এবার চট্টগ্রামে চলন্ত বাসে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি

লাফিয়ে পড়ে রক্ষা * চালক ও সহকারীকে গণধোলাই

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ০৬ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এবার চট্টগ্রামে চলন্ত বাসে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি

এবার চট্টগ্রামে চলন্ত বাসে চালক ও হেলপার এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করেছে। পরে বাস থেকে লাফিয়ে পড়ে নিজেকে রক্ষা করেন ওই ছাত্রী।

এ অভিযোগে ছাত্রীর সহপাঠীরা বাসচালক ও সহকারীকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিয়েছে। শনিবার সকালে নগরীর ইপিজেড থানার সল্টগোলা ক্রসিং এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মেয়েটি প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের শিক্ষার্থী। নগরীর কোতোয়ালি থানার হাজারী লেনে বিশ্ববিদ্যালয়টির আইন অনুষদের ক্যাম্পাস। ছাত্রীটি বাসে করে সেখানেই যাচ্ছিলেন। গণপিটুনির শিকার বাসচালক মো. রাসেল (২৬) ও বাসের হেলপার মো. হানিফ (২৮)।

জানা যায়, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীটি নগরীর বন্দর এলাকা থেকে আসা ১০ নম্বর রুটের বাসে নেভি হাসপাতাল গেট থেকে ওঠেন। বাসে ওঠার সময় প্রথম দফায় এর সহকারী তার গায়ে হাত দেন।

ছাত্রীটি বাসে উঠে দেখেন সেখানে চালক ও তার সহকারী ছাড়া আর মাত্র চারজন পুরুষ ‘যাত্রী’ ছিলেন। তবে এরা সবাই অন্য কোনো বাসের স্টাফ অথবা চালক ও সহকারীর পরিচিত বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ ঘটনার সময় তারা প্রতিবাদ না করে উল্টো হাসাহাসি করেন।

এদিকে ওঠার পর থেকেই ওই ছাত্রী চালক ও সহকারীর উত্ত্যক্তের মুখে পড়েন। একপর্যায়ে তা যৌন হয়রানিতে রূপ নেয়। তিনি বাস থেকে নেমে যেতে চাইলে সহকারী তার শরীরে হাত দিয়ে নামতে বাধা দেয় এবং বাসের ভেতরে আটকে রাখার চেষ্টা করে।

এ সময় চালক সহকারীকে সহযোগিতা করে। কিছুদূর গিয়ে বাসটি ‘যাত্রী’ নামানোর জন্য গতি কমালে সেই সুযোগে তিনি সহকারীকে ঘুষি মেরে বাস থেকে লাফিয়ে পড়ে নিজেকে রক্ষা করেন।

এরপর ছাত্রীটি অন্য বাসে ক্যাম্পাসে এসে সহপাঠীদের বিষয়টি জানান। দুপুরের দিকে সহপাঠীদের সঙ্গে নিয়ে নগরীর ওয়াসা মোড়ে গিয়ে বাসটি শনাক্ত করেন। এ সময় প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা চালক ও সহকারীকে পিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেন। তারা বাসটি ভাংচুরও করেন।

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মিজানুর রহমান জানান, দুপুরে ঘটনার শিকার ছাত্রী ওয়াসার মোড় এলাকায় ওই বাসটিকে শনাক্ত করলে তারা চালক-সহকারীকে ধরে চকবাজার থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন।

ওই ছাত্রী বাস থেকে নামার সময় বাসের নাম ও নম্বর মনে রেখেছিলেন। সেই সূত্র ধরেই পরে তিনি সহপাঠীদের সঙ্গে নিয়ে বাসটি শনাক্ত করেন বলে জানান ওই ছাত্র।

চকবাজার থানার ওসি মীর মো. নুরুল হুদা যুগান্তরকে বলেন, ঘটনাটি ঘটেছিল ইপিজেড থানা এলাকায়। ফলে আটক চালক ও হেলপারকে ইপিজেড থানায় পাঠানো হয়েছে। ইপিজেড থানার ওসি মো. আহসান সন্ধ্যায় যুগান্তরকে জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter