চৌমুহনীতে বিদ্রোহী প্রার্থীর ওপর হামলা
jugantor
পৌর নির্বাচন
চৌমুহনীতে বিদ্রোহী প্রার্থীর ওপর হামলা

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চৌমুহনীতে বিদ্রোহী প্রার্থীর ওপর হামলা

পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নোয়াখালীর চৌমুহনীতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর ওপর হামলা হয়েছে। কিশোরগঞ্জের ভৈরবে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ১২ জন আহত হয়েছে। নড়াইলের কালিয়ায় নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। মুন্সীগঞ্জে বিপুল পরিমাণ লাঠিসোটা উদ্ধার করেছে ডিবি পুলিশ। যুগান্তর প্রতিবেদন ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

নোয়াখালী : চৌমুহনী পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মেয়র প্রার্থী ও বেগমগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরণের ভাই খালেদ সাইফুল্লাহর প্রচারণায় হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ হামলায় আটজন আহত হয়। রোববার সকালে চৌমুহনী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে মুক্তিযোদ্বা গাজী আমানউল্লা মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। মেয়র প্রার্থী খালেদ সাইফুল্লাহ বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচনি প্রচারণা করতে গেলে চৌমুহনী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মাসুদ ও ইসমাইলের নেতৃত্বে নৌকার ব্যাজ পরিহিত একটি গ্রুপ আমাদের পেছন থেকে আক্রমণ করে। এ সময় আমাদের এক নারী কর্মীকে তারা বেধড়ক মারধর করে এবং আমাকেসহ ৭-৮ জনকে শারীরিকভাবে হেনস্তা করে। এ ঘটনার প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা প্রতিবাদ মিছিল বের করে। চৌমুহনী বাজারের প্রধান সড়ক থেকে মিছিলটি বের করে চৌরাস্তার রুহুল আমিন স্কয়ারে সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়। আওয়ামী লীগের প্রার্থী আক্তার হোসেন ফয়সাল এ হামলার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, তার কোনো কর্মী এ হামলার সঙ্গে জড়িত নয়। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মীরা আগের রাতের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে নিজেদের মধ্যে হাতাহাতি করেছে বলে শোনেনি। তিনি বলেন, যখন এ ঘটনা ঘটে তখন সেখানে নৌকার কোনো নেতাকর্মী ছিলেন না।

এদিকে চৌমুহনী পৌরসভা নির্বাচনের প্রচারণাকালে বুধবার সন্ধ্যায় ছুরিকাঘাত করে আওয়ামী লীগ দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আকতার হোসেন ফয়সলের কর্মী মাজহারুল ইসলাম তুর্জয়কে হত্যা ঘটনার প্রধান আসামি চৌমুহনী পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ নাজিরপুরের ইসমাইলের ছেলে রবিনকে শনিবার ভোরে গ্রেফতার করেছে নোয়াখালী গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশ।

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) : ভৈরবে পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ১২ জন আহত হয়েছে। এ সময় প্রার্থী আশরাফ উদ্দিনের অফিস ভাংচুর করা হয়। রোববার বেলা ১১টায় এ ঘটনা ঘটে। উভয়পক্ষের আহতরা হলেন- আজাদুল ইসলাম, ফজর আলী, জাহাঙ্গীর, আকরাম, আকাশ, ফরিদ, সুরুজ মিয়া, সাব্বির, হেলিম, জামাল, সোহেল ও জাকির। ভৈরব পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সির ফজলুর রহমান ও সাবেক কাউন্সিলর আশরাফ উদ্দিন সমর্থকরা নির্বাচনী প্রচারণাকালে এ ঘটনাটি ঘটে। আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে তারা একই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী ও সম্পর্কে তারা চাচা-ভাতিজা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে।

নড়াইল : কালিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মো. ওয়াহিদুজ্জামান হীরার বড়কালিয়া নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার রাত ২টার দিকে আগুন দিলে টাঙ্গানো নৌকা প্রতীক, নির্বাচনী পোস্টার ও কাপড় পুড়ে যায়। এছাড়া দুর্বৃত্তরা ঘটনাস্থলে ৩-৪টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। ওই রাতেই ঘটনাস্থল থেকে আরও দুটি ককটেল ও দুটি ছ্যান দা পুলিশ জব্দ করে। স্থানীয় সূত্র জানায়, নৌকা প্রতীকের নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন ধরানো ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানোর পর চলে যাওয়ার সময় কালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান কৃষ্ণপদ ঘোষকে উদ্দেশ করে গালাগাল করা হয়। স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মুশফিকুর রহমানের পক্ষে স্লোগান দিতে দিতে দুর্বৃত্তরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. ওয়াহিদুজ্জামান হীরা যুগান্তরকে বলেন, ‘সংসদ সদস্য করিরুল হক মুক্তির স্ত্রী চন্দনা হক ও মুশফিকুর রহমান লিটনের নির্দেশে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীর লোকজন আমার নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে।’ স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মুশফিকুর রহমান লিটন বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নির্বাচনি কার্যালয় আমি বা আমার লোকজন আগুন দেয়নি। আমি এ ঘটনার নিন্দা জানাই। পাশাপাশি এ বিষয়ে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করি।’

মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জের ৯নং ওয়ার্ডের মুন্সিরহাট আল আমিন কমিউনিটি সেন্টারের ভেতর থেকে বিপুল পরিমাণ লাঠিসোটা উদ্ধার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নাশকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এগুলো জড়ো করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি মোজাম্মেল হক মামুন জানান, রোববার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালায় ডিবি।

