জনগণের বিজয়কে ছিনিয়ে নেয়ার ষড়যন্ত্র হচ্ছে

নজরুল ইসলাম মঞ্জু

  খুলনা ব্যুরো ০৪ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছেন, খুলনায় অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনে সবসময় বিএনপি জয়লাভ করেছে। গত কয়েকদিনের নির্বাচনী প্রচারণায় সর্বসাধারণের ব্যাপক সাড়া ও মানুষের সমর্থনে সরকারি দল ঈর্ষান্বিত হয়ে উঠেছে। তাই সাধারণ ভোটারদের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে তারা প্রশাসন দিয়ে গণগ্রেফতারে মরিয়া হয়ে উঠেছে। নেতাকর্মীদের দুর্বল করে দেয়ার অসৎ উদ্দেশ্যে হঠাৎ করেই আঘাত করা হচ্ছে। শহরের বিতর্কিত ব্যক্তিদের নিয়ে জনগণের বিজয় ছিনিয়ে নেয়ার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। পুলিশ প্রশাসন ও কালো টাকার ব্যবহার এবং রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালাচ্ছে ক্ষমতাসীনরা। কিন্তু আমাদের সঙ্গে আছেন সাধারণ মানুষ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে কেডি ঘোষ রোড, পিকচার প্যালেস মোড়, নগরীর ১৩নং ওয়ার্ডে হালদারপাড়া, চরেরহাট, ২নং নেভিগেট, পালপাড়া, ১৫নং ওয়ার্ডের আলমনগর বাজার, পলিটেকনিক মোড়, কাস্টম মোড়, মোংলা বন্দর অফিস এলাকা, পোর্ট কলোনিতে গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণকালে এসব কথা বলেন তিনি।

এ সময় ১৫ মে কেসিসির নির্বাচনে জনগণকে সঙ্গে নিয়েই বিএনপি বিপুল ভোটে জয়লাভ করবে বলেও আশা প্রকাশ করেন নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

গণসংযোগকালে তার সঙ্গে ছিলেন মহানগর বিএনপির উপদেষ্টা জাফর উল্লাহ খান সাচ্চু, সহসভাপতি সিরাজুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ তরিকুল ইসলাম, জেলা বিএনপির সহসভাপতি শেখ আবদুর রশিদ, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি শরিফুল ইসলাম বাবু প্রমুখ।

মঞ্জুর গণসংযোগে হামলার অভিযোগ : এদিকে নগরীর খালিশপুরের আলমনগর বাজারে নজরুল ইসলাম মঞ্জুর নির্বাচনী গণসংযোগে হামলার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্রদল ও যুবদলের ৭ কর্মী আহত হয়েছেন। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গণসংযোগে থাকা নগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল আলম বলেন, বিকাল ৫টায় নগরীর ১৫নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ শেষ করে আলমনগরের ১৩নং ওয়ার্ডের রেললাইনের বস্তিতে লিফলেট বিতরণ করছিলাম। মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু তখন উপস্থিত ছিলেন। এ সময় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ মিছিল করছিল। সেখান থেকে তারা বিশ্রী ভাষা ব্যবহার করে আমাদের নেতাকর্মীদের উত্তেজিত করার চেষ্টা করছিল। কিন্তু মঞ্জু ভাই নেতাকর্মীদের নিয়ে বস্তির মানুষের সঙ্গে কুশলবিনিময় করছিলেন। এ সময় হঠাৎ আমাদের গণসংযোগের পেছন দিকে ক্ষমতাসীন দলের লোকজন হামলা চালায়। এ ঘটনায় ছাত্রদল কর্মী আলামিন তালুকদার প্রিন্স, যুবদল কর্মী আবদুস সামাদসহ ৭ জন আহত হয়েছেন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

আওয়ামী লীগের স্থানীয় কর্মী গোলাম রব্বানী ও মুন্সী নাজমুল আলম বলেন, ঘটনার সময় বিএনপির প্রচার মিছিলের কয়েকজন হঠাৎ করেই রাস্তায় টানানো নৌকা প্রতীকের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলে। এতে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। খালিশপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সরদার মোশাররফ হোসেন বলেন, আলমনগরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মিছিলে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছিল। তবে এতে কেউ আহত হয়েছেন কিনা জানি না।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter