ। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই তরুণীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও জবানবন্দির জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মোংলা (বাগেরহাট) : মোংলার সিগন্যাল টাওয়ার এলাকার এক কিশোরীকে ছয় মাস আটকে রেখে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী মঙ্গলবার থানায় মামলা দায়েরের পর ধর্ষকসহ পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অপরাধে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মোংলা থানার ওসি (তদন্ত) তুহিন মন্ডল জানান, মোংলা পৌর শহরের সিগন্যাল টাওয়ার এলাকার কিশোরীকে ছয় মাস আগে শিউলি বেগম ও শারমিন বেগম কাজের কথা বলে শরণখোলার ধানসাগর এলাকায় নিয়ে যান। এরপর সেখানে ওই কিশোরীকে আটকে রেখে নেশাদ্রব্য খাইয়ে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হয়। পরে খবর পেয়ে ১১ জানুয়ারি কিশোরীর মা-বাবা তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে মোংলায় নিয়ে আসেন।

বাবা-মায়ের কাছে ফিরে বিষয়টি জানায় ওই কিশোরী। সর্বশেষ তাকে ধর্ষণ করে দেলো পাটোয়ারী। এর আগে বিভিন্ন স্থানে এবং বাড়িতে নিয়ে তাকে পতিতাবৃত্তি করানো হয়। মামলার আসামিরা হল : শারমিন বেগম, শিউলি বেগম, পারভিন বেগম, শিল্পী বেগম, আলী হোসেন, দেলো পাটোয়ারী ও তায়েবা বেগম। আসামি তায়েবা বেগম ছাড়া বাকিদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জামালপুর : জামালপুর সদরের ঘোড়াধাপে সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে হাবিবুর রহমান ফরহাদ নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ফরহাদ একই গ্রামের শেখ বাড়ির আবদুল হামিদের ছেলে। বুধবার দুপুরে সদর উপজেলার ঘোড়াধাপ ইউনিয়নের বন্দচিথলিয়া গ্রামে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। গুরুতর অসুস্থ শিশুটিকে ২৫০ শয্যা জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গৌরনদী (বরিশাল) : গৌরনদীতে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে উপজেলার শাহজিরা গ্রামের ওই নারী বাদী হয়ে নাজমুল আকনকে আসামি করে বুধবার গৌরনদী থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ নাজমুল আকনকে গ্রেফতার করেছে। নাজমুল মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ মাইচপাড়ার মোসলেম আকনের ছেলে ও পল্লি বিদ্যুৎ গৌরনদী জোনাল অফিসের আওতাধীন শরিকল সাব-স্টেশনের লাইনম্যান।

টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) : টঙ্গীবাড়ীতে প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণের ঘটনায় সালিশকারী হারুন রশিদ জামাদ্দার গ্রেফতার হয়েছেন। বুধবার সকালে টঙ্গীবাড়ী থানায় একটি ধর্ষণ মামলায় তাকে এসআই কেএম রেয়াদুল ইসলাম উপজেলার বিদগাঁও থেকে গ্রেফতার করেন। হারুন শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার মুরাদ মল্লিকের কান্দি গ্রামের শুক্কুর জমাদ্দারের ছেলে।