পৌর নির্বাচন

চৌমুহনীতে বিদ্রোহী প্রার্থীর ওপর হামলা

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
চৌমুহনীতে বিদ্রোহী প্রার্থীর ওপর হামলা
প্রতীকী ছবি

পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নোয়াখালীর চৌমুহনীতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর ওপর হামলা হয়েছে। কিশোরগঞ্জের ভৈরবে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ১২ জন আহত হয়েছে। নড়াইলের কালিয়ায় নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। মুন্সীগঞ্জে বিপুল পরিমাণ লাঠিসোটা উদ্ধার করেছে ডিবি পুলিশ। যুগান্তর প্রতিবেদন ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

নোয়াখালী : চৌমুহনী পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মেয়র প্রার্থী ও বেগমগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরণের ভাই খালেদ সাইফুল্লাহর প্রচারণায় হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ হামলায় আটজন আহত হয়। রোববার সকালে চৌমুহনী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে মুক্তিযোদ্বা গাজী আমানউল্লা মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। মেয়র প্রার্থী খালেদ সাইফুল্লাহ বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচনি প্রচারণা করতে গেলে চৌমুহনী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মাসুদ ও ইসমাইলের নেতৃত্বে নৌকার ব্যাজ পরিহিত একটি গ্রুপ আমাদের পেছন থেকে আক্রমণ করে। এ সময় আমাদের এক নারী কর্মীকে তারা বেধড়ক মারধর করে এবং আমাকেসহ ৭-৮ জনকে শারীরিকভাবে হেনস্তা করে। এ ঘটনার প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা প্রতিবাদ মিছিল বের করে। চৌমুহনী বাজারের প্রধান সড়ক থেকে মিছিলটি বের করে চৌরাস্তার রুহুল আমিন স্কয়ারে সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়। আওয়ামী লীগের প্রার্থী আক্তার হোসেন ফয়সাল এ হামলার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, তার কোনো কর্মী এ হামলার সঙ্গে জড়িত নয়। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মীরা আগের রাতের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে নিজেদের মধ্যে হাতাহাতি করেছে বলে শোনেনি। তিনি বলেন, যখন এ ঘটনা ঘটে তখন সেখানে নৌকার কোনো নেতাকর্মী ছিলেন না।

এদিকে চৌমুহনী পৌরসভা নির্বাচনের প্রচারণাকালে বুধবার সন্ধ্যায় ছুরিকাঘাত করে আওয়ামী লীগ দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আকতার হোসেন ফয়সলের কর্মী মাজহারুল ইসলাম তুর্জয়কে হত্যা ঘটনার প্রধান আসামি চৌমুহনী পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ নাজিরপুরের ইসমাইলের ছেলে রবিনকে শনিবার ভোরে গ্রেফতার করেছে নোয়াখালী গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশ।

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) : ভৈরবে পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ১২ জন আহত হয়েছে। এ সময় প্রার্থী আশরাফ উদ্দিনের অফিস ভাংচুর করা হয়। রোববার বেলা ১১টায় এ ঘটনা ঘটে। উভয়পক্ষের আহতরা হলেন- আজাদুল ইসলাম, ফজর আলী, জাহাঙ্গীর, আকরাম, আকাশ, ফরিদ, সুরুজ মিয়া, সাব্বির, হেলিম, জামাল, সোহেল ও জাকির। ভৈরব পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সির ফজলুর রহমান ও সাবেক কাউন্সিলর আশরাফ উদ্দিন সমর্থকরা নির্বাচনী প্রচারণাকালে এ ঘটনাটি ঘটে। আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে তারা একই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী ও সম্পর্কে তারা চাচা-ভাতিজা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে।

নড়াইল : কালিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মো. ওয়াহিদুজ্জামান হীরার বড়কালিয়া নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার রাত ২টার দিকে আগুন দিলে টাঙ্গানো নৌকা প্রতীক, নির্বাচনী পোস্টার ও কাপড় পুড়ে যায়। এছাড়া দুর্বৃত্তরা ঘটনাস্থলে ৩-৪টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। ওই রাতেই ঘটনাস্থল থেকে আরও দুটি ককটেল ও দুটি ছ্যান দা পুলিশ জব্দ করে। স্থানীয় সূত্র জানায়, নৌকা প্রতীকের নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন ধরানো ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানোর পর চলে যাওয়ার সময় কালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান কৃষ্ণপদ ঘোষকে উদ্দেশ করে গালাগাল করা হয়। স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মুশফিকুর রহমানের পক্ষে স্লোগান দিতে দিতে দুর্বৃত্তরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. ওয়াহিদুজ্জামান হীরা যুগান্তরকে বলেন, ‘সংসদ সদস্য করিরুল হক মুক্তির স্ত্রী চন্দনা হক ও মুশফিকুর রহমান লিটনের নির্দেশে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীর লোকজন আমার নির্বাচনি কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে।’ স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মুশফিকুর রহমান লিটন বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নির্বাচনি কার্যালয় আমি বা আমার লোকজন আগুন দেয়নি। আমি এ ঘটনার নিন্দা জানাই। পাশাপাশি এ বিষয়ে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করি।’

মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জের ৯নং ওয়ার্ডের মুন্সিরহাট আল আমিন কমিউনিটি সেন্টারের ভেতর থেকে বিপুল পরিমাণ লাঠিসোটা উদ্ধার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নাশকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এগুলো জড়ো করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি মোজাম্মেল হক মামুন জানান, রোববার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালায় ডিবি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন