২৫ বার এভারেস্টে উঠে কামি রিটা শেরপার বিশ্বরেকর্ড
jugantor
২৫ বার এভারেস্টে উঠে কামি রিটা শেরপার বিশ্বরেকর্ড

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৯ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রেকর্ড ২৫ বার বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্টের চূড়ায় আরোহণ করেছেন নেপালি পর্বতারোহী কামি রিটা শেরপা। এর মাধ্যমে নিজের করা আগের রেকর্ডটিই শুক্রবার ভাঙলেন তিনি। এভারেস্টের চূড়ায় ওঠার জন্য ১২ সদস্যের একটি দলের সঙ্গী হন তিনি। দলের সবার আগে এভারেস্টের চূড়ায় উঠতে সক্ষম হন শেরপা। এভারেস্টে অভিযান সংগঠন সেভেন সামিট ট্রেকসের সংগঠক মিংমা শেরপা বলেন, কামি রিটা নতুন রেকর্ড গড়েছেন। ১৯৯৪ সালে প্রথমবার ২৯ হাজার ২৯ ফুট পর্বতশৃঙ্গে আরোহণ করেন কামি রিটা। দীর্ঘ দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে পর্বতারোহীদের গাইড হিসাবে কাজ করে আসছেন তিনি। তখন থেকে প্রায় প্রতি বছরই এভারেস্টে ওঠেন তিনি।

পর্বতারোহণের আগে কামি রিটা বলেন, এটা শুধু রেকর্ড ভাঙার ব্যাপার নয়, ২০২০ সালে আমার ৫০ বছর বয়সে ২৫তম বারের মতো এভারেস্টের চূড়ায় উঠে উদযাপনের ইচ্ছা ছিল। কিন্তু কোভিড-১৯-এর কারণে তা আর হয়ে ওঠেনি। তাই এ বছর আমি নিজের স্বপ্নকে সত্যি করার উদ্যোগ নেই। শুধু এভারেস্টই নয়, বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ পাকিস্তানে কে-২-সহ বেশ কিছু বড় বড় পাহাড়ের চূড়ায় ওঠার রেকর্ড রয়েছে কামি রিটার।

তিনি বলেন, আমি আমার দেশের জন্য পাহাড়ে চড়ি। নেপালের পর্যটনের জন্য আমাদের মতো গাইডের প্রয়োজন। আমরা না থাকলে পর্যটকরা আসবেন না। ২০১৯ সালে তিনি দুবার এভারেস্ট আরোহণ করেন। এ বছরও তার তেমনই পরিকল্পনা রয়েছে।

করোনাভাইরাসের কারণে নেপালের পর্যটন শিল্প মারাত্মক ধাক্কা খেয়েছে। গত বছর সেখানে রীতিমতো ধস নামে। চলতি বছর এভারেস্টে ওঠার জন্য ৪০৮ জনকে অনুমতি দিয়েছে দেশটি। এজন্য প্রত্যেক আরোহীকে গুনতে হয়েছে ১১ হাজার মার্কিন ডলার। প্রত্যেক আরোহীর সঙ্গে থাকেন নেপালি গাইড।

২৫ বার এভারেস্টে উঠে কামি রিটা শেরপার বিশ্বরেকর্ড

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৯ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রেকর্ড ২৫ বার বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্টের চূড়ায় আরোহণ করেছেন নেপালি পর্বতারোহী কামি রিটা শেরপা। এর মাধ্যমে নিজের করা আগের রেকর্ডটিই শুক্রবার ভাঙলেন তিনি। এভারেস্টের চূড়ায় ওঠার জন্য ১২ সদস্যের একটি দলের সঙ্গী হন তিনি। দলের সবার আগে এভারেস্টের চূড়ায় উঠতে সক্ষম হন শেরপা। এভারেস্টে অভিযান সংগঠন সেভেন সামিট ট্রেকসের সংগঠক মিংমা শেরপা বলেন, কামি রিটা নতুন রেকর্ড গড়েছেন। ১৯৯৪ সালে প্রথমবার ২৯ হাজার ২৯ ফুট পর্বতশৃঙ্গে আরোহণ করেন কামি রিটা। দীর্ঘ দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে পর্বতারোহীদের গাইড হিসাবে কাজ করে আসছেন তিনি। তখন থেকে প্রায় প্রতি বছরই এভারেস্টে ওঠেন তিনি।

পর্বতারোহণের আগে কামি রিটা বলেন, এটা শুধু রেকর্ড ভাঙার ব্যাপার নয়, ২০২০ সালে আমার ৫০ বছর বয়সে ২৫তম বারের মতো এভারেস্টের চূড়ায় উঠে উদযাপনের ইচ্ছা ছিল। কিন্তু কোভিড-১৯-এর কারণে তা আর হয়ে ওঠেনি। তাই এ বছর আমি নিজের স্বপ্নকে সত্যি করার উদ্যোগ নেই। শুধু এভারেস্টই নয়, বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ পাকিস্তানে কে-২-সহ বেশ কিছু বড় বড় পাহাড়ের চূড়ায় ওঠার রেকর্ড রয়েছে কামি রিটার।

তিনি বলেন, আমি আমার দেশের জন্য পাহাড়ে চড়ি। নেপালের পর্যটনের জন্য আমাদের মতো গাইডের প্রয়োজন। আমরা না থাকলে পর্যটকরা আসবেন না। ২০১৯ সালে তিনি দুবার এভারেস্ট আরোহণ করেন। এ বছরও তার তেমনই পরিকল্পনা রয়েছে।

করোনাভাইরাসের কারণে নেপালের পর্যটন শিল্প মারাত্মক ধাক্কা খেয়েছে। গত বছর সেখানে রীতিমতো ধস নামে। চলতি বছর এভারেস্টে ওঠার জন্য ৪০৮ জনকে অনুমতি দিয়েছে দেশটি। এজন্য প্রত্যেক আরোহীকে গুনতে হয়েছে ১১ হাজার মার্কিন ডলার। প্রত্যেক আরোহীর সঙ্গে থাকেন নেপালি গাইড।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন