বিভিন্ন স্থানে করোনা উপসর্গে মৃত্যু ৩৯
jugantor
বিভিন্ন স্থানে করোনা উপসর্গে মৃত্যু ৩৯
ঈশ্বরদীতে মা-ছেলে ও হাটহাজারীতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু * সিলেটে করোনায় মৃত্যু ৬শ ছাড়িয়েছে

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৪ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের বিভিন্ন স্থানে গেল ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আরও ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ ১৫ জন, বগুড়ায় ১৪ জন, চুয়াডাঙ্গায় ৪ জন ও ঝিনাইদহে ২ জন মারা গেছেন। চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আধা ঘণ্টার ব্যবধানে করোনার উপসর্গ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। পাবনার ঈশ্বরদীতে দুই ঘণ্টার ব্যবধানে মারা গেছেন মা-ছেলে। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

রাজশাহী : রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় আরও ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, মৃতদের মধ্যে ছয়জন করোনা পজিটিভ ছিলেন। ১৫ জন মারা গেছেন করোনার উপসর্গ নিয়ে। একজনের করোনা নেগেটিভ ছিল। তিনি শ্বাসকষ্টে মারা গেছেন। এদের মধ্যে রাজশাহীর ১১ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের চারজন, নাটোরের দুইজন, নওগাঁর একজন এবং পাবনার চারজন রোগী ছিলেন।

বগুড়া : ২৪ ঘণ্টায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল, বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল এবং বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় একজন এবং উপসর্গে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৮৪ জনের। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃতের সংখ্যা ৫২৭ জন।

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) : ঈদের আগের রাতে হাটহাজারী উপজেলার ১নং দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের ফকির খিল এলাকায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মাত্র ৩০ মিনিটের ব্যবধানে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- গাড়ি চালক জেবল হোসেন ও তার স্ত্রী নূর নাহার বেগম। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

ঈশ্বরদী (পাবনা) : শুক্রবার সকালে ঈশ্বরদীর গোরস্থানপাড়ায় দুই ঘণ্টার ব্যবধানে করোনা উপসর্গ নিয়ে মা ও ছেলের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন- ফেকু মন্ডলের স্ত্রী মছিরন বেগম ও বড় ছেলে রনজিত আলী রন্জু।

বরিশাল : বিভাগে চার দিনে করোনা ও উপসর্গে ৬৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ২৭ জন মারা যান করোনায়। মৃতদের মধ্যে ৫৩ জনই বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ নিয়ে বরিশাল বিভাগে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৪১৪ জনে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে বিভাগে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১২১৬ জনের।

খুলনা ও কুষ্টিয়া : খুলনা বিভাগে করোনায় চারদিনে ১৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে কুষ্টিয়া জেলায় মারা গেছে ৪২ জন। শনিবার বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দপ্তর থেকে এ তথ্য জানা গেছে। গেল ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে মোট মৃত্যু হয় ৩০ জনের। এর মধ্যে কুষ্টিয়ায় সর্বোচ্চ ১১ জন মারা যান। ২২ জুলাই মারা গেছেন ৪০ জন, সর্বোচ্চ মৃত্যু কুষ্টিয়ায় ১২ জন। ২১ জুলাই মারা যাওয়া ৩৩ জনের মধ্যে কুষ্টিয়ায় মারা গেছেন সর্বোচ্চ ৯ জন। ২০ জুলাই মারা গেছেন ৪৩ জন। এর মধ্যে কুষ্টিয়ায় ১০ জন, খুলনায় ৯ জন ও যশোরে ৮ জন।

ঝিনাইদহ : জেলায় ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৭ জন এবং উপসর্গে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে আরও ১৬৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ৪০৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করে এ ফল পাওয়া যায়। শনাক্তের হার ৪০.৯৮ শতাংশ।

সিলেট : সিলেট বিভাগে গেল ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৮ জনের। তারা সবাই সিলেট জেলার বাসিন্দা। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬শ ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৪৮৫, সুনামগঞ্জে ৪৩, হবিগঞ্জে ২৮ ও মৌলভীবাজারে ৫০ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৯৩৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় বিভাগে আরও ৩৮৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা : জেলায় ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও চারজন। নতুন করে ১৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট ৫ হাজার ৫৭৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

নোয়াখালী ও কোম্পানীগঞ্জ : জেলার সোনাইমুড়ী, চাটখিল ও কবিরহাট উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় জেলায় নতুন করে আরও ১১৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার শতকরা ২৬ দশমিক ২৪ ভাগ।

বিভিন্ন স্থানে করোনা উপসর্গে মৃত্যু ৩৯

ঈশ্বরদীতে মা-ছেলে ও হাটহাজারীতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু * সিলেটে করোনায় মৃত্যু ৬শ ছাড়িয়েছে
 যুগান্তর ডেস্ক 
২৪ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের বিভিন্ন স্থানে গেল ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আরও ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ ১৫ জন, বগুড়ায় ১৪ জন, চুয়াডাঙ্গায় ৪ জন ও ঝিনাইদহে ২ জন মারা গেছেন। চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আধা ঘণ্টার ব্যবধানে করোনার উপসর্গ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। পাবনার ঈশ্বরদীতে দুই ঘণ্টার ব্যবধানে মারা গেছেন মা-ছেলে। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

রাজশাহী : রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় আরও ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, মৃতদের মধ্যে ছয়জন করোনা পজিটিভ ছিলেন। ১৫ জন মারা গেছেন করোনার উপসর্গ নিয়ে। একজনের করোনা নেগেটিভ ছিল। তিনি শ্বাসকষ্টে মারা গেছেন। এদের মধ্যে রাজশাহীর ১১ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের চারজন, নাটোরের দুইজন, নওগাঁর একজন এবং পাবনার চারজন রোগী ছিলেন।

বগুড়া : ২৪ ঘণ্টায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল, বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল এবং বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় একজন এবং উপসর্গে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৮৪ জনের। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃতের সংখ্যা ৫২৭ জন।

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) : ঈদের আগের রাতে হাটহাজারী উপজেলার ১নং দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের ফকির খিল এলাকায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মাত্র ৩০ মিনিটের ব্যবধানে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- গাড়ি চালক জেবল হোসেন ও তার স্ত্রী নূর নাহার বেগম। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

ঈশ্বরদী (পাবনা) : শুক্রবার সকালে ঈশ্বরদীর গোরস্থানপাড়ায় দুই ঘণ্টার ব্যবধানে করোনা উপসর্গ নিয়ে মা ও ছেলের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন- ফেকু মন্ডলের স্ত্রী মছিরন বেগম ও বড় ছেলে রনজিত আলী রন্জু।

বরিশাল : বিভাগে চার দিনে করোনা ও উপসর্গে ৬৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ২৭ জন মারা যান করোনায়। মৃতদের মধ্যে ৫৩ জনই বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ নিয়ে বরিশাল বিভাগে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৪১৪ জনে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে বিভাগে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১২১৬ জনের।

খুলনা ও কুষ্টিয়া : খুলনা বিভাগে করোনায় চারদিনে ১৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে কুষ্টিয়া জেলায় মারা গেছে ৪২ জন। শনিবার বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দপ্তর থেকে এ তথ্য জানা গেছে। গেল ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে মোট মৃত্যু হয় ৩০ জনের। এর মধ্যে কুষ্টিয়ায় সর্বোচ্চ ১১ জন মারা যান। ২২ জুলাই মারা গেছেন ৪০ জন, সর্বোচ্চ মৃত্যু কুষ্টিয়ায় ১২ জন। ২১ জুলাই মারা যাওয়া ৩৩ জনের মধ্যে কুষ্টিয়ায় মারা গেছেন সর্বোচ্চ ৯ জন। ২০ জুলাই মারা গেছেন ৪৩ জন। এর মধ্যে কুষ্টিয়ায় ১০ জন, খুলনায় ৯ জন ও যশোরে ৮ জন।

ঝিনাইদহ : জেলায় ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৭ জন এবং উপসর্গে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে আরও ১৬৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ৪০৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করে এ ফল পাওয়া যায়। শনাক্তের হার ৪০.৯৮ শতাংশ।

সিলেট : সিলেট বিভাগে গেল ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৮ জনের। তারা সবাই সিলেট জেলার বাসিন্দা। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬শ ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৪৮৫, সুনামগঞ্জে ৪৩, হবিগঞ্জে ২৮ ও মৌলভীবাজারে ৫০ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৯৩৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় বিভাগে আরও ৩৮৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা : জেলায় ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও চারজন। নতুন করে ১৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট ৫ হাজার ৫৭৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

নোয়াখালী ও কোম্পানীগঞ্জ : জেলার সোনাইমুড়ী, চাটখিল ও কবিরহাট উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় জেলায় নতুন করে আরও ১১৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার শতকরা ২৬ দশমিক ২৪ ভাগ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন