হেফাজতের নায়েবে আমিরের পদ ছাড়লেন আব্দুল্লাহ হাসান
jugantor
হেফাজতের নায়েবে আমিরের পদ ছাড়লেন আব্দুল্লাহ হাসান

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৪ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমিরের পদ ছাড়লেন বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান। জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান বলেন, হেফাজতে ইসলাম এখন কিছু ব্যক্তির ‘নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নের একটি প্ল্যাটফরম’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়গুলো বিবেচনা করে হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমির পদ থেকে ইস্তফা প্রদান করলাম। আমার ইস্তফা প্রদানে কে বেজার হলো, কে খুশি হলো-এটা আমার দেখার বিষয় নয়।

আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার রজতজয়ন্তী উদ্যাপনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনকে কেন্দ্র করে আগে ও পরের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। এহেন পরিস্থিতিতে হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মতো মহান নেতৃত্বের শূন্যতা অনুভব করছি।

আল্লামা শফীর মৃত্যুর পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, হেফাজতে ইসলামে যোগ্য নেতৃত্বের সংকট সৃষ্টি হয়েছে। গ্রুপিং, দলাদলি সৃষ্টি হয়েছে। নিজেদের অঙ্গনে ভিন্নদল ও ভিন্ন মতাদর্শের মানুষ অনুপ্রবেশ করেছে এবং তারাই তাদের রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করতে হেফাজতে ইসলামকে অত্যন্ত সুকৌশলে মাঠে নামানোর চেষ্টা করছে। এরই অংশ হিসেবে এবং ওই বিতর্কিত বহিরাগত সংগঠনের লোকজনই হেফাজতে ইসলামের নেতাদের অধিকাংশের মতামত উপেক্ষা করে হরতালের মতো জনভোগান্তিকর কর্মসূচি পালনে বাধ্য করেছে। আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান জানান, এখন থেকে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কোনো কর্মকাণ্ডের দায়ভার তিনি বা তার দল বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলন নেবে না।

এ ছাড়া কওমি মাদ্রাসাগুলো খুলে দেওয়ার পাশাপাশি ‘নিরীহ আলেম-ওলামাদের’ হয়রানি না-করার আহ্বান জানান ফরায়েজি আন্দোলনের সভাপতি। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলনের সহসভাপতি আব্দুল বাতেন, মবিন উদ্দিন আহম্মদ, নওশী মিয়া, আব্দুল বাতেন নোমান, আবুল কাশেম চাকলাদার, মহাসচিব রহমান খান ফরায়েজি, যুগ্ম সম্পাদক নুরুল ইসলামসহ সিনিয়র নেতারা।

হেফাজতের নায়েবে আমিরের পদ ছাড়লেন আব্দুল্লাহ হাসান

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৪ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমিরের পদ ছাড়লেন বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান। জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান বলেন, হেফাজতে ইসলাম এখন কিছু ব্যক্তির ‘নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নের একটি প্ল্যাটফরম’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়গুলো বিবেচনা করে হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমির পদ থেকে ইস্তফা প্রদান করলাম। আমার ইস্তফা প্রদানে কে বেজার হলো, কে খুশি হলো-এটা আমার দেখার বিষয় নয়।

আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার রজতজয়ন্তী উদ্যাপনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনকে কেন্দ্র করে আগে ও পরের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। এহেন পরিস্থিতিতে হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মতো মহান নেতৃত্বের শূন্যতা অনুভব করছি।

আল্লামা শফীর মৃত্যুর পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, হেফাজতে ইসলামে যোগ্য নেতৃত্বের সংকট সৃষ্টি হয়েছে। গ্রুপিং, দলাদলি সৃষ্টি হয়েছে। নিজেদের অঙ্গনে ভিন্নদল ও ভিন্ন মতাদর্শের মানুষ অনুপ্রবেশ করেছে এবং তারাই তাদের রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করতে হেফাজতে ইসলামকে অত্যন্ত সুকৌশলে মাঠে নামানোর চেষ্টা করছে। এরই অংশ হিসেবে এবং ওই বিতর্কিত বহিরাগত সংগঠনের লোকজনই হেফাজতে ইসলামের নেতাদের অধিকাংশের মতামত উপেক্ষা করে হরতালের মতো জনভোগান্তিকর কর্মসূচি পালনে বাধ্য করেছে। আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান জানান, এখন থেকে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কোনো কর্মকাণ্ডের দায়ভার তিনি বা তার দল বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলন নেবে না।

এ ছাড়া কওমি মাদ্রাসাগুলো খুলে দেওয়ার পাশাপাশি ‘নিরীহ আলেম-ওলামাদের’ হয়রানি না-করার আহ্বান জানান ফরায়েজি আন্দোলনের সভাপতি। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলনের সহসভাপতি আব্দুল বাতেন, মবিন উদ্দিন আহম্মদ, নওশী মিয়া, আব্দুল বাতেন নোমান, আবুল কাশেম চাকলাদার, মহাসচিব রহমান খান ফরায়েজি, যুগ্ম সম্পাদক নুরুল ইসলামসহ সিনিয়র নেতারা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন