কাঁঠালিয়ায় দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে নিহত ১
jugantor
নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা
কাঁঠালিয়ায় দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে নিহত ১

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৪ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আরিফ হোসেন (২০) নামে এক কলেজছাত্র নিহত ও ১৫ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পটুয়াখালীর বাউফলের চন্দ্রদ্বীপে বুধবারও নৌকার দুই সমর্থককে মারধর করা হয়েছে। বিজয়ী আনারস মার্কার প্রার্থী ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আসম ফিরোজের ভাতিজা এনামুল হক আলকাস মোল্লার কর্মী-সমর্থকরা এ হামলা চালিয়েছে। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ঝালকাঠি ও কাঁঠালিয়া : আরিফ হোসেন উপজেলার ছোনউটা গ্রামের শিক্ষক শাহ আলম আকন লাল মিয়ার ছেলে। সে বাগেরহাট সরকারি পিসি কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্র।

আরিফের মা শাহনাজ পারভীন, বাবা লাল মিয়া বলেন, ছোনাউটা কেরাত আলী দাখিল মাদ্রাসাসংলগ্ন বাজারে বুধবার সন্ধ্যারাতে বনভোজনের আয়োজন করে উপজেলার আমুয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সদ্যনির্বাচিত ইউপি সদস্য (মেম্বার) মজিবর রহমানের সমর্থকরা। এ সময় পরাজিত প্রার্থী ফারুক মিয়ার কর্মী আলী হোসেন রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় মজিবর রহমানের সমর্থকরা তাকে আটকে ও বেঁধে রাখে।

তাকে উদ্ধারের জন্য পরাজিত প্রার্থী ফোরকানের সমর্থকরা জড়ো হলে মজিবর রহমানের ৪৫-৫০ জন লোক রামদা, দাও ও লাঠি নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। বাজারে খুঁজে খুঁজে ফারুকের সমর্থকদের এলোপাতাড়ি কোপায় ও পেটাতে থাকে। এতে উভয় পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ওই এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

হামলায় আরিফ হোসেন (২০), তার মা শাহনাজ পারভীন (৫০), বাবা মাদ্রাসা শিক্ষক শাহ আলম লাল মিয়া আকন (৬০), বড় ভাই এলএলবির ছাত্র শরিফুল ইসলাম (২৫), সেহরাফ হোসেন আকন (৫৫), আ. মালেক (৬০), ইব্রাহীম আকন (২৫), আলিম সিকদার (৬০) গুরুতর আহত হয়। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এদের মধ্যে কলেজছাত্র আরিফ হোসেন ও আলিম সিকদারকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত তিনটার দিকে হাসপাতালে আরিফ হোসেন মারা যায়। কাঁঠালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পুলক চন্দ্র রায় বলেন, ২২ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করা হয়েছে।

বাউফল (পটুয়াখালী) : বাউফলের চন্দ্রদ্বীপে পরাজিত নৌকার কর্মী-সমর্থকদের মারধর, বাড়ি-ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলার ঘটনা অব্যাহত রয়েছে। নৌকার দুই সমর্থককে বুধবার মারধর করা হয়েছে। বিজয়ী আনারস মার্কার প্রার্থী ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আসম ফিরোজের ভাতিজা এনামুল হক আলকাস মোল্লার কর্মী-সমর্থকরা হামলা ও মারধর করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

আলকাস মোল্লার কর্মী আরিফ মারধরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, জাহিদ বেয়াদবি করেছে বলে মেরেছি। এরপর পুনরায় বলে, ওদের সঙ্গে পারিবারিক বিরোধ আছে বলে মেরেছি। আলকাস মোল্লা বলেন, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিরোধের কারণে মারামারি হলেও আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা

কাঁঠালিয়ায় দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে নিহত ১

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৪ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আরিফ হোসেন (২০) নামে এক কলেজছাত্র নিহত ও ১৫ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পটুয়াখালীর বাউফলের চন্দ্রদ্বীপে বুধবারও নৌকার দুই সমর্থককে মারধর করা হয়েছে। বিজয়ী আনারস মার্কার প্রার্থী ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আসম ফিরোজের ভাতিজা এনামুল হক আলকাস মোল্লার কর্মী-সমর্থকরা এ হামলা চালিয়েছে। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ঝালকাঠি ও কাঁঠালিয়া : আরিফ হোসেন উপজেলার ছোনউটা গ্রামের শিক্ষক শাহ আলম আকন লাল মিয়ার ছেলে। সে বাগেরহাট সরকারি পিসি কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্র।

আরিফের মা শাহনাজ পারভীন, বাবা লাল মিয়া বলেন, ছোনাউটা কেরাত আলী দাখিল মাদ্রাসাসংলগ্ন বাজারে বুধবার সন্ধ্যারাতে বনভোজনের আয়োজন করে উপজেলার আমুয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সদ্যনির্বাচিত ইউপি সদস্য (মেম্বার) মজিবর রহমানের সমর্থকরা। এ সময় পরাজিত প্রার্থী ফারুক মিয়ার কর্মী আলী হোসেন রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় মজিবর রহমানের সমর্থকরা তাকে আটকে ও বেঁধে রাখে।

তাকে উদ্ধারের জন্য পরাজিত প্রার্থী ফোরকানের সমর্থকরা জড়ো হলে মজিবর রহমানের ৪৫-৫০ জন লোক রামদা, দাও ও লাঠি নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। বাজারে খুঁজে খুঁজে ফারুকের সমর্থকদের এলোপাতাড়ি কোপায় ও পেটাতে থাকে। এতে উভয় পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ওই এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

হামলায় আরিফ হোসেন (২০), তার মা শাহনাজ পারভীন (৫০), বাবা মাদ্রাসা শিক্ষক শাহ আলম লাল মিয়া আকন (৬০), বড় ভাই এলএলবির ছাত্র শরিফুল ইসলাম (২৫), সেহরাফ হোসেন আকন (৫৫), আ. মালেক (৬০), ইব্রাহীম আকন (২৫), আলিম সিকদার (৬০) গুরুতর আহত হয়। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এদের মধ্যে কলেজছাত্র আরিফ হোসেন ও আলিম সিকদারকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত তিনটার দিকে হাসপাতালে আরিফ হোসেন মারা যায়। কাঁঠালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পুলক চন্দ্র রায় বলেন, ২২ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করা হয়েছে।

বাউফল (পটুয়াখালী) : বাউফলের চন্দ্রদ্বীপে পরাজিত নৌকার কর্মী-সমর্থকদের মারধর, বাড়ি-ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলার ঘটনা অব্যাহত রয়েছে। নৌকার দুই সমর্থককে বুধবার মারধর করা হয়েছে। বিজয়ী আনারস মার্কার প্রার্থী ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আসম ফিরোজের ভাতিজা এনামুল হক আলকাস মোল্লার কর্মী-সমর্থকরা হামলা ও মারধর করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

আলকাস মোল্লার কর্মী আরিফ মারধরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, জাহিদ বেয়াদবি করেছে বলে মেরেছি। এরপর পুনরায় বলে, ওদের সঙ্গে পারিবারিক বিরোধ আছে বলে মেরেছি। আলকাস মোল্লা বলেন, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিরোধের কারণে মারামারি হলেও আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন