শ্রেণিকক্ষে রড সিমেন্টের স্তূপ মাদকের আসর
jugantor
সরেজমিন উত্তরাঞ্চল
শ্রেণিকক্ষে রড সিমেন্টের স্তূপ মাদকের আসর

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৩ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শ্রেণিকক্ষ

করোনা মহামারির কারণে ১৫ মাস ধরে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এতে দেশের উত্তরাঞ্চলের বেশিরভাগ স্কুল-কলেজ অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। শ্রেণিকক্ষ ও বারান্দা দখলে নিয়ে ইট, বালু ও রডের স্তূপ গড়ে তুলেছেন ঠিকাদাররা। অভিযোগ উঠেছে, টাকার বিনিময়ে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষই ঠিকাদারদের কাছে মাঠ ভাড়া দিয়েছেন। কোনো কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বসবাস করছেন নির্মাণ শ্রমিকরা। গরু-ছাগলের বিষ্টা আর ঘাস-আগাছায় ছেয়ে গেছে বিদ্যালয়ের মাঠ। কোথাও মাঠজুড়ে খড়ের পালা। ভেঙে গেছে বিদ্যালয় ভবনের দরজা-জানালা। খসে পড়ছে পলেস্তারা। সন্ধ্যা নামলে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলে মাদকসেবী ও জুয়াড়িদের আড্ডা। কোথাও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বিদ্যালয়ের কক্ষে গড়ে তুলেছেন ধানের গোডাউন।

সরেজমিন পাবনার চাটমোহর উপজেলার নিমাইচড়া, গুনাইগাছা, বিলচলন ও ছাইকোলা ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ঘুরে দেখা যায়, স্কুলের বারান্দায় পড়ে আছে সিগারেটের রাংতা ও ছেঁড়া তাশ। মাঠজুড়ে স্তূপ করে রাখা হয়েছে খড়ের পালা। খড়ের পালার কারণে ঢাকা পড়েছে ভবনগুলো। মাঠগুলোতে অবাধে চরে বেড়াচ্ছে গরু-ছাগল। স্কুলের শোভা বর্ধনের জন্য লাগানো ফুলগাছগুলো যত্নের অভাবে মরে যাচ্ছে। বারান্দায় বেঁধে রাখা হয়েছে গরু-ছাগল ও ভেড়া। জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে জানালা-দরজা। অনেকে গরুর গোবর ও ধান শুকাচ্ছেন স্কুলের বারান্দায়।

রাজশাহীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এখন মাদকাসক্তদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সেখানে বসছে মাদকের জমজমাট আসর। জেলার চারঘাটের কৃষ্টপুর স্কুলে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বসে এলাকার কিছু নারী বাসাবাড়ির মতো করে ব্যবহার করছেন স্কুলটির বারান্দা।

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার নজিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বসবাস করছেন নির্মাণ শ্রমিকরা। মাঠে ছিটিয়ে রাখা হয়েছে নির্মাণ সামগ্রীর মালামাল ও মাটি। পত্নীতলা ইউনিয়নের হাসেমবেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বারান্দায় গরু পালন করা হচ্ছে। ভেঙে ফেলা হয়ে শ্রেণিকক্ষের দরজা। মাটিন্দর ইউনিয়নের শিবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে সেখানে শ্রেণিকক্ষে নির্মাণ সমগ্রীর মালামাল রাখা। কাঁটাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ ধানের গোডাউন হিসাবে ব্যবহার করছেন স্থানীয় এক রাজনৈতিক নেতা। পাটিচড়া ইউনিয়নের কাশিপুর সরকারি বিদ্যালয় মাঠে প্রতিনিয়ত মাদকের আসর বসে বলে জানা গেছে।

দিনাজপুর সদর উপজেলার ১নং চেহেলোগাজী ইউনিয়নের কর্ণাই দাখিল মাদ্রাসায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাদ্রাসার মাঠজুড়ে পাথরের স্তূপ। প্রতিনিয়ত যাওয়া-আসা করছে পাথরবাহী বিশাল ট্রাক ও ট্রাক্টর। স্থানীয়রা জানান, মাঠটি নাকি ঠিকাদারকে ভাড়া দেওয়া হয়েছে।

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা যায় অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দরজা-জানালা খোলা ও ভাঙা। প্রতিষ্ঠানের ভেতরে গরু-ছাগলের বিষ্ঠা। বারান্দায় বাঁধা রয়েছে গবাদি পশু। গৃহিণীরা খড় শুকানোর কাজ করছেন। জেলার বাগাতিপাড়া উপজেলা সদরের বাগাতিপাড়া সরকারি ডিগ্রি কলেজের মাঠজুড়ে রয়েছে একটি সড়ক নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সরঞ্জামাদি। একই চিত্র দেখা গেছে বড়াইগ্রামের নেংটাদহ (নুরদহ) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পাশের আগ্রান নুরদহ পীরপাল দাখিল মাদ্রাসায়।

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙা ইউনিয়নে টাপুরচর বিজি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্তূপ করে রাখা হয়েছে পাথর, বালি ও খোয়াসহ বিভিন্ন নির্মাণসামগ্রী। স্থানীয়রা জানান, স্কুল মাঠে নির্মাণসামগ্রী রেখে রাস্তার সংস্কার কাজ চলছে। এতে বিষাক্ত ধোঁয়া, ধুলাবালু ও বিটুমিন গলানোর দুর্গন্ধে চরম স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়েছেন তারা।

