গাজীপুর সিটি নির্বাচন

বৃষ্টি উপেক্ষা করে প্রচার দুই মেয়র প্রার্থীর

ভোট মানে এলাকার উন্নয়ন, নাগরিক সেবা -জাহাঙ্গীর * ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত কেন্দ্র পাহারা দেবে বিএনপি -হাসান

  নুরুল আমিন ও শাহ সামসুল হক রিপন ০৫ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বৃষ্টি উপেক্ষা করে প্রচার দুই মেয়র প্রার্থীর

দিনভর থেমে থেমে বৃষ্টি। তা উপেক্ষা করেই শুক্রবার গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দুই মেয়র প্রার্থী চষে বেড়িয়েছেন নির্বাচনী এলাকার এক প্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্ত। ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চেয়েছেন প্রার্থী ও সমর্থকরা।

বৃষ্টিতে কিছুটা ছন্দপতন হলেও উৎসবমুখর পরিবেশে চলে প্রচার। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সবখানেই চলেছে নির্বাচনী আড্ডা। আর এসব আড্ডায় গাজীপুরবাসীর একটাই প্রত্যাশা নিরপেক্ষ নির্বাচন।

এদিন গণসংযোগে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ভোট মানে এলাকার উন্নয়ন, ভোট মানে নাগরিক সেবা। ভোট মানে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, আবাসিক ব্যবস্থা, বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানিসহ সকল প্রকার নাগরিক সুবিধা।

তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে সরাসরি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোগিতা নিয়ে সব সুবিধা নিশ্চিত করব ইনশাল্লাহ। এলাকার সব শ্রেণী-পেশার মানুষের কাছে ভোট চান তিনি।

অন্যদিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার বলেন, কেন্দ্রের ফলাফল কেন্দ্রেই ঘোষণা করতে হবে। প্রিসাইডিং কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত ফলাফল শিট হাতে না আসা পর্যন্ত কেন্দ্র পাহারা দেবে ২০ দলীয় জোট নেতারা। স্বাক্ষরিত ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত কেন্দ্র থেকে কোনো ভোট কর্মকর্তাকে বের হতে দেয়া হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে গাজীপুরা এলাকা থেকে মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম গণসংযোগ শুরু করেন। তবে আওয়ামী লীগের পক্ষে এদিন প্রচারণায় অংশ নেননি কোনো কেন্দ্রীয় নেতা।

সাবেক সংসদ সদস্য কাজী মোজাম্মেল হক ও মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতিকে সঙ্গে নিয়ে বৃষ্টিতে ভিজে হেঁটে হেঁটে শিকদার মার্কেট, বাইগারটেক, খরতৈলমোড়, ২৭ চৌরাস্তা, লামা বাজার, মুন্নুগেট, স্টেশন রোড, নোয়াগাঁও, তিস্তাগেট, হকের মোড়, দত্ত পাড়া, চেরাগ আলী মার্কেট এলাকায় গণসংযোগ করেন। চেরাগ আলী মোড়ে একটি পথসভাও করেন তারা।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী ইলিয়াস আহমেদ, অধ্যক্ষ মহিউদ্দিন মহি, উপদেষ্টা জালাল উদ্দিন মাস্টার, টঙ্গী থানা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রজব আলী, ৫০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আবু বকর, ৪৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. নুরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান টিটু, টঙ্গী থানা যুবলীগ সহ-সভাপতি কাজী শহিদুল ইসলাম, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম, জাতীয় পার্টির মহানগর সাধারণ সম্পাদক মো. জয়নাল আবেদীন, বাংলাদেশ ইমাম সমিতি গাজীপুর শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ, ৫০নং ওয়ার্ড যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক কাজী জামাল, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল আলীম, গাজীপুর জেলা শ্রমজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি আবুল হাসেম মোল্লা, বাংলাদেশ গার্মেন্ট ও শিল্প শ্রমিক ঐক্য পরিষদের গাজীপুর জেলা সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ সংযুক্ত গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশন গাজীপুর জেলার সাধারণ সম্পাদক নাসরিন আক্তার, টঙ্গী থানা ছাত্রলীগ সভাপতি কাজী মঞ্জুর, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, প্রাইভেট মাদ্রাসা সমন্বয় পরিষদের সভাপতি মাওলানা এইচএম শাহ আলম, গাজীপুরস্থ রংপুর বিভাগ জনকল্যাণ সংস্থার সভাপতি আশরাফ আহমদ খান প্রমুখ।

এদিন নগরীর বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ ও পথসভা করেছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার। বৃষ্টি উপেক্ষা করে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সকাল ৯টায় তিনি গাজীপুরের শিমুলতলী এলাকা থেকে গণসংযোগ শুরু করেন।

এরপর তিনি হাতিয়ার, ভাওরাইদ, পোড়াবাড়ী বাজার, গজারিয়াপাড়া, বাংলা বাজার, ভীম বাজার, মাস্টার বাড়ী, কাউলতিয়া, জোলারপাড়, মিরেরগাঁও, জালা মার্কেট, সালনা, কাথোরা মৈশানবাড়ী বাজার, জলিশপুরে পথসভা ও গণসংযোগ করেন।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন, কালিয়াকৈর পৌরসভার মেয়র মজিবুর রহমান, গাজীপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ইজাদুর রহমান মিলন, সদর থানা বিএনপির সভাপতি নাজিম উদ্দিন চেয়ারম্যান, জেলা হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম সম্পাদক মুফতি নাসির উদ্দিনসহ ২০ দলীয় জোটের নেতারা। তিনি সাবেক গজারিয়া পাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জুমার নামাজ পড়েন।

এছাড়া জোটের কেন্দ্রীয় নেতারা পৃথকভাবে বিভিন্ন ওয়ার্ডে ধানের শীষের পক্ষে গণসংযোগ করেন। বিএনপি চেয়রপারসনের উপদেষ্টা আবদুল হাই ৪৬নং ওয়ার্ডে, যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ৫০নং ওয়ার্ডে, সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হাসান জীবন ৩৮নং ওয়ার্ডে, সহ-শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক হেলেন জেরীন খান ৪৬ নং ওয়ার্ডে, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কৃষিবিদ হাসান জাকির তুহিন ২৭নং ওয়ার্ডে, যুগ্ম-মহাসচিব খাইরুল কবীর খোকন ৩৯নং ওয়ার্ডে, কামরুদ্দীন এহিয়া খান মজলিস, সাবেক এমপি রোজিনা ইসলাম ৪৬নং ওয়ার্ডে, ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সোবাহান ৩৪নং ওয়ার্ডে, বিএনপির জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল ৩৯নং ওয়ার্ডে, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ওমর ফারুক সাফিন, ডিআইজি (অব.) আবদুল খালেক ৫৫নং ওয়ার্ডে, কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান ডালী, সালাহ্ উদ্দিন ভূইয়া শিশির, এমএ জলিল, শাহাদাত হোসেন বিপ্লব ও একরামুল বিপ্লব, কামাল হোসেন ও আনোয়ার হোসেন ২৫নং ওয়ার্ডে, বিএনপির কুমিল্লা বিভাগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খান ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মোস্তফা খান সফরী ১১নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করে। এছাড়া নগরীর ৩০নং ওয়ার্ডে জহিরুল হক সাহাদাজা, খন্দকার মাশুকুর রহমান ও চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মো. সোহরাব উদ্দিন, সদর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সুরুজ আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক বশির আহমেদ বাচ্চুসহ দলীয় নেতাকর্মীরা গণসংযোগ ও প্রচারপত্র বিলি করেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেত্রী কোহিনুর বেগম সাগর, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আহসানউল্লাহ হাসান, সিনিয়র সহ-সভাপতি মুন্সি বজলুল বাছিদ আঞ্জু, সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার, যুগ্ম সম্পাদক এজিএম সামসুল হক, এম. কফিলউদ্দিন, মো. শামীম পারভেজ, মাহফুজুর রহমান, চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমান, চেয়ারম্যান সাইফুর রহমান মিহির, মাহবুবুল করিম জাফর, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আক্তার হোসেন, সৈয়দ মনজুর হোসেন, সোহেল রহমান, দফতর সম্পাদক এবিএমএ রাজ্জাক, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মো. আলাউদ্দিন আহসান হাবিব, আ. সালাম, আলী আকবর আলী, হাবিবুর রহমান হবি, হারুন আর রশিদ খোকন, মিজানুর রহমান বাচ্চু, আসাদুজ্জামান খান বিপ্লব, সাইফুন্নবী খালেদ, আ. সালাম চৌধুরী, সালাউদ্দিন খান, শওকত হোসেন রাজু প্রমুখ।

সাধারণ ব্যবসায়ী বিদ্যুৎ হোসেন যুগান্তরকে বলেন, দলীয় প্রতীক বিবেচনা না করে গাজীপুরের উন্নয়নে যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দেবেন ভোটাররা। নির্বাচনে কে এগিয়ে আছে জানতে চাইলে এ ব্যবসায়ী বলেন, নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে দুই মেয়র প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে।

জয়দেবপুর রেল ক্রসিং এলাকার একটি চা-দোকানে চলছিল নির্বাচনী আড্ডা। কাওসার ও হামিদ নামের দু’ব্যক্তি যুগান্তরকে বলেন, জাতীয় নির্বাচনের আগে দু’দলের জন্যই গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন বড় চ্যালেঞ্জ। এ সিটি কর্র্পোরেশনে যারা জয়ী হবেন জাতীয় নির্বাচনেও তারা এগিয়ে থাকবেন।

ঘটনাপ্রবাহ : গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.