সরেজমিন উত্তরাঞ্চল

শ্রেণিকক্ষে রড সিমেন্টের স্তূপ মাদকের আসর

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৩ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
শ্রেণিকক্ষ
নাটোরের বড়াইগ্রামের নেংটাদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে বসবাস নির্মাণ শ্রমিকদের -যুগান্তর

করোনা মহামারির কারণে ১৫ মাস ধরে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এতে দেশের উত্তরাঞ্চলের বেশিরভাগ স্কুল-কলেজ অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। শ্রেণিকক্ষ ও বারান্দা দখলে নিয়ে ইট, বালু ও রডের স্তূপ গড়ে তুলেছেন ঠিকাদাররা। অভিযোগ উঠেছে, টাকার বিনিময়ে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষই ঠিকাদারদের কাছে মাঠ ভাড়া দিয়েছেন। কোনো কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বসবাস করছেন নির্মাণ শ্রমিকরা। গরু-ছাগলের বিষ্টা আর ঘাস-আগাছায় ছেয়ে গেছে বিদ্যালয়ের মাঠ। কোথাও মাঠজুড়ে খড়ের পালা। ভেঙে গেছে বিদ্যালয় ভবনের দরজা-জানালা। খসে পড়ছে পলেস্তারা। সন্ধ্যা নামলে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলে মাদকসেবী ও জুয়াড়িদের আড্ডা। কোথাও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বিদ্যালয়ের কক্ষে গড়ে তুলেছেন ধানের গোডাউন।

সরেজমিন পাবনার চাটমোহর উপজেলার নিমাইচড়া, গুনাইগাছা, বিলচলন ও ছাইকোলা ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ঘুরে দেখা যায়, স্কুলের বারান্দায় পড়ে আছে সিগারেটের রাংতা ও ছেঁড়া তাশ। মাঠজুড়ে স্তূপ করে রাখা হয়েছে খড়ের পালা। খড়ের পালার কারণে ঢাকা পড়েছে ভবনগুলো। মাঠগুলোতে অবাধে চরে বেড়াচ্ছে গরু-ছাগল। স্কুলের শোভা বর্ধনের জন্য লাগানো ফুলগাছগুলো যত্নের অভাবে মরে যাচ্ছে। বারান্দায় বেঁধে রাখা হয়েছে গরু-ছাগল ও ভেড়া। জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে জানালা-দরজা। অনেকে গরুর গোবর ও ধান শুকাচ্ছেন স্কুলের বারান্দায়।

রাজশাহীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এখন মাদকাসক্তদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সেখানে বসছে মাদকের জমজমাট আসর। জেলার চারঘাটের কৃষ্টপুর স্কুলে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বসে এলাকার কিছু নারী বাসাবাড়ির মতো করে ব্যবহার করছেন স্কুলটির বারান্দা।

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার নজিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বসবাস করছেন নির্মাণ শ্রমিকরা। মাঠে ছিটিয়ে রাখা হয়েছে নির্মাণ সামগ্রীর মালামাল ও মাটি। পত্নীতলা ইউনিয়নের হাসেমবেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বারান্দায় গরু পালন করা হচ্ছে। ভেঙে ফেলা হয়ে শ্রেণিকক্ষের দরজা। মাটিন্দর ইউনিয়নের শিবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে সেখানে শ্রেণিকক্ষে নির্মাণ সমগ্রীর মালামাল রাখা। কাঁটাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ ধানের গোডাউন হিসাবে ব্যবহার করছেন স্থানীয় এক রাজনৈতিক নেতা। পাটিচড়া ইউনিয়নের কাশিপুর সরকারি বিদ্যালয় মাঠে প্রতিনিয়ত মাদকের আসর বসে বলে জানা গেছে।

দিনাজপুর সদর উপজেলার ১নং চেহেলোগাজী ইউনিয়নের কর্ণাই দাখিল মাদ্রাসায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাদ্রাসার মাঠজুড়ে পাথরের স্তূপ। প্রতিনিয়ত যাওয়া-আসা করছে পাথরবাহী বিশাল ট্রাক ও ট্রাক্টর। স্থানীয়রা জানান, মাঠটি নাকি ঠিকাদারকে ভাড়া দেওয়া হয়েছে।

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা যায় অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দরজা-জানালা খোলা ও ভাঙা। প্রতিষ্ঠানের ভেতরে গরু-ছাগলের বিষ্ঠা। বারান্দায় বাঁধা রয়েছে গবাদি পশু। গৃহিণীরা খড় শুকানোর কাজ করছেন। জেলার বাগাতিপাড়া উপজেলা সদরের বাগাতিপাড়া সরকারি ডিগ্রি কলেজের মাঠজুড়ে রয়েছে একটি সড়ক নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সরঞ্জামাদি। একই চিত্র দেখা গেছে বড়াইগ্রামের নেংটাদহ (নুরদহ) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পাশের আগ্রান নুরদহ পীরপাল দাখিল মাদ্রাসায়।

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙা ইউনিয়নে টাপুরচর বিজি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্তূপ করে রাখা হয়েছে পাথর, বালি ও খোয়াসহ বিভিন্ন নির্মাণসামগ্রী। স্থানীয়রা জানান, স্কুল মাঠে নির্মাণসামগ্রী রেখে রাস্তার সংস্কার কাজ চলছে। এতে বিষাক্ত ধোঁয়া, ধুলাবালু ও বিটুমিন গলানোর দুর্গন্ধে চরম স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়েছেন তারা